| |

সর্বশেষঃ

ময়মনসিংহ-৩ আসনে হিরন বিএনপি’র মনোনয়ন পেলে লড়াই হবে হাড্ডাহাড্ডি

আপডেটঃ ৫:৫৭ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ১৮, ২০১৮

শামীম খান, গৌরীপুর ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি নির্বাচনে আসায় সারাদেশের ন্যায় ময়মনসিংহ-৩ (গৌরীপুর) আসনে রাজনৈতিক অঙ্গন সরগরম হয়ে ওঠেছে। বর্তমানে চায়ের দোকান থেকে শুরু করে সর্ব মহলে নির্বাচনী আলাপ-আলোচনার ঝড় বইছে। এই আসনে কে পাচ্ছেন আওয়ামীলীগ ও বিএনপি’র দলীয় মনোনয়ন। বিএনপি থেকে কাকে মনোনয়ন দিলে আ.লীগের প্রার্থীর সাথে লড়াই জমবে এসব নানা প্রশ্ন এখন সাধারন মানুষসহ স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মাঝে বিরাজ করছে। তবে এক্ষেত্রে স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও বিএনপি’র অধিকাংশ নেতা-কর্মীদের দাবি বর্তমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ময়মনসিংহ উত্তর জেলা বিএনপির যুগ্ন আহবায়ক আহাম্মদ তায়েবুর রহমান হিরন বিএনপি’র মনোনয়ন পেলে আ.লীগের মনোনীত প্রার্থীর সাথে ভোট যুদ্ধ হবে হাড্ডাহাড্ডি।
স্থানীয় বিএনপি’র নেতা-কর্মীরা জানান, তায়েবুর রহমান হিরণ ছাত্রজীবন থেকেই স্থানীয় ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হন। মাত্র ২৭ বছর বয়সে নিজ মইলাকান্দা ইউনিয়ন বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। বর্তমানে তিনি ময়মনসিংহ উত্তর জেলা বিএনপি’র যুগ্ম আহবায়ক ও উপজেলা বিএনপি’র আহবায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ২০০৩ ইং সনে তিনি বিপুল ভোটে মইলাকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। জনপ্রিয়তার কারনে ২০১৪ সনে আ’লীগের মনোনীত প্রার্থীকে প্রায় ১৮ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে গৌরীপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিন হন তিনি।
উল্লেখ্য আহাম্মদ তায়েবুর রহমান হিরনের পরিবারের প্রায় সকল সদস্য সুদীর্ঘ সময় থেকে গৌরীপুরে বিএনপি’র রাজনীতির সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত থেকে দলীয় কর্মকান্ডে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছেন। বিএনপি’র রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত থাকার কারনে তাদের পরিবাবের সদস্যদেরকে অসংখ্য মামলা-হামলা, হয়রানী ও নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে। দলীয় কর্মকান্ডে অগ্রণী ভূমিকা পালন করায় বিগত ১০ বছরে তায়েবুর রহমান হিরন ৫৭টি মামলার আসামী হন এবং ৭ বার কারাবরন করেন। তাঁর ছোট ভাই এ উপজেলার মইলাকান্দা ইউনিয়নের পর পর দু’বার নির্বাচত চেয়ারম্যান উপজেলা বিএনপির যুগ্ন আহবায়ক রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ দলীয় কর্মকান্ডে ভূমিকা পালন করায় অসংখ্য মামলার আসামী হন ও একাধিকবার কারারন করেন। তাদের বাড়ী ঘরে হামলাও হয়েছে বেশ কয়েকবার। অসংখ্য হামলা-মামলা ও নির্যাতনের শিকার হয়েও আহাম্মদ তায়েবুর রহমান হিরন বিএনপি ও তার সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে দলীয় কর্মসূচী পালন করে আসছেন। এজন্য হিরনের পরিবার গৌরীপুরে বিএনপি’র কর্ণধার হিসেবে সকলের নিকট পরিচিত। বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) নয়াপল্টনে বিএনপি’র কেন্দ্রিয় কার্যালয়ে গৌরীপুর উপজেলা বিএনপি ও তার সহযোগী সংগঠনের শত শত নেতা-কর্মী এবং সমর্থকদের সঙ্গে নিয়ে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে এমপি মনোনয়ন পেতে হিরন দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দেন।
আহাম্মদ তায়েবুর রহমান হিরণ সাংবাদিকদের জানান, দলীয় নেতা-কর্মী, সমর্থক ও সাধারণ মানুষের জোর দাবির প্রেক্ষিতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমপি পদে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন তিনি। এসময় তিনি দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, তাদে যদি এ আসনে বিএনপি’র মনোনয়ন দেয়া হয়, তাহলে দলের নেতা-কর্মী, সমর্থক ও শুভাকাংখীগণ বিএনপি’র চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে উক্ত আসনটি উপহার দিতে সক্ষম হবে। এ লক্ষে সকলের সার্বিক সহযোগিতা, সমর্থন ও দোয়া কামনা করেন তিনি।
গৌরীপুর পৌর যুবদলের আহবায়ক সুজিত কুমার দাস জানান, গৌরীপুরে বিএনপি’র তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের আস্থার প্রতিক আহাম্মদ তায়েবুর রহমান হিরন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি মনোনয়ন দাখিল করায় বিএনপি’র নেতা-কর্মীসহ সকল মানুষকে উদ্বেলিত করেছে। হিরন একমাত্র ব্যক্তি যিনি দীর্ঘদিন ধরে রাজপথে থেকে সাহসিকতার সাথে গৌরীপুরে বিএনপির নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছেন এবং বারবার কারাবরন করছেন। তিনি মনোনয়ন পেলে গৌরীপুরে ধানের শীষের বিজয় সুনিশ্চিত।
উপজেলা বিএনপি’র সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি প্রবীণ নেতা কোয়াছম উদ্দিন জানান, গৌরীপুরে বিএনপি’র কান্ডারী হচ্ছেন আহাম্মদ তায়েবুর রহমান হিরন। দলীয় নেতা-কর্মী ও সাধারন মানুষের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা ও গ্রহনযোগ্যতা রয়েছে তার। হিরনকে মনোনয়ন দিলে এ আসনে ধানের শীষ বিপুল ভোটে জয় লাভ করবে ইনশাল্লাহ।
গৌরীপুর পৌর বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি একেএম মোমেন খান কামাল জানান, দলের দুঃসময়ের কান্ডারী, ত্যাগী, কারানির্যাতিত ও নেতা-কর্মীদের একমাত্র আস্থার প্রতিক আহাম্মদ তায়েবুর রহমান হিরন। তাকে মনোনয়ন দিলে এ আসনে ভোট যুদ্ধ হাড্ডাহাড্ডি। তিনি আরো বলেন, বসন্তের কোকিলদের মাঝে অনেকেই এ আসনে এখন দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনতে দেখা যাচ্ছে, যাদেরকে বিগত ১০ বছরে দলীয় কর্মকান্ডে এলাকায় দেখা যায়নি। এসব বসন্তের কোকিলদের দলীয় মনোনয়ন না দেয়ার জোরালো দাবি করেন তিনি। তাঁর মতো একই মত ব্যক্ত করেন, উপজেলা শ্রমিকদলের সভাপতি মোঃ শহিদুল্লাহ, সাবেক যুবদল নেতা ও সাবেক পৌর কাউন্সিলর মনিরুজ্জমান পলাশ, উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি হুমায়ূন কবির, গৌরীপুর সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রদলের সভাপতি শাহজাহান আকন্দ সুমনসহ আরো অসংখ্য নেতা-কর্মী।

আরোও পড়ুন...

HostGator Web Hosting