| |

সর্বশেষঃ

স্কুলে বাবাকে অপমান করায় মেয়ের আত্মহত্যা

আপডেটঃ ১২:২২ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ০৪, ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : ক্লাস পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের অভিযোগে বাবাকে ডেকে অপমান করায় তা সহ্য করতে না পেরে অরিত্রি অধিকারী (১৫) নামে রাজধানীতে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের এক ছাত্রী আত্মহত্যা করেছে।

সোমবার দুপুরে অরিত্রি গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরে তাকে উদ্ধার করে বিকাল ৪টার দিকে পরিবারের সদস্যরা ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

অরিত্রি অধিকারী ভিকারুন্নেসা স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী ছিল। অরিত্রির বাবা দিলীপ অধিকারী একজন কাস্টসম (সিঅ্যান্ডএফ) ব্যবসায়ী। পরিবারের সাথে রাজধানীর শান্তিনগরে থাকতো সে। তাদের গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালী জেলায়।

ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) বাচ্চু মিয়া এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে।

অরিত্রির বাবা দিলীপ অধিকারী জানান, অরিত্রি ক্লাস পরীক্ষায় মোবাইলে উত্তর লিখে নিয়ে গিয়েছিল। সে ধরা পড়ায় তাকে আর পরীক্ষায় অংশ নিতে না দিয়ে স্কুল থেকে অভিভাবককে ডেকে পাঠানো হয়।

তিনি বলেন, সোমবার সকালে আমি স্কুলের প্রিন্সিপালের রুমে দুঃখ প্রকাশ করতে গেলে তারা অরিত্রিকে টিসি দিয়ে দেবে বলে জানায় এবং আমাকে অনেক কথা শোনায়।

তিনি আরো বলেন, এ সময় আমি মেয়ের সামনেই কেঁদে ফেলি। অরিত্রি হয়তো আমার ওই কান্না-অপমান মেনে নিতে পারেনি। বাসায় ফিরে সে তার ঘরে গিয়ে দরজা বন্ধ করে দেয় এবং ফ্যানের সাথে ঝুলে আত্মহত্যা করে।

অরিত্রির বাবা আরও বলেন, বাহির থেকে অনেক ডাকাডাকি করেও দরজা না খোলায়, দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে তাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করি। পরে হাসপাতালে নিয়ে এলে চিকিৎসক আমার মেয়েকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ বিষয়ে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ কর্তৃপক্ষের বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

আরোও পড়ুন...

HostGator Web Hosting