| |

সর্বশেষঃ

অসাধু ব্যবসায়ীদের কোনো ছাড় নয় : অর্থমন্ত্রী

আপডেটঃ ১:৫১ অপরাহ্ণ | মার্চ ১৩, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, যারা অসাধু ব্যবসায়ী। তারা ব্যাংকের টাকা নিয়ে ভুল জায়গায় ব্যবহার করছেন এবং ব্যাংকে টাকা ফেরত দিচ্ছেন না, তাদের কোনো ছাড় নয়। এসব অসাধু ব্যবসায়ীদের সহায়তাকারী ব্যাংক কর্মকর্তাদেরও খুঁজে বের করা হবে।

বুধবার (১৩ মার্চ) রাজধানীর ফার্মগেটে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ (কেআইবি) মিলনায়তনে জনতা ব্যাংকের বার্ষিক সম্মেলন-২০১৯ এ তিনি এ কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, যারা অসাধু ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা করেছেন সেই ব্যাংক কর্মকর্তাদের আমি তিন মিনিটে খুঁজে বের করতে পারবো। রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে কোনো অদক্ষ ও অসৎ কর্মকর্তার জায়গা হবে না। এদের বের করা কঠিন হবে না। সবাই ভালো কাজ করলে এর মধ্যে একজন অসৎ হলে সব অর্জন ম্লান হয়ে যায়।

দুর্নীতি প্রতিরোধে কর্মকর্তাদের শপথ প্রসঙ্গে আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, আমি আরো একদিন আসবো। সেই দিন সকল ব্যাংক কর্মকর্তাকে শপথ পড়াবো। নিজে দুর্নীতি করবো না, কাউকে করতে দিবো না। যারা শপথ পড়তে পারবেন না তারা আমার শপথ অনুষ্ঠানে আসবেন না।

ব্যাংকে কর্মকর্তা নিয়োগে তদবির আসছে উল্লেখ করে মুস্তফা কামাল বলেন, কেউ কেউ আমার কাছে তদবির নিয়ে আসছেন রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে কাজ করার জন্য। অনেকে আমার কাছে এসে বলছেন আমি অমুক কলেজে অর্থনীতির ক্লাস নিয়েছি এখন অবসরে আছি আমাকে একটা ব্যাংকে বসিয়ে দিন। আমি বলেছি এসব তদবিরে কাজ হবে না। যোগ্য লোকদের ব্যাংকে পাঠানো হবে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ব্যাংকগুলোকে অটোমেশন করতে হবে। বিশ্বকে অটোমেশন এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। প্রতিদিন বিশ্বজুড়ে ২ লাখ ৭৩ হাজার কোটি মানুষ ই-মেইল চালাচালি করে, ৪ হাজার ২০০ কোটি মানুষ নেট ব্রাউজ করে। প্রযুক্তির পরিবর্তন নিয়ে আসতে হবে।

‘ব্লকচেইন টেকনোলজি নিয়ে আসতে হবে। একটি কমপ্রেহেনসিড টেকনোলজি আনতে হবে যাতে সবাই একই প্রযুক্তি ব্যবহার করতে পারে।’

বিশেষ নিরীক্ষার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, সব প্রতিষ্ঠানে স্পেশাল অডিট করবো, তবে কাউকে ছোট করার জন্য নয়। দায়িত্ব নিয়েছি কাউকে জেলে পাঠানোর জন্য নয়। প্রমাণ না পাওয়া পর্যন্ত পদক্ষেপ নিব না। অর্থনীতিতে সমতা থাকুক, ডিভাইডটা যেন বড় না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। একদিনে এসব সম্ভব নয় তবে আমি পারবো।

দুর্নীতিবাজদের হুঁশিয়ারি দিয়ে মুস্তফা কামাল বলেন, হাতে আগে ব্যালেন্স শিট পেয়ে নেই, কোন ব্যবসায়ীকে জেলে পাঠাবো না, অপরাধ করে যদি স্বীকার করে তাহলে জেলে পাঠাবো না। যারা ব্যবসার পরিবেশ পরিস্থির কারণে খারাপ অবস্থানে চলে গেছে তাদের সহায়তা করবো, সততার সঙ্গে আছি।

‘ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করার জন্য আসি নাই, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান শুরু করা অনেক কঠিন। যারা ভালো ব্যবসায়ী তাদের সব ধরনের সহায়তা করবো। আমরা যা করবো সততার মধ্যে করবো, এমনভাবে পলিসি করবো যাতে সবাই উপকৃত হয়, আমরা সংস্কারমুখী পদক্ষেপ নেবো।’

জনতা ব্যাংকের চেয়ারম্যান লুনা সামসুদ্দোহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. ফজলে কবির, অর্থ সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব আসাদুল ইসলাম প্রমুখ।

HostGator Web Hosting