| |

সর্বশেষঃ

কারা জিতবে বিশ্বকাপ? কি বললেন অধিনায়করা…

আপডেটঃ ৩:৪৩ অপরাহ্ণ | মে ২৪, ২০১৯

ক্রীড়া প্রতিবেদক:  ১০ দলের বিশ্বকাপের পর্দা উঠার অপেক্ষায়। ইংল্যান্ডের মাটিতে আগামী ৩০ মে শুরু হচ্ছে দ্বাদশ বিশ্বকাপ।

যদিও বিশ্বকাপের দামামা বাজতে শুরু করেছে অনেক আগের থেকেই। এখন চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। আজ থেকে আবার শুরু হচ্ছে ওয়ার্মআপ ম্যাচ। মূল মঞ্চে মাঠে নামার আগে নিজেদের শেষবারের মতো ঝালিয়ে নিবে দলগুলো।

গতকাল আনুষ্ঠানিকভাবে দশ দলের অধিনায়ক মিলিত হয়েছিলেন এক ছাদের নিচে। ‘ক্যাপ্টেনস মিট আপে’র ঘন্টাখানেক অনুষ্ঠানে অধিনায়করা কথা বলেছেন বিশ্বকাপ নিয়ে। অবধারিতভাবে আলোচনার টেবিলে উঠে বিশ্বকাপের ফেবারিট দল নিয়ে।

কোন অধিনায়কের চোখে কারা ফেবারিট? সকল অধিনায়কের পছন্দ জানাচ্ছে রাইজিংবিডি’র ক্রীড়া বিভাগ।

অ্যারন ফিঞ্চ (অস্ট্রেলিয়া)
প্রশ্নটা ভালো। আমি মনে করি শেষ কয়েক বছরে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের ফর্ম দারুণ। তাদের সাথে ভারতও আছে। আমার মতে এ দুই দলই অসারধণ পারফর্ম করছে। তবে আমি মনে করি ইংল্যান্ডই ফেবারিট।

এউয়ন মরগ্যান (ইংল্যান্ড)
আমার কোনো ধারণা নেই। নির্দিষ্ট কোনো দলের মাথা উচুঁ করে দাঁড়ানোর সুযোগ নেই। এটা দশ দলের বিশ্বকাপ। বিশ্বের সেরা দশটি দল খেলছে এখন। অনেক প্রতিদ্বন্দ্বীতা হবে। পাশাপাশি ভালোমানের ক্রিকেট হবে। এজন্য সবাইকে সেরা খেলাটা উপহার দিতে হবে।  এটা সত্য স্বাগতিক দলের একটা ফ্যাক্টর কাজ করে। যেটা হোম অ্যাডভানটেজ। আমরা ধারাবাহিক পরিশ্রম করে আসছি শেষ কয়েক বছর ধরে। এবার সেটা মাঠে তুলে ধরার পালা।

বিরাট কোহলি (ভারত)
আমি অ্যারনের সঙ্গে একমত। ইংল্যান্ড সম্ভাব্য ফেবারিট দল। নিজেদের কন্ডিশনে তারা যথেস্ট শক্তিশালী। এবার তাদের সুযোগও রয়েছে। আবার মরগ্যানের সাথেও একমত আমি। এবারের দলগুলো বেশ ভালো এবং সবগুলো দলের ভারসাম্য রয়েছে। এবার আমাদেরকে সবগুলো দলের সঙ্গে খেলেই ওপরে উঠতে হবে। এটা অনেক চ্যালেঞ্জিং। এটা আবার টুর্নামেন্টের সেরা দিক। আমার মতে ক্রিকেট বিশ্ব এ যাবতকালের সেরা প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ টুর্নামেন্ট উপভোগ করতে যাচ্ছে।

সরফরাজ আহমেদ (পাকিস্তান)
মরগ্যান ও কোহলি যেটা বলল, প্রতিটি দলই ভারসাম্যপূর্ণ এবং প্রতিটি দলই ভালো। প্রত্যেক দলকে আমার শুভকামনা। আপনারা সবাই ইংল্যান্ডের মাটিতে পাকিস্তানের ফল দেখেছেন। ১৯৯২ এর টেস্ট সিরিজ, ১৯৯৯ এর বিশ্বকাপ। ইংল্যান্ডের মাটিতে পাকিস্তানের ফল ভালো। ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে আমরা চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলাম। এবারও আমরা আত্মবিশ্বাসী। ইনশাআল্লাহ আমরা ভালো কিছুই করতে পারব।

দিমুথ করুনারত্মে (শ্রীলঙ্কা)
আমরা সম্প্রতি ভালো ক্রিকেট খেলছি এবং ইংল্যান্ডে আমাদের পুরোনো ইতিহাস ভালো। আমরা চেষ্টা করবো আমাদের সেরা ক্রিকেট উপহার দিতে। আমরা এখানে আগে পৌঁছে অনুশীলন করে কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছি। আমরা ভালো অবস্থায় আছি। আশা করছি ভালো কিছ পাবো এ বিশ্বকাপ থেকে।

কেন উইলিয়ামসন (নিউজিল্যান্ড)
আমাদের দলে শেষ বিশ্বকাপ খেলেছে এমন একাধিক খেলোয়াড় আছে। এটা ভালো অভিজ্ঞতা দিচ্ছে দলকে। তবুও দুই টুর্নামেন্টের ভেতরে চার বছরের ব্যবধান। এ সময়ে নতুন খেলোয়াড় ঢুকেছে। আমি দেখছি, র‌্যাঙ্কিং, ফেবারিট, আন্ডারডগ দল নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে। তবে আমার মতে এসকল কিছু তখনই বিবেচনায় আসে যখন কোনো দল নিশ্চিন্তে মাঠে নামতে পারে। এবার সেই সুযোগটি নেই। টুর্নামেন্টের প্রত্যেক দল ভালো। নির্দিষ্ট দিনে যেকোনো কিছু ঘটতে পারে। এজন্য প্রতিদ্বন্দ্বীতা হবে সেই প্রত্যাশা করছি।

ফাফ ডু প্লেসিস (দক্ষিণ আফ্রিক)
আপনি যদি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের দিকে তাকান দেখবেন, ঘরে কিংবা ঘরের বাইরে এখন প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ সিরিজ হচ্ছে। নির্দিষ্ট কোনো দল প্রভাব খাটিয়ে খেলছে এমনটা বলা যাবে না। অন্যান্য দলের অধিনায়করা যেটা বলছেন আমিও একমত তাতে, টুর্নামেন্ট প্রতিদ্বন্দ্বতাপূর্ণ হবে।

মাশরাফি বিন মুর্তজা (বাংলাদেশ)
আমাদের দলের মিশ্রণটা দারুণ। সম্ভবত আমরা আমাদের এ যাবতকালের সেরা দল নিয়ে এসেছি এবার। আমাদের তরুণ ক্রিকেটাররা ভলো করছে। তাদের নিয়ে লড়াই করতে মুখিয়ে আছি।

জেসন হোল্ডার (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
প্রত্যেক দলের বিপক্ষে খেলা আমাদের জন্য বড় সুযোগ। আমরা কোয়ালিফাই করে বিশ্বকাপে আসতে যথেষ্ট পরিশ্রম করেছি। এর মানে আমরা এখন সেরা দশ দলের একটি। এখন বাকিদের বিপক্ষে আমাদের একটাই কাজ, আমাদের সেরা খেলাটা উপহার দেওয়া। এতোটা প্রতিদ্বন্দ্বীতা হবে যে, যারা জিতবে তাদেরকে মনেই হবে তারা সেরা দল।

গুলবাদিন নাইব (আফগানিস্তান)
আফগানিস্তানে এখন শান্তি বিরাজ করছে এবং ক্রিকেট ওখানে বড় ভূমিকা রেখেছে। আমরা খুবই খুশি এবং আশাবাদী যে আমরা বিশ্বকাপে ভালো কিছু দিতে পারব। এখানকার সমর্থকদের সামনে খেলতে মুখিয়ে আছি। বিশ্বের সেরা দশ দলের বিশ্বকাপে আফগানিস্তান রয়েছে। এটা আমাদের জন্য গর্বের।

HostGator Web Hosting