| |

সর্বশেষঃ

ছুটির দিনে জমজমাট ঈদের কেনাকাটা

আপডেটঃ ৫:১৩ অপরাহ্ণ | মে ২৪, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : জমে উঠেছে রাজধানীসহ সারা দেশের শপিংমলে বুটিক হাউসের কেনাকাটা। বড় বড় শপিং মল বিশেষ করে বসুন্ধরা সিটি শপিং মলে মানুষের উপচে পড়া ভিড়। তবে এর বাইরে অনলাইনেও কেনাকাটা সারছেন অনেকে। এক সময় ছিল যখন বেশ কয়েকটি শপিং মল ঘুরে, যাচাই-বাছাই করে তবেই একজন ক্রেতা তার পছন্দের ঈদ পোশাকটি কিনতেন। কিন্তু এখন অবস্থা অনেকটাই বদলেছে। হাতের স্মার্ট মোবাইলে বিভিন্ন অনলাইনভিত্তিক পেজ ও ব্র্যান্ডেড হাউসের পোশাক দেখে ক্রেতারা তাদের ঈদ পোশাক কিনছেন। ছেলে-মেয়ে, ছোট শিশু সবার জন্যই অনলাইন পেজগুলোতে ছবিসহ এখন পোশাকের দাম ও বিস্তারিত বর্ণনা দেওয়া থাকছে। আবার ক্রেতা চাইলে ঘরেই হোম ডেলিভারি দেওয়ার ব্যবস্থা রাখছে অনলাইনভিত্তিক এসব প্রতিষ্ঠান। তবে পণ্য ক্রয়-বিক্রয়ে তুলনামূলক পরিচিত ব্র্যান্ড ও পেজটির পণ্য সম্পর্কে একটু খোঁজ নিয়ে কেনাকাটা করলে ক্রেতার আর প্রতারিত হওয়ার ঝুঁকি থাকে না।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক-এ ব্যবহারকারী লক্ষ্য করলে দেখবেন যে ঈদ ঘনিয়ে আসার সঙ্গে তাদের সামাজিক যোগাযোগের এ মাধ্যমে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বিভিন্ন ব্যবসায়িক পণ্যের বিজ্ঞাপনী প্রচার। এ জন্য বিক্রেতারা অনেকেই লাইভে এসে নিজেদের পণ্য পরিচিতি ক্রেতাদের সামনে তুলে ধরছেন। দেশীয় স্টিচ, আনস্টিচ থ্রি-পিস ও শাড়ি, পাশ্চাত্যের পোশাক, ভারতীয় ডিজাইনার পোশাক এবং ছেলেদের পোশাক নিয়ে লাইভে এসে বিক্রেতারা পণ্য সম্পর্কে ক্রেতার বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছেন। নারী উদ্যোক্তা শাম্মী আক্তারের ফেসবুকে নিজের নামে একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান আছে। তিনি বেশ কয়েক বছর ধরে ভারত থেকে মেয়েদের পোশাক ও গহনা এনে অনলাইনে বিক্রি করছেন। প্রথমে অনলাইনে ছোট আকারে ব্যবসা শুরু করলেও তার দিন বদলেছে। ঈদের ব্যস্ততায় এখন শাম্মী দম ফেলারও ফুসরত পাচ্ছেন না। পেজে অর্ডার পাওয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন ঈদ মেলাতেও অংশ নিচ্ছেন তিনি। আর এটি সম্ভব হয়েছে অনলাইন প্রচারণার জন্য। ঢাকার বিদেশি এক এনজিওতে কাজ করেন প্রিয়ন্তী রহমান। কাজের ব্যস্ততায় শপিং মলে খুব একটা যেতে পারেন না। এ জন্য গত কয়েক বছর ধরে অনলাইনের বিশ্বস্ত কয়েকটি পেজ ও ব্র্যান্ডের কাছ থেকে পণ্য ক্রয় করছেন। প্রিয়ন্তীর মতে ঢাকার যানজট ও ধুলোবালি সহ্য করে শপিং মলে যাওয়ার চেয়ে মোবাইলে পছন্দের পণ্য অর্ডার করা অনেক সহজ। এই ঈদেও সালোয়ার-কামিজ, শাড়ি, গহনা তিনি অনলাইন থেকে কিনেছেন। এখন শুধু জুতা কেনা বাকি আছে। তিনি জানালেন, অনলাইনে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের জুতাগুলো এরই মধ্যে দেখে নিয়েছেন। এখন শুধু তা কিনে নেবেন।
ঈদকে সামনে রেখে অনলাইভিত্তিক বিভিন্ন সাইটেও পোশাক, জুতা, প্রসাধনী এবং ঘরের প্রয়োজনীয় সামগ্রী বিক্রি হচ্ছে।

দারাজ অনলাইন শপিং, অথবা ডট কম-এর মতো অনলাইনভিত্তিক ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেজ থেকেও অনেকে পণ্য কিনছেন। তবে কিছু ক্রেতা অনলাইন থেকে পণ্য কিনে কাক্সিক্ষত পণ্য না পাওয়ার অভিযোগও করেছেন। এক্ষেত্রে পণ্য কেনার সময় ডেলিভেরিম্যান যখন পণ্যটি বুঝিয়ে দেবেন তখন তা ভালো করে দেখে নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন অনলাইন ব্যবসায়ীরা।

HostGator Web Hosting