| |

সর্বশেষঃ

জাতিসংঘের অধিবেশনে রোহিঙ্গা সমস‌্যা নিয়ে আলোচনা হবে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আপডেটঃ ২:৪৪ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন জানিয়েছেন, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৪তম অধিবেশনে রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আলোচনা এবং এ বিষয়ে বেশকিছু ইভেন্ট হবে।

বুধবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ‌্য জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম ও পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হক।

জাতিসংঘের অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগদানের বিষয়ে জানাতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, পৃথিবীর অন্যতম বাস্তুচ্যুত জনগোষ্ঠীর আশ্রয়দানকারী হিসেবে বাংলাদেশের রোহিঙ্গা বিষয়ে আয়োজিতব্য বিভিন্ন ইভেন্টে অংশগ্রহণ এবং নিজের অবস্থান তুলে ধরা অত্যাবশ্যক। এছাড়া, রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ৭২তম অধিবেশনে প্রদত্ত ৫ দফা প্রস্তাব ও ৭৩তম অধিবেশনে পুনর্ব্যক্ত করা ৩ দফা এখনো প্রাসঙ্গিক। উপরন্তু রোহিঙ্গা বিষয়ে বিশ্বনেতৃত্বের আগ্রহ, সার্বিক অবস্থান অব্যাহত রাখা এবং প্রত্যাবাসন ত্বরান্বিতকরণে মিয়ানমারের উপর আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টির জন্য এ বিষয়ে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে বাংলাদেশের জোরালো বক্তব্য ও অংশগ্রহণ অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

অধিবেশন চলাকালে রোহিঙ্গা ইস্যুতে নিউইয়র্কে বাংলাদেশ, মিয়ানমার ও চীনের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক হবে বলেও জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে আগামী ২২ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে পৌঁছাবেন। সেখানে রোহিঙ্গা ইস্যুতে নিউইয়র্কে বাংলাদেশ, মিয়ানমার ও চীনের মধ্যে বৈঠক হবে। চীনের মধ্যস্থতায় এ বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছে।

এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ অধিবেশনে বক্তব্য রাখবেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় তিনি রোহিঙ্গা সংকট তুলে ধরবেন। জাতিসংঘ অধিবেশনের সাইডলাইনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গেও বৈঠক করবেন।

জাতিসংঘের আসন্ন অধিবেশন সম্পর্কে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সাধারণ বিতর্ক পর্বের মূল প্রতিপাদ্যের আলোকে এবং বর্তমান বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে জলবায়ু পরিবর্তন, দারিদ্র দূরীকরণ, মানসম্মত শিক্ষা, অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন, সকলের সুস্বাস্থ্য নিশিচতকরণ, নারীর ক্ষমতায়ন এবং অভিবাসন ও শরণার্থী সমস্যার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে বহুপাক্ষিক পর্যায়ে সহযোগিতা বৃদ্ধি নিয়ে এবারের অধিবেশনে আলোচনা হবে। এ অধিবেশনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে এসব বিষয়ে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরা সম্ভব হবে।

তিনি বলেন, এবারের অধিবেশনে সাধারণ বিতর্ক পর্বের পাশাপাশি টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট তথা এসডিজি বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ বেশকিছু সভা হবে। এসব সভায় এসডিজি বাস্তবায়নে বাংলাদেশের অগ্রগতি এবং এসডিজির লক্ষ্য পূরণে রাষ্ট্রসমূহের সহযোগিতাপূর্ণ মনোভাবে একযোগে কাজ করার বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, সর্বশেষ জাতীয় নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়লাভের পর নতুন করে সরকার গঠনের পর এই অধিবেশনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তার সরকারের নেতৃত্বে বিগত বছরগুলোতে অর্জিত বাংলাদেশের সাফল্যসমূহ তুলে ধরবেন। এর পাশাপাশি দেশে চলমান অর্থনৈতিক উন্নয়ন, গণতন্ত্র ও সুশাসনের ধারা অব্যাহত রাখতে বাংলাদেশের কর্মপরিকল্পনা বিশ্ববাসীকে অবহিত করতে পারেন।

এবারের অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ শীর্ষ সভায় সক্রিয়ভাবে অংশ নেবেন বলেও মন্ত্রী জানান।

HostGator Web Hosting