| |

সর্বশেষঃ

কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে আসা জয়ের আগ্রহের ওপর নির্ভর করছে : ওবায়দুল কাদের

আপডেটঃ ৬:৫৫ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ১৫, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের কেন্দ্রীয় রাজনীতিতে আসা তার আগ্রহ ও ইচ্ছার ওপর নির্ভর করছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘জয়ের ইচ্ছার ব্যাপারও আছে। নেত্রীকে কোনো কিছু বললে তিনি বলেন, জয় তো আসতে চায় না। এখনো তার আসার আগ্রহ নেই।’

শুক্রবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

সজীব ওয়াজেদ জয়ের রাজনীতিতে আসা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সেটা আমাদের পার্টির সভাপতি, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার সিদ্ধান্ত। জয় তো আছেনই। আমি বার বারই নেত্রীকে বলে আসছি যে, জয়কে আপনি পরবর্তীকালের জন্য গ্রুমিং করুন। এটা নেত্রীর সিদ্ধান্তের ব্যাপার। জয়ের নিজেরও ইচ্ছার ব্যাপার। এর আগে জয় নিজেই কোনো পদে আসতে চাননি, যেভাবে আছেন সেভাবেই তিনি আপাতত থাকতে চান।’

‘তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগের কোনো পদে, যেমন: পীরগঞ্জে তাকে মনোনয় দেয়ার জন্য সেখানে থেকে অনেক দাবি ছিল, কিন্তু তিনি রাজি হননি। কাজেই জয়ের নিজের ইচ্ছারও এখানে ব্যাপার আছে। জয় যখন বাংলাদেশে আসবেন, আপনারা তাকে জিজ্ঞাসা করতে পারেন,’ বলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর অনেক সদস্য মন্ত্রিসভায়, আগামী সম্মেলনে সেখানে নতুন মুখ কারা আসছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটা ডিসাইড করার মালিক আমাদের সভাপতি। আমাদের গঠনতন্ত্রে এ ক্ষমতা দেয়া আছে। আমাদের নেত্রী, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা তিনি নির্ধারণ করবেন, কে আসবে দলে। আমাদের দলে শেখ হাসিনা ছাড়া আর কেউ অপরিহার্য় ব্যক্তি নয়। আমি আপনাদের পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, আমরা কেউই অপরিহার্য় নই।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘দলের সাধারণ সম্পাদক পদেও নেত্রী যা ইচ্ছা করবেন সেটাই হবে। তিনি পরিবর্তন চাইলে, পরিবর্তন হবে। আমাদের এখানে কোনো প্রতিযোগিতা নেই। হয়তো কারো কারো ইচ্ছা, আকাঙ্ক্ষা থাকতে পারে। সাধারণ সম্পাদক পদেও প্রার্থী থাকতে পারে। সেখানে কোনো অসুবিধা নেই। আমি যদি মনে করি, আমার প্রতিদ্বন্দ্বী আর কেউ হতে পারবে না, এটা তো ঠিক না। এটা ডিসাইড করবেন নেত্রী। তবে প্রার্থী হওয়ার অধিকার সবার আছে।’

আওয়ামী লীগের কমিটির কলেবর এখন পর্যন্ত বাড়ানোর চিন্তাভাবনা নেই, জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘কমিটি ৮১ জনেরই থাকবে। আমাদের নেত্রী যেটা মনে করছেন- আপাতত কমিটিতে সংখ্যা বাড়ানোর কোনো ইচ্ছে নেই।’

তিনি বলেন, ‘কোনো পদই বাড়ার সম্ভাবনা নেই। আমাদের বর্তমান কমিটিতেই একটা সদস্য ও দুটো সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যের পদ খালি আছে। সেগুলো এই মুহূর্তে পূরণ হবে না। সম্মেলনের মধ্য দিয়েই আমরা পুরো কমিটি করে ফেলব, এটাই আমাদের সিদ্ধান্ত।’

বিএনপিসহ দেশের সব নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলকে আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিলে আমন্ত্রণ জানানো হবে বলে জানান দলটির সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, ‘বিদেশ থেকে প্রতিনিধি যেহেতু মুজিব বর্ষে আসবে, সেজন্য জাতীয় সম্মেলনে আমরা তাদের দাওয়াত দিচ্ছি না। তবে আমরা এখানে কূটনৈতিকদের দাওয়াত দেব।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক প্রকৌশলী আব্দুস সবুর, কেন্দ্রীয় সদস্য এস এম কামাল হোসেন প্রমুখ।

HostGator Web Hosting