| |

সর্বশেষঃ

  • মুজিব বর্ষ

প্রতিটি উপজেলায় কমিউনিটি ভিশন সেন্টার স্থাপন হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

আপডেটঃ ৬:২৮ অপরাহ্ণ | জানুয়ারি ১৯, ২০২০

বিশেষ সংবাদদাতা : ২০২০ সালের মধ্যে দেশের প্রতিটি উপজেলায় কমিউনিটি ভিশন সেন্টারের মাধ্যমে চক্ষুসেবা কেন্দ্র স্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। রোববার সকালে রাজধানীর গুলশানের একটি হোটেলে ন্যাশনাল আই কেয়ার কর্তৃক আয়োজিত বাংলাদেশ ন্যাশনাল কাউন্সিল ফর দ্য ব্লাইন্ড (বিএনসিবি) সভা ২০২০ উপলক্ষে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

এক পরিসংখ্যান তুলে ধরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে বর্তমানে সাড়ে ৭ লাখ অন্ধ মানুষ রয়েছে। চোখের অন্যান্য সমস্যাগ্রস্ত মানুষের সংখ্যা ৬০ লাখেরও বেশি। কায়িক শ্রম না করার কারণে ডায়াবেটিস রোগ দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় মানুষের চোখের সমস্যা আরও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

তিনি বলেন, শিশুদের তেমন কোনো খেলার জায়গা না থাকায় শিশুদেরও চোখের সমস্যা বেড়ে যাচ্ছে। সুতরাং মানুষের চোখের চিকিৎসায় সব ধরনের সহযোগিতায় আমাদের উদ্যোগের কোনো রকম ঘাটতি রাখা যাবে না। তাই এ বছরই (২০২০) দেশের ৬৪ জেলাতেই চক্ষু চিকিৎসক পদায়নসহ প্রতিটি উপজেলায় কমিউনিটি ভিশন সেন্টার স্থাপন করা হবে।

উল্লেখ্য, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে ২০০৭-২০১১ সময়ের জন্য দেশে প্রথম চক্ষু চিকিৎসা অপারেশন প্ল্যান, ২০১১-২০১৬ সময়ের জন্য দ্বিতীয় অপারেশন প্ল্যান ও ২০১৭-২০২২ সময়ের জন্য তৃতীয় অপারেশন প্ল্যান গ্রহণ করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে সভায় স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, কমিউনিটি ক্লিনিক স্বাস্থ্য সহায়তা ট্রাস্টের চেয়ারম্যান ও প্রধানমন্ত্রীর সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ বিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী, স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ এইচ এম এনায়েত হোসেন, ন্যাশনাল আই কেয়ার সেন্টারের লাইনের পরিচালক, আমাদের নতুন সময় ও জাতীয় অর্থনীতি পত্রিকার সম্পাদক নাইমুল ইসলাম খান, এশিয়া প্যাসিফিক একাডেমি অব অফথালমোলজি’র সভাপতি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিউনিটি অফথালমোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান, সিবিএম এর কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ, সুপ্রিম কোর্টের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. মোতাহার হোসেন সাজু, ন্যাশনাল আই কেয়ারের লাইন ডাইরেক্টর এবং জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. গোলাম মোস্তফা উপস্থিত ছিলেন।

HostGator Web Hosting