| |

সর্বশেষঃ

  • মুজিব বর্ষ

নির্বাচনী ট্রাইবুন্যালের রায় : ৪ বছর পর গৌরীপুরে নৌকা প্রতিকের হযরত আলীকে ৫১ ভোটে বিজয়ী ঘোষণা

আপডেটঃ ৮:৪০ অপরাহ্ণ | মার্চ ২৪, ২০২০

শামীম খান, স্টাফ রিপোর্টার ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : ৪ বছর পর আদালতের রায়ে বিজয়ের স্বাদ গ্রহণ করলেন ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার ২ নম্বর সদর ইউনিয়ন পরিষদের নৌকার প্রার্থী হযরত আলী। মঙ্গলবার দুপুরে সদর সিনিয়র সহকারী জজ ও নির্বাচন ট্রাইবুনাল আদালতের বিচারক উমা রানী দাস হযরত আলীকে ৫১ ভোটে বিজয়ী ঘোষণা করে রায় প্রদান করেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী বাঁধন কুমার গোস্বামী জানান, ২০১৬ সালের ৩১মার্চ অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে গৌরীপুর উপজেলার ২নম্বর গৌরীপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আনোয়ার হোসেন (ঘোড়া প্রতীক) ৫ হাজার ৫৯ ভোটে বিজয়ী ঘোষণা করেন রির্টাানিং অফিসার। নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বী হযরত আলী (নৌকা প্রতীক) পান ৫ হাজার ২১ ভোট। এ বিজয়কে চ্যালেঞ্জ করে হযরত আলী বাদী হয়ে ময়মনসিংহের বিজ্ঞ সদর সিনিয়র সহকারী জজ ও নির্বাচন ট্রাইবুনালে ২টি ভোট কেন্দ্রের ভোট পুনঃগণনার আবেদন জানিয়ে মামলা দায়ের করেন।
শুনানী শেষে উভয়পক্ষের উপস্থিতিতে শালীহর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও শালীহর মধুসূদন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের ভোট পুণঃগণনা অনুষ্ঠিত হয়। পুণঃগণনায় ঘোড়া প্রতীকের ১০১টি ভোট বাতিল ও নৌকা প্রতীকের ৩ ভোট বৃদ্ধি পায়। ফলে ঘোড়া প্রতীকের ৪ হাজার ৯৫৮ ভোট ও নৌকা প্রতীকের ৫ হাজার ২৪ ভোট হয়। এরমধ্যে ১৫টি ভোট আপত্তিতে রেখে ৫১ ভোটে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হযরত আলীকে বিজয়ী ঘোষণা করে এ রায় দেন বিজ্ঞ বিচারক উমা রানী দাস।
তিনি আরো বলেন, বাতিলকৃত ভোটগুলোতে নির্বাচন কমিশনের নির্ধারিত সীলের স্থলে হাতের ও পায়ের আঙুলের ছাপ দেয়া ছিলো।
বিবাদীপক্ষে ছিলেন আইনজীবী আনোয়ার হোসেন খান, রায়ের সত্যতা স্বীকার করেন ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী আনোয়ার হোসেন তিনি বলেন, এ রায়ের বিরুদ্ধে আমি উচ্চ আদালতে আপিল করবো।
রায়ে বিজয়ী নৌকার প্রার্থী হযরত আলী বলেন, সত্য কোনদিন চাপা থাকে না এর বিজয় অবধারিত। আজ তা প্রমাণিতও হয়েছে। কুচক্রি মহল ষড়যন্ত্র করেও আমার বিজয় ঠেকাতে পারেনি। এটা জনগণের বিজয়। জনগণকে নিয়েই চেয়ারম্যানী করে যাব।
উল্লেখ্য যে, ২০১৬ সালের ৩১মার্চ নির্বাচনে বিজয়ী ঘোষণার পর আনোয়ার হোসেন ওই বছরের ২৯ মে ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে শপথ গ্রহণ করেন। শপথ বাক্য পাঠ করান তৎকালীন জেলা প্রশাসক মুস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী। শপথ নেয়ার পর থেকে এ ইউনিয়নের কার্যক্রম অধ্যাবধি পরিচালনা করে আসছেন তিনি।

HostGator Web Hosting