| |

সর্বশেষঃ

  • মুজিব বর্ষ

মার্কিন কংগ্রেস নির্বাচনে প্রার্থিতার দৌড়ে এগিয়ে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নাবিলা

আপডেটঃ 12:51 pm | May 20, 2020

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন কংগ্রেস নির্বাচনে প্রার্থিতার দৌড়ে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক নাবিলাহ ইসলাম। জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের একটি আসন থেকে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির টিকিটে নির্বাচন করতে আগ্রহী তিনি। ইতোমধ্যেই এ ব্যাপারে দলের ক্যারিশম্যাটিক নেতা আলেকজান্দ্রিয়া ওকাসিও-কর্টেজ-এর সমর্থন পেয়েছেন তিনি।

নির্বাচনের মাত্র তিন সপ্তাহ আগে ডেমোক্র্যাটিক শিবিরে নাবিলাহ ইসলামের পক্ষে ওকাসিও-কর্টেজের এই সমর্থনকে ইতিবাচক হিসেবে দেখা হচ্ছে।

নাবিলাহ একজন প্রথম প্রজন্মের আমেরিকান। তিনি একটি শ্রমজীবী বাংলাদেশি অভিবাসী পরিবারের মেয়ে। স্বভাবতই শ্রমজীবী পরিবারগুলোকে কেন্দ্র করে তার পক্ষে প্রগতিশীল প্রচারণা চালানো হয়েছে। এটি মনোনয়ন নিশ্চিতে দলীয় প্রভাবশালীদের সমর্থন লাভে তার জন্য সহায়ক হতে পারে।

এক বিবৃতিতে প্রকাশ্যেই নাবিলাহ ইসলামের প্রতি নিজের সমর্থনের জানান দিয়েছেন ডেমোক্র্যাটিক পার্টির ক্যারিশম্যাটিক নেতা আলেকজান্দ্রিয়া ওকাসিও-কর্টেজ। এতে তিনি নাবিলাহ-র ওয়ার্কিং ক্লাস ব্যাকগ্রাউন্ডের কথা উল্লেখ করেন।

কারেজ ফর অ্যাকশন নামের একটি পলিটিক্যাল অ্যাকশন কমিটির মাধ্যমে নাবিলাহ-র প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করেন আলেকজান্দ্রিয়া ওকাসিও-কর্টেজ। ওই কমিটি মূলত এমন প্রার্থীদের উত্সাহ দেওয়ার জন্য গঠন করা হয়েছিল, যারা প্রতিষ্ঠানের চাপের কাছে মাথা নত করতে অস্বীকার করেন, যারা ওয়ার্কিং ক্লাস বা শ্রম-শ্রেণির পরিবারের পক্ষে জোরালোভাবে সমর্থন ব্যক্ত করেন।’

আলেকজান্দ্রিয়া ওকাসিও-কর্টেজ বলেন, নাবিলাহ বিদ্যমান পরিস্থিতির বিরুদ্ধে লড়াই করতে ভয় পান না। কংগ্রেসে আমাদের তার মতো আরও কণ্ঠস্বর দরকার।

আলেকজান্দ্রিয়া ওকাসিও-কর্টেজ সংক্ষেপে এওসি নামেও পরিচিত। এমন এক সময়ে তিনি নাবিলাহ-র প্রতি সমর্থন জানালেন যখন করোনাভাইরাস মহামারির ফলে সমর্থকদের জড়ো করা মনোনয়নপ্রত্যাশীদের জন্য খুবই কঠিন হয়ে পড়েছে।

এবারই প্রথম নির্বাচনের মাঠে নামলেন নাবিলাহ। তার আশা, দেশজুড়ে এওসি-র সুনাম ও পরিচিতি তার নির্বাচনি তহবিল সংগ্রহে ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে। আগামী ৯ জুনের প্রাথমিক বাছাইয়ে পুলিং বুথগুলোতে ভোটারদের ওপরও এর প্রভাব থাকবে।

টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে এ নিয়ে কথা বলেছেন নাবিলাহ। তিনি বলেন, এওসি-র সমর্থনের জন্য আমি কৃতজ্ঞ। তিনি আমাকে দেখিয়েছেন যে, আমার পক্ষে নির্বাচনি লড়াইয়ে নামা সম্ভব এবং এটা অকুণ্ঠ হওয়া উচিত।

হাই প্রোফাইল প্রগ্রেসিভ মুসলিম আমেরিকান আইনপ্রণেতা ইলহান ওমর এবং ইন্ডিয়ান-আমেরিকান কংগ্রেস সদস্য রো খান্নার-ও সমর্থন লাভ করেছেন নাবিলাহ।

গত বছর জর্জিয়া রাজ্য সিনেটে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মুসলিম হিসেবে প্রথমবারের মতো নির্বাচিত হন শেখ রহমান। আর এবারে জয়ী হলে মার্কিন কংগ্রেসে প্রথম বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত সদস্য হবেন নাবিলাহ ইসলাম। তবে তার প্রাথমিক লক্ষ্য হলো ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থীতা নিশ্চিত করা। এ আসনে গতবার সামান্য ব্যবধানে পরাজিত প্রার্থী ক্যারোলিন বুরডিওক্স এবারেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। এছাড়া আরও অন্তত একজন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হতে লড়াই করবেন।

নাবিলাহ যে আসনে প্রার্থী হচ্ছেন সেই আসনটি বর্তমানে রিপাবলিকানদের দখলে। দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে আসনটি রিপাবলিকানদের দখলে থাকলেও গত নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্র্যাট প্রার্থীকে মাত্র ৪৩৩ ভোটে পরাজিত করেছিলেন তিনি। স্বল্প ভোট ব্যবধানের কারণে এবারে ডেমোক্র্যাট দলের অনেকেই এই আসনে প্রার্থীতার দৌড়ে ছিলেন।

প্রগতিশীল এজেন্ডা নিয়ে প্রার্থী হওয়া নাবিলাহ-র ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতাও তাকে সমর্থন যোগাচ্ছে। ২০১৬ সালে প্রথমবারের মতো বার্নি স্যান্ডার্স ‘সবার জন্য চিকিৎসা’র দাবি তুলেছিলেন। ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের অনেক শীর্ষ প্রতিদ্বন্দ্বিও এখন এই দাবিতে সমর্থন করছেন। নাবিলাহ ইসলামও এই দাবির সঙ্গে একাত্ম।

এক বিবৃতিতে নাবিলাহ ইসলাম বলেছেন, ‘এমন এক মায়ের সাহায্য নিয়ে আমি বেড়ে উঠেছি যিনি খাবার প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান হার্ডিসের বার্গার টেনেছেন আর অর্ডার সরবরাহকারী হিসেবে বাক্স তুলেছেন’। তিনি বলেন, ‘কাজে গিয়ে পিঠে আঘাত পেয়ে আমার মা কাজ হারান। চিকিৎসার খরচ আমাদের পরিবারকে প্রায় দেউলিয়া করে ফেলেছিল। জর্জিয়ার নাগরিকেরা এমন এক কংগ্রেস সদস্যের দাবিদার যিনি তাদের পক্ষে লড়াই করতে তৈরি থাকবেন।’

আমেরিকায় প্রতি কর্মঘণ্টায় ১৫ ডলার মজুরি দাবি করে তিনি বলেন, আমি প্রার্থী হয়েছি কারণ বহু মানুষ প্রচুর পরিশ্রম করলেও তা যথেষ্ট হচ্ছে না।

জর্জিয়া স্টেট ইউনিভার্সিটি থেকে গ্রাজুয়েশন সম্পন্ন করা নাবিলাহ ইসলাম ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রচারণায় দীর্ঘদিন থেকেই সক্রিয়।

HostGator Web Hosting