| |

সর্বশেষঃ

  • মুজিব বর্ষ

রৌমারীতে ভারীবর্ষন ও পাহাড়ী ঢলে বন্যার পানি বৃদ্ধি : তলিয়ে যাচ্ছে গ্রামের পর গ্রাম

আপডেটঃ 8:33 pm | June 28, 2020

শওকত আলী মন্ডল, রৌমারী (কুড়িগ্রাম) ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলায় গত কয়েক দিনে ভারীবর্ষন ও ভারতীয় পাহাড়ী ঢলে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে জানানো হয়েছে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বর্তমানে বিপদসীমা উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে প্রায় ৫০টি গ্রামের মানুষ পানি বন্ধি হয়ে পড়েছে এবং পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে শত শত হেক্টর জমির ফসল।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, গত বছরের ভয়াবহ বন্যায় উপজেলার বেঁরিবাধ, বাঁধ ও সংযোগকারী রাস্তাগুলি লন্ডভন্ড হয়। বছর অতিবাহিত হলেও বাঁধসহ সংযোগকারী রাস্তাগুলো মেরামত করা হয়নি। ফলে কয়েক দিনের ভারি বর্ষনে ও উজান থেকে নেমে আসা ভারতীয় পাহাড়ী ঢলে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি পেয়ে নদের দু-কুল উপচে বৃহস্পতিবার বিকাল থেকে সহজেই পানি ঢুকতে শুরু করেছে গ্রামের পর গ্রামে। গত শুক্রবার সকাল থেকে রবিবার বিকাল পযর্ন্ত বেরিবাঁধের ভাঙ্গা দিয়ে বিভিন্ন এলাকায় পানি প্রবেশ করছে। হঠাৎ করে অস্বাভাবিক ভাবে পানি বৃদ্ধি পেয়ে তলিয়ে গেছে বন্দবেড় ইউনিয়নের বাঘমারা, কুটিরচর, কান্দাপাড়া, টাঙ্গারী পাড়া, বাইশ পাড়া, পুরারচর, যাদুরচর ইউনিয়নের চাক্তাবাড়ি, দিগলেপাড়া, নতুন গ্রাম, ধনারচর, ধনারচর নতুন গ্রাম, আকন্দ পাড়া, চরের গ্রাম, হাট মোল্লা পাড়া, ব্যাপারী পাড়া, পাখিউড়া, রৌমারী সদর ইউনিয়নের ঠনঠনি পাড়া, কাঠালবাড়ী, চরশৌলমারী ইউনিয়নের ঘুঘুমারী, খেদাইমারী, পাখিউড়া, চরখেদাইমারী, দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের ইটালুকান্দা, চরইটালুকান্দা, কাউনিয়ারচর, গয়টাপাড়া, চরগয়টাপাড়া, ছাটকড়াইবাড়ীসহ উপজেলার প্রায় ৫০টি গ্রাম।
এতে করে পানি বন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় ৫শত পরিবার। পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে পাট, তিল, তিশি, কাউন, চিনা, রোপা আমনের ফসলি জমি প্রায় শত শত হেক্টর। মানুষ বিপাকে আছে গৃহস্থালী মালামালসহ ছাগল, হাঁস, মুরগী ও গরু, মহিষের গো-খাদ্য খড় নিয়ে। ডুবে গেছে কিছু পুকুরও। এখনো পানি বৃদ্ধি অব্যাহত আছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে উপজেলা সদরের বাকি অংশের মানুষও সহজেই পানি বন্দি হয়ে পড়বে।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আজিজুর রহমান বলেন, আমি পানি বৃদ্ধির অবস্থান পরিদর্শন করে একটি রির্পোট উর্দ্ধোতন কর্মকর্তার নিকট প্রেরণ করেছি।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল ইমরান বলেন, আগামী কাল সোমবার দুর্যোগ ব্যাবস্থাপনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের লক্ষে একটি সভা ডেকেছি। সকল চেয়ারম্যান, রাজনৈতিক নেতা ও সাংবাদিকদেরকে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে। এর আগে আমি পানির পরিস্থিতি উপজেলা চেয়ারম্যানসহ দেখতে যাবো।

HostGator Web Hosting