| |

সর্বশেষঃ

দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু

আপডেটঃ 3:07 pm | October 22, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক : মহালয়ার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে দুর্গাপূজা। দুর্গাদেবীর ষষ্ঠ্যাদি কল্পারম্ভ এবং বিহিত পূজার মধ্য দিয়ে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হলো। তবে করোনাভাইরাসের মহামারির কারণে এবারের আয়োজন ও অংশগ্রহণ সীমিত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) সকালে ঢাকেশ্বরী মন্দিরে শ্রীশ্রী ষষ্ঠী পূজার মাধ্যমে দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। তবে আয়োজনে অংশগ্রহণ ছিল সীমিত। তাপমাত্রা পরীক্ষা করে প্রবেশ করানো হয়েছে সবাইকে। সামাজিক দূরত্বের জন্য রাখা হয়েছে ব্যবস্থা। মাস্ক ছাড়া কাউকে মণ্ডপ এলাকায় প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি।

মহাষষ্ঠী তিথিতে কল্পারম্ভ ও বিহিত পূজার মধ্য দিয়ে বাঙালির শারদীয় দুর্গোৎসবের মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। শাস্ত্রমতে, দেবী দুর্গা অসুর বধ করে ভক্তদের মধ্যে শান্তি ছড়িয়ে দিতেই কৈলাস ছেড়ে মর্ত্যলোকে নেমে আসেন। বুধবার বোধনের মাধ্যমে এবারের দুর্গোৎসবের আচার পর্ব শুরু হয়। আজ ষষ্ঠীর দিন সকাল ৯টা ৫৭ মিনিটে শুরু হওয়া বন্দনা পূজার সমাপন হয় বিহিত পূজায়। আবাহনের মাধ্যমে মূল মণ্ডপে দেবী আসীন হওয়ার পর সন্ধ্যায় দেবীর অধিবাস।

করোনার সংক্রমণের কারণে এবার উৎসব হচ্ছে না, ধর্মীয় রীতি পালনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে। তাই পূজার উৎসবে ভাটা পড়েছে। এবার পূজার অনুষ্ঠানমালা শুধু ধর্মীয় রীতিনীতি অনুসরণ করে পূজা-অর্চনার মাধ্যমে মন্দির প্রাঙ্গণেই সীমাবদ্ধ থাকবে বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের পাঠানো নির্দেশনার মধ্যে এটি অন্যতম। অন্যান্য বছর পূজার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা থাকলেও এবার তা হচ্ছে না। তাছাড়া আরতি প্রতিযোগিতা ও মেলা বাদ দেওয়া হয়েছে। এবার দুর্গাপূজায় শোভাযাত্রার মাধ্যমে প্রতিমা বিসর্জন হবে না। বিসর্জনের জন্য একটি ট্রাকে একসঙ্গে অনেক মানুষ গেলেও এবার একটি ট্রাকে প্রতিমা বিসর্জনের জন্য ১০ জন যেতে পারবেন। এর বাইরে অতিরিক্ত যাওয়া যাবে না। দিনে দর্শনার্থী সীমিত থাকলেও সন্ধ্যারতির পর মণ্ডপ দর্শনার্থীদের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হবে। আর প্রসাদে খিচুড়ি বিতরণ থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে।

HostGator Web Hosting