| |

সর্বশেষঃ

সিনেমা হলের জন্য ১ হাজার কোটি টাকার তহবিল ঘোষণা

আপডেটঃ 4:16 pm | January 17, 2021

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, চলচ্চিত্রে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানোর উদ্যোগ নিতে হবে। চলচ্চিত্রের স্বর্ণালী দিন ফিরিয়ে আনতে এক হাজার কোটি টাকার বিশেষ তহবিল গঠন করা হচ্ছে। এ তহবিল থেকে স্বল্প সুদে ঋণ নিয়ে যে সকল সিনেমা হল বন্ধ হয়ে গেছে সেগুলো চালু করা যাবে। সিনেমা হল নির্মাণ করতে পারবে। আবার বর্তমান হলগুলো আধুনিকায়ন করবে। হলগুলো ডিজটাল করতে হবে।

রোববার (১৭ জানুয়ারি) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৯ প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

শেখ হাসিনা বলেন, কাওরান বাজার পাইকারি বাজার। এখানে স্বপ্ল পরিসরে রেখে অন্যত্র সরিয়ে নেব বাজারটা। এফডিসিকে প্রসারিত করব, একটা কমপ্লেক্স হবে।

প্রশিক্ষণের ওপর গুরুত্ব দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের শিল্পীরা যাতে প্রশিক্ষণ নিয়ে ভালো সিনেমা নির্মাণ করতে পারে তার জন্য আমরা ব্যবস্থা করে দেব। কারণ উন্নত দেশে প্রশিক্ষণ নিয়ে নির্মাতারা ভালো সিনেমা তৈরি করে। শিল্পীদের প্রশিক্ষণ নিয়ে দক্ষ হতে হবে। আমরা প্রত্যেকটা ক্ষেত্রে আধুনিকায়নের চেষ্টা করছি।

মুক্তিযুদ্ধের ওপর আরও সিনেমা নির্মাণের আহ্বান জানিয়ে সরকার প্রধান বলেন, মুক্তিযুদ্ধের ওপর আমি আপনাদের সিনেমা নির্মাণের অনুরোধ করবো- জাতির পিতাকে ১৫ আগস্ট হত্যা করার পর আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছে। কাজেই ইতিহাসটা যেনো সবাই জানে। আমাদের বিজয়ের ইতিহাসটা প্রজন্মের পর প্রজন্ম যেন মনে রাখতে পারে, সেই ধরনের চলচ্চিত্র আরও নির্মাণ হওয়া দরকার। আমাদের শিল্প সংস্কৃতি যেমন থাকবে তেমনি বিশ্বের সাথে তাল মিলে আর্থসামাজিক বিষয়ে তুলে ধরতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, আমি একজন রাজনীতিবিদ, যত বক্তৃতা দিয়ে মানুষকে যত কথাই বলি না কেন, একটা নাটক, একটা সিনেমা, একটা গানের মধ্য দিয়ে বা একটা কবিতার মধ্যে দিয়ে কিন্তু অনেক কথা বলা যায়, মানুষের অন্তরে প্রবেশ করা যায়, মনের গহীনে প্রবেশ করা যায়। সেজন্য এর একটা আবেদন কিন্তু রয়েছে।

শিশুদের সিনেমা নির্মাণের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের শিশুদের জন্য সিনেমা তৈরি করা একান্তভাবে প্রয়োজন। এর মধ্য দিয়ে একটা শিশু জীবনকে দেখতে পারবে, বড় হতে পারবে। শিশুদের জন্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করা এবং তার মধ্যে দিয়ে তাদের শিক্ষণীয় বিষয়গুলো প্রতিফলিত করা, এটাও কিন্তু করতে হবে। অনেক দায়িত্ব আপনাদের।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মানুষ কিন্তু এখনও সিনেমা দেখে হয়ত হলে যাওয়া কমে গেছে। মানুষ ঘরে বসে দেখে। এখন সিনেমা হলগুলো সেভাবেই বানাতে হবে। যাতে করে পরিবার পরিজন নিয়ে মানুষ হলে গিয়ে সিনেমা দেখতে পারেন।

২০১৯ সালে নির্মিত চলচ্চিত্রগুলোর মধ্য থেকে ২৫টি ক্যাটাগরিতে ৬টি যুগ্মসহ মোট ৩১ জনকে জাতীয় পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত করে জুরি বোর্ড। এর সঙ্গে চলচ্চিত্রে বিশেষ অবদানের জন্য মাসুদ পারভেজ (সোহেল রানা) ও কোহিনুর আক্তার সুচন্দা এ বছর আজীবন সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে।

১৯৭৬ সালের ৪ এপ্রিল প্রথম চলচ্চিত্র পুরস্কার দেওয়া হয়। ২০০৯ সালে প্রথম চালু করা হয় আজীবন সম্মাননা পুরস্কার। গত বছরের ৩ ডিসেম্বর তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৯ প্রজ্ঞাপন জারি হয়।

HostGator Web Hosting