| |

সর্বশেষঃ

ম্যাচ হারল বাংলাদেশ, সিরিজ নিউজিল্যান্ডের

আপডেটঃ 3:49 pm | March 23, 2021

ক্রীড়া ডেস্ক : প্রথম ম্যাচে ১৩১ রানে গুটিয়ে যাওয়ার পর অধিনায়ক তামিম ইকবাল ও তাসকিন আহমেদ বলেছিলেন, জয়ের জন্য করতে হবে কমপক্কঘে ২৬০-২৭০। দ্বিতীয় ওয়ানডের আগে মোহাম্মদ মিঠুন বলেছিলেন, দায়িত্ব নিতে হবে ব্যাটসম্যানদের।

সবই হয়েছিল ঠিকঠাক। তামিম-মিঠুন দায়িত্ব নিয়ে দলকে এনে দিয়েছিলেন ২৭১ রানের পুঁজি। তাসকিনরাও তৈরি করেছিলেন নিউজিল্যান্ডে প্রথম জয় পাওয়ার জন্য উইকেট তৈরির সুযোগ।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেটি হলো না, তার একমাত্র কারণ ফিল্ডিং। সহজ ক্যাচ ছেড়েছেন বাংলাদেশ ফিল্ডাররা, মিসফিল্ডিংয়ের জোরে রান বিলিয়েছেন বহুবার।

তাতে করে ২৭২ রানের লক্ষ্যটা অধিনায়ক টম ল্যাথামের সেঞ্চুরির কল্যাণে ১০ বল হাতে রেখেই পাঁচ উইকেটে জয় তুলে নেয় নিউজিল্যান্ড। এই জয়ে সিরিজ জয়ও নিশ্চিত হয়ে গেল স্বাগতিকদের।

মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) ক্রাইস্টচার্চের হেগলি ওভালে মুখোমুখি হয় দু’দল। যেখানে টস জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান কিউই অধিনায়ক টম ল্যাথাম। যেখানে প্রথমে ব্যাট করে বাংলাদেশ নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৭১ রান করে। জবাবে ৫ উইকেট হারিয়েও ৫ বল বাকি থাকতে জয় নিশ্চিত করে স্বাগতিকরা।

বাংলাদেশের দেওয়া ২৭২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের ৫৩ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে নিউজিল্যান্ডকে চাপে ফেলে বাংলাদেশ। দলীয় পঞ্চম ওভারের শেষ বলে ভয়ঙ্কর মার্টিন গাপটিলকে নিজের বলেই ক্যাচ ধরে ফেরান মোস্তাফিজুর রহমান। ২৪ বলে ব্যক্তিগত ২০ রান করেন এই কিউই ওপেনার।

এরপরই দ্রুত জোড়া সফলতা পানন টাইগাররা স্পিনার মেহেদি হাসান। উইল ইয়ংকে (১) বোল্ড করেন মেহেদি হাসান। আর নিজের আগের ওভারে ওপেনার হেনরি নিকোলসকেও সরাসরি বোল্ড করেন তরুণ এই স্পিনার। দলীয় নমব ওভারের তৃতীয় বলে ১৩ রানে এই বাঁহাতিকে ফেরান তিনি।

কিউইরা চতুর্থ উইকেট জুটিতে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। অধিনায়ক টম ল্যাথামকে নিয়ে ১১৩ রানের জুটি গড়েন ডেভন কনওয়ে। তবে অবশেষে তামিম ইকবালের থ্রোতে রান আউটের শিকার হন কনওয়ে। ৯৩ বলে ৭টি চারে ৭২ রান করেন এই ব্যাটসম্যান।

কিন্তু এরপর বাংলাদেশ ফিল্ডারদের বাজে ফিল্ডিংয়ের সুযোগে জিমি নিশামকে সঙ্গে নিয়ে ৭৬ রানের জুটি গড়েন ল্যাথাম। নিজের ওয়ানডে ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি তুলে নেন ল্যাথাম। ১০৮ বলে ১০টি চারে ১১০ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। নিশাম ব্যাক্তিগত ৩০ রানে মোস্তাফিজের শিকার হন।

বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে মেহেদি ও মোস্তাফিজুর দুটি করে উইকেট পান।

এর আগে তামিম ইকবাল ও মোহাম্মদ মিঠুনের হাফসেঞ্চুরির ওপর ভর করে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২৭১ রানের ভালো সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ।

এদিন শুরুটা অবশ্য ভালো করতে পারেনি বাংলাদেশ। ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই মাঠ ছাড়েন লিটন দাশ। দ্বিতীয় ওভারে ম্যাট হেনরির চতুর্থ বলে পুল করতে গিয়ে শটে থাকা উইল ইয়ংয়ের ক্যাচে দলীয় ৪ ও ব্যাক্তিগত শূন্য রানে বিদায় নেন।

দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে দেখেশুনে খেলন তামিম ইকবাল-সৌম্য সরকার। এই জুটি ৮১ রান তোলে। তবে ভালো খেলতে থাকা সৌম্য মিচেল স্যান্টনারের বলে স্টাম্পিং হয়ে মাঠ ছাড়েন। ৪৬ বলে ৩টি চার ও একটি ছক্কায় ৩২ করেন এই বাঁহাতি।

দারুণ খেলতে থাকা তামিম ইকবাল দুর্ভাগ্যবশত রান আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন। ৩১তম ওভারের দ্বিতীয় বলে দলীয় ১৩৩ রানে মাথায় রান নিতে গিয়ে আউট হন তিনি। ১০৮ বলে ১১টি চারে ৭৮ করে টাইগার অধিনায়ক। নিজের ওয়ানডে ক্যারিয়ারের পঞ্চাশতম হাফসেঞ্চুরি তুলে নেন তামিম। ২১২তম ওয়ানডেতে এসে এদিন ৮৪ বলে ফিফটি করেন তিনি। এরপরেই দলীয় শতরান তুলে নেয় বাংলাদেশ।

দলীয় ৪১তম ওভারে মিচেল স্যান্টনারের বলে বিদায় নেন মুশফিকুর রহিম। ৫৯ বলে ৩টি চারে ৩৪ রান করেন তিনি। তার বিদায়ের পর দলীয় ২০০ রান করে বাংলাদেশ।

শেষদিকে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে ৬৩ রানের জুটি গড়ে দলকে বড় সংগ্রহের দিকে নিয়ে যান মিঠুন। ইনিংসের শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকা এই ডানহাতি ৫৭ বলে ৭৩ রান করেন। তিনি ৬টি চার ও ২টি ছক্কা হাঁকান। রিয়াদ ব্যক্তিগত ১৬ রানে বিদায় নেন।

কিউই বোলারদের মধ্যে ২টি উইকেট পান স্পিনার স্যান্টনার। এছাড়া বোল্ট, হেনরি ও জেমিসন একটি উইকেট দখল করেন।

HostGator Web Hosting