| |

সর্বশেষঃ

  • মুজিব বর্ষ

চলন্ত বাসে দলবেঁধে কিশোরী ধর্ষণ : মুক্তি পেতে যাচ্ছে ধর্ষক

আপডেটঃ 12:57 pm | December 21, 2015

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : দিল্লিতে চলন্ত বাসে ফিজিওথেরাপি ছাত্রী জয়তি সিংকে নির্মম নির্যাতন এবং ৬ জন মিলে দলবেঁধে ধর্ষণের অপরাধে ৩ বছরের সাজা প্রাপ্ত কিশোর অপরাধী খুব শিগগিরই মুক্তি পেতে যাচ্ছে। ধর্ষিতা ১৩ দিন মৃত্যুর সাথে লড়াই করে মৃত্যুবরণ করেছিলেন।

ভারতীয়রা তাকে নাম দিয়েছিলেন ‘নির্ভয়া’, অর্থাৎ ভয়হীন কন্যা।
৬ জনের মধ্যে সবচেয়ে কম বয়সী এই অপরাধী চলন্ত বাসে জঘন্যতম কাজটি যখন করেছিল তখন তার বয়স ছিল মাত্র ১৭ বছর। পূর্ণবয়স্ক না হওয়ায় তাকে যে ৩ বছরের কারাদ- দেয়া হয়েছিল সেটা অনেকের দৃষ্টিতেই ছিল সুষ্ঠু বিচারের চরম ব্যর্থতা।
কারণ ২০১২ সালের এই বর্বরোচিত ধর্ষণের ঘটনা যখন জানাজানি হয় তখন ভারতের রাজধানীর রাস্তায় নেমে এসেছিলেন হাজার হাজার প্রতিবাদী মানুষ। এমনকি ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসে যখন আদালতে বিচারকার্জ চলছে, তখন এই ধর্ষকদের ফাঁসির দাবিতে বাইরে চিৎকার করছিলেন সমগ্র ভারতবাসী। কিন্তু বিচারের সব আবেদন ম্লান করে দিয়ে খুব শিগগিরি সাজার মেয়াদ শেষে মুক্তি পেতে যাচ্ছে ধর্ষক।
ধর্ষিতার মা আশা সিং তার মৃত মেয়েকে কথা দিয়েছিলেন তিনি বিচারের জন্য লড়াই করে যাবেন। কিন্তু গত শুক্রবার তিনি বলেছেন, ‘অপরাধের জয় হয়েছে, আমরা হেরে গেছি। আমাদের ৩ বছরের চেষ্টা বিফলে গেছে।’
ভারতের কিশোর আইনে একজন কিশোর অপরাধীর সর্বোচ্চ সাজা ৩ বছরের কারাদন্ড।
প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ডিসেম্বর মাসের ১৬ তারিখে জয়তি সিং এবং তার এক ছেলে বন্ধু মিলে দক্ষিণ দিল্লির ১টি সিনেমা হল থেকে বাসায় ফেরার উদ্দেশে বাসে উঠলে ৬ জন মানুষ তাদেরকে আক্রমণ করেন। নির্যাতনের পর তাদেরকে রাস্তার পাশে ফেলে যান অর্ধমৃত অবস্থায়।

জয়তি সিংকে যখন উদ্ধার করা হয়, তখন তার পেটের নাড়িভুঁড়ি বেরিয়ে গিয়েছিল কিন্তু তবু তিনি বেঁচে ছিলেন। বেঁচে থাকার জন্য তার এই দুর্দান্ত সাহসিকতা দেখে তার নাম দেয়া হয়েছিল ‘নির্ভয়া’। প্রথমে দিল্লিতে এবং পরে সিঙ্গাপুরে ১৩ দিন মৃত্যুর সাথে লড়াই করার পর মারা যান তিনি।

HostGator Web Hosting