| |

Ad

সর্বশেষঃ

শীতে বেশি অসুস্থ হয় শিশু ও বয়স্করা

আপডেটঃ ১১:০৯ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ২২, ২০১৫

স্বাস্থ্য ডেস্ক : হেমন্ত ঋতুকে পেছনে ফেলে নীরবে-নিভৃতে অগ্রসর হচ্ছে শীত। শীত অনেকেরই প্রিয় ঋতু। তবে ঠাণ্ডাজনিত রোগে যারা কাবু তাদের এ মৌসুম বিড়ম্বনারই বটে। কারণ, শীতে ঠাণ্ডাজনিত বিভিন্ন রোগের প্রকোপ বেড়ে যায়। শিশু ও বয়স্করা এসব রোগে বেশি আক্রান্ত হয়।

বিশেষজ্ঞরা জানান, প্রতি বছর ঠাণ্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে অনেক মানুষের মৃত্যু ঘটে। শীত মৌসুমে নিউমোনিয়া, সর্দিকাশি, জ্বর, শ্বাসকষ্ট, ডায়রিয়াসহ নানা রোগের সংক্রমন ঘটে। শিশু ও বৃদ্ধরা এসব রোগে বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকে। নবজাতক শিশুদের জন্য শীতকাল সবচেয়ে বেশি বিপদজনক। তাই এ সময় নবজাতক এবং শিশুদের দিকে বেশি নজর রাখতে পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ নাজমুন আরা বলেন, ‘ঠাণ্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে নবজাতকের সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি। নবজাতকদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তুলনামূলক কম থাকে। ঠাণ্ডাজনিত রোগ থেকে রক্ষার জন্য এদের বাড়তি কেয়ার নেয়া দরকার। সবচেয়ে জরুরি কাজটি হচ্ছে নবজাতককে প্রয়োজন মতো মায়ের বুকের দুধ খাওয়ানো।’

তিনি বলেন, ‘শীতকালে নবজাতকদের নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। তাই এ সময় তাদের ঠাণ্ডা থেকে যতটা রক্ষা করা যায় ততই ভালো। তবে ঠাণ্ডা থেকে রক্ষা পেতে শিশুর ঘরের দরজা-জানালা একেবারে বন্ধ করে রাখা যাবে না। স্বাভাবিক আলো-বাতাস ও রোদ ঢুকতে দিতে হবে যাতে ঘর থেকে জীবাণু বেরিয়ে যেতে পারে।’

‘শিশুদের প্রতিদিন গোসল করানোর প্রয়োজন নেই। কাপড় ভিজিয়ে নিয়মিত শরীর মুছে দিলে বা মাথায় পানি দিলেও হবে’ জানান এ শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ।

এদিকে, ঠাণ্ডাজনিত রোগের ক্ষেত্রে অনুমাননির্ভর বা নিজ সিদ্ধান্তে শিশুদের ওষুধ না খাওয়াতে অভিভাবকদের সতর্ক করেছেন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ।

তিনি বলেন, ‘নবজাতক, শিশু বা বৃদ্ধ যে কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে অবশ্যই তাকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে নিতে হবে এবং চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী তাকে ওষুধ খাওয়াতে হবে।’

এছাড়া, শীতকালে ধূলোবালির পরিমাণ স্বাভাবিকের চেয়ে বৃদ্ধি পাওয়ায় বাতাসে দূষণের হার বেড়ে যায়। সেই সঙ্গে বেড়ে যায় ধূলোজানিত রোগের প্রকোপ। শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে রোগ জীবাণুমিশ্রিত ধূলো ফুসফুসে প্রবেশ করে ক্যান্সার, ব্রংকাইটিস, শ্বাসকষ্ট, হাঁপানী ও যক্ষ্মাসহ নানা জটিল রোগের সৃষ্টি করে। শিশু, বৃদ্ধ এবং অসুস্থ ব্যক্তিদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম হওয়ায় তারা ধূলো দূষণের দ্বারা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এসব রোগ থেকে রক্ষা পেতে মাস্ক ব্যবহার করার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

আরোও পড়ুন...