| |

সর্বশেষঃ

প্রতিবন্ধীদের প্রতি সামাজিক দায়বদ্ধতা রয়েছে : স্পিকার

আপডেটঃ ৫:০০ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ২২, ২০১৫

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, ‘আমাদের প্রত্যেকেরই প্রতিবন্ধীদের প্রতি সামাজিক দায়বদ্ধতা রয়েছে। সে দায়িত্ব পালনে সংসদ সদস্যসহ সকলকে আরো সচেষ্ট হতে হবে।’

সোমবার জাতীয় সংসদ ভবনের শপথকক্ষে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির উদ্যোগে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয় আয়োজিত সংসদ সদস্যদের সমন্বয়ে স্নায়ুবিকাশ জনিত সমস্যা বিষয়ক কর্মশালায় সভাপতির বক্তব্য দেওয়ার সময় তিনি এসব কথা বলেন।

স্পিকার বলেন, ‘প্রতিবন্ধীরা আমাদের সমাজের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ। তাদের প্রতি সহযোগিতা প্রকাশ ও সহমর্মিতা  আমাদের সকলের দায়িত্ব। এ বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টিতে এই কর্মশালাটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

স্পিকার আরো বলেন, এই কর্মশালার মাধ্যমে সংসদ সদস্যরা বিষয়টি আরো গভীরভাবে জানার সুযোগ পাবেন। বাংলাদেশে এই বিষয়ে পর্যাপ্ত আইন রয়েছে। এ সকল আইনের আরো কার্যকর পরিবর্তন রয়েছে কি না, সে বিষয়েও ধারণা বের হয়ে আসবে। জনপ্রতিনিধিগণ জনগণের খুব কাছাকাছি অবস্থান করেন। তাই এই কর্মশালা হতে লব্ধ জ্ঞান তারা ভবিষ্যতে জনগণের কাছে সহজেই পৌঁছে দিতে পারবেন।

শিরীন শারমিন বলেন, ইতিমধ্যে এ দেশে প্রতিবন্ধিতা বিষয়ে ব্যাপক জনসচেনতা সৃষ্টি হয়েছে। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানে জাতীয় অটিজম ও স্নায়ুবিকাশ জনিত সমস্যা বিষয়ক উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারপারসন এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার  মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক বিশেষজ্ঞ পরামর্শক প্যানেলের সদস্য সায়মা ওয়াজেদ হোসেন মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। এ সময় তিনি বলেন, নিউরো ডেভেলপমেন্ট ডিজঅর্ডার হচ্ছে একটি নতুন নামকরণ, যার একটি রূপ হচ্ছে অটিজম। মস্তিষ্কের স্বাভাবিক বৃদ্ধিতে কোনো সমস্যা হলে প্রতিবন্ধিতা সৃষ্টি হয়।

সায়মা ওয়াজেদ হোসেন আরো বলেন, প্রতিবন্ধিতা কোনো রোগ নয়। তবে এতে সাধারণ জীবন-যাপন যেমন স্বাভাবিক হাঁটাচলা, কথাবার্তা, আচরণ, বুদ্ধিমত্তা প্রভৃতিতে সমস্যার সৃষ্টি হয়। প্রতিবন্ধিতা সমস্যা দূরীকরণে যথাসম্ভব কম বয়স থেকেই শিশুদের যতœ নেওয়া প্রয়োজন। কেননা একটি শিশুর সাত বছর পর্যন্ত মস্তিষ্কের বৃদ্ধি ঘটে থাকে। এ ধরনের শিশুদের কাউন্সিলিং, থেরাপি ও সময়মতো প্রয়োজনীয় ওষুধ প্রয়োগ করা জরুরী। এ বিষয়ে বাবা-মাকে সচেতন থাকতে হবে।

তিনি প্রতিবন্ধী  শিশুদেরকে সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত করে মানবসম্পদে পরিণত করতে সংসদ সদস্যসহ সকলের প্রতি আহবান জানান।

অনুষ্ঠানে ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া সমাপনী বক্তব্য প্রদান করেন। এ ছাড়া সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন বক্তব্য রাখেন। কর্মশালায় বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ, চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজসহ হুইপবৃন্দ, সংসদ সদস্যবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালায় জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আশরাফুল মকবুল স্বাগত বক্তব্য রাখেন।

HostGator Web Hosting