| |

সর্বশেষঃ

ওমরাহর নামে মানবপাচার করলে কঠিন শাস্তি : ধর্মমন্ত্রী

আপডেটঃ ৫:১৯ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ২২, ২০১৫

ঢাকা প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ প্রতিদিন :ওমরাহ হজের নামে ভবিষ্যতে মানবপাচারে জড়িত হলে সংশ্লিষ্ট এজেন্সির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছেন ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মোহাম্মদ মতিউর রহমান।

মঙ্গলবার বিকেলে সচিবালয়ে ধর্মমন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘ওমরাহ হজের নামে ভবিষ্যতে মানবপাচার করলে জড়িত এজেন্সিকে কঠিন শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে। যেসব এজেন্সির বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই এমন এজেন্সিকে ওমরাহ কার্যক্রমের দায়িত্ব দেওয়া হবে, যাতে কোনো প্রকার অভিযোগ না ওঠে। ইতিমধ্যে এ ধরনের ৭০টি এজেন্সির তালিকা করা হয়েছে। তা ছাড়া মানবপাচারসহ ওমরাহ হজ অভিযোগ মুক্ত করতে ২০১৬ সাল থেকে ওমরাহ হজের সার্বিক কার্যক্রম ধর্মমন্ত্রণালয় সরাসরি মনিটরিং করবে।

প্রসঙ্গত, আগে ওমরাগ হজ কার্যক্রমে জড়িত এজেন্সির সার্বিক কার্যক্রম বাংলাদেশ সরকার তদারকি করত না। ওমরাহর নামে মানবপাচারের অভিযোগ উঠায় এবং দীর্ঘদিন ওমরাহ ভিসা বন্ধ থাকায় ওমরাহ কার্যক্রম সরকার যাতে তদারকি করতে পারে সেজন্য সৌদি সরকারের কাছে চিঠি দেয় ধর্মমন্ত্রণালয়। সৌদি সরকার অবশেষে ধর্মমন্ত্রণালয়কে পবিত্র হজের মতো ওমরাহ কার্যক্রম তদারকির দায়িত্ব প্রদানে সম্মত হয়।

২০১৬ সালে প্রথম বারের মতো সরকারের তত্ত্ববধানে ওমরা হজ পালন করবে ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা।

সংবাদ সম্মেলনে ধর্মমন্ত্রী বলেন, মানবপাচারের অভিযোগের কারণে বাংলাদেশের সুনাম নষ্ট হয়েছে। যার কারণে সৌদি আরব ওমরাহ ভিসা বন্ধ করে দেয়। দীর্ঘদিন বাংলাদেশিরা ওমরাহ করতে পারেননি। তারা জড়িত এজেন্সির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করলে আমরা মানবপাচারে জড়িত ১০৪টি এজেন্সির বিরুদ্ধে তদন্ত শেষে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করি। বিষয়টি আমরা সৌদি কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি। তারা এতে সন্তুষ্ট হয়ে অবশেষে গত ২০ ডিসেম্বর এ-সংক্রান্ত একটি চিঠি দিয়ে ওমরাহ ভিসার ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করার কথা জানায়।

তিনি বলেন, সরকারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ওমরাহ ভিসা চালু হয়েছে। ফলে এখন থেকে ওমরাহ ভিসার জন্য আর কোনো জটিলতা থাকছে না।

সংবাদ সম্মেলনে ধর্মসচিব চৌধুরী মো. বাবুল হাসানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

HostGator Web Hosting