| |

সর্বশেষঃ

ময়মনসিংহে ডাঃ শুভ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাঠদান শুরু

আপডেটঃ ১২:৩৪ পূর্বাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ০২, ২০১৭

স্টাফ রিপোর্টার, ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম :  ময়মনসিংহ শহরের আকুয়ায় ফুলবাড়ীয়া নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ডাঃ শুভ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা হওয়ায় এ অঞ্চলের নারী শিক্ষায় আরো প্রসার ঘটবে বলে স্থানীয়রা আশা প্রকাশ করছেন। আকুয়া এলাকায় ছেলেদের শিক্ষায় হাজী জালাল উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় ও সরকারী কলেজ থাকলেও নারী শিক্ষায় কোন সসন্ত্র স্কুল বা কলেজ নেই। আকুয়ায় নারীদের মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে এলাকাবাসী দীর্ঘদিন ধরে আপ্রাণ চেষ্ঠা করলেও গত কয়েকযুগে তা সফল হয়নি। ২০১৬ সালের শেষের দিকে আকুয়া ইউপি চেয়ারম্যান আফাজ উদ্দিন সরকার অবশেষে তা বাস্তবে রুপ দিতে উদ্দোগ নেন। স্থানীয়দের সহায়তায় আকুয়া মৌজায় ফুলবাড়ীয়া নতুন বাসস্ট্যান্ড (পৌরসভার ময়লাখোলা) নামকস্থানে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের প্রয়াত ছেলে ডাঃ শুভ এর নামে ডাঃ শুভ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। এ প্রতিষ্ঠানে ইতিমধ্যেই শিক্ষক শিক্ষিকা কর্মচারী নিয়োগ আহবান করা হয়েছে। সদ্য প্রতিষ্ঠিত এ প্রতিষ্ঠানটিতে যথারিতী আড়াই শতাধিক শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার সকালে এ প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা যায় শিশু শ্রেণীতে ৪০, প্রথম শ্রেণীতে ৩০, দ্বিতীয় শ্রেণীতে ২৫, তৃতীয় শ্রেণীতে ২৭, ৪র্থ শ্রেণীতে ৩৫, ৫ম শ্রেণীতে ১৫, ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে পৃথক শাখায় ১২০, ৭ম শ্রেণীতে ২১, ৮ম শ্রেণীতে ১৫ ও নবম শ্রেণীতে ০৮জন ছাত্রী ভর্তি করা হয়েছে। সকালে স্কুল আঙ্গিনায় গেলে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রথম প্রধান শিক্ষিকা লোপা নাসরিনকে দেখা যায় তাঁর অন্যান্য দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষিকাদের নিয়ে শিক্ষার্থীদের প্যারেড করাচ্ছেন। যা প্রত্যক্ষ এবং সার্বিক বিষয়ে নজরধারী করছেন আকুয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য আলহাজ জিন্নত আলী ফরাজী, সাবেক ইউপি সদস্য গোলাম হোসেন হামিদ ও শাহাদাত হোসেন রমজান। এ সময় তাদের তাদের সাথে আরো একাধিক এলাকাবাসী দাবী করেন, আকুয়ার দক্ষিণাঞ্চলে র‌্যাব অফিস, বাংলাদেশ ব্যাংক, বিদ্যুত উপকেন্দ্র, মারকাস মসজিদ ও মাদ্রাসা, টিএনটি মাইক্রোওয়েভ স্টেশন, টেলিভিশন উপকেন্দ্র, সেনানীবাস, হাজী জালাল উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়, ময়মনসিংহ সরকারী কলেজ থাকলেও নারী শিক্ষার জন্য কোন সতন্ত্র মাধ্যমিক পর্যায়ের বিদ্যালয় নেই। যা প্রতিষ্ঠা করতে এলাকাবাসীর দীর্ঘ দিনের দাবী ছিল। নারী শিক্ষায় এ সতন্ত্র কোন প্রতিষ্ঠান না থাকায় এ অঞ্চলের নারীর শিক্ষায় অনেক পিছিয়ে রয়েছেন। অবশেষে আকুয়া ইউপি চেয়ারম্যানের উদ্দ্যোগে তা সফল হতে চলছে। এ সময় তারা আরো বলেন, বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা হলেও তা পূর্ণাঙ্গ রূপ দেওয়া সম্ভব হয়ে উঠেনি। ধীরে ধীরে তা বাস্তবায়ন করা হবে। ইতিমধ্যেই প্রায় আড়াই শতাধিক ছাত্রী ভর্তি হয়েছে। আশা করা হচ্ছে চলতি বছরেই আরো কিছু শিক্ষার্থী ভর্তি হবে। তবে আসবাবপত্র ও ক্লাসরুমের সংকটের জন্য ছাত্রীদেরকে জায়গা দেওয়া সম্ভব হচ্ছেনা। এ জন্য একাধিক ক্লাসেই ডাবল শাখা করে ক্লাস নেওয়ার উদ্দোগে নেওয়া হয়েছে। এছাড়া শিক্ষক শিক্ষিকা ও কর্মচারী নিয়োগ পক্রিয়া এখনো শেষ হয়নি। তাই প্রতিদিন বিদ্যালয়ে এসে আমরা স্বেচ্চাসেবী ও দায়িত্ব প্রাপ্ত শিক্ষক শিক্ষিকা ও কর্মাচরীদের দিয়ে ক্লাসসহ সার্বিক বিষয়াদি পরিচালনায় সহায়তা করে আসছি। ছাত্রীদের যথারিতী ক্লাসরুমের জায়গাসহ আসবাবপত্রের সদস্যা নিরসন হলেই এলাকাবাসীর দীর্ঘ দিনের প্রত্যাশা পুরণ হবে বলে তাঁরা আশা প্রকাশ করছেন।

HostGator Web Hosting