| |

সর্বশেষঃ

আজ দুই দলেরই সমাবেশ

আপডেটঃ ৪:০৩ অপরাহ্ণ | জানুয়ারি ০৫, ২০১৬

বাংলাদেশের চলমান রাজনীতির স্থবিরতা কি ভাঙতে যাচ্ছে? অনেক নাটকীয়তার পর প্রশাসন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপিকে রাজধানী ঢাকায় সমাবেশ করার অনুমতি দেওয়ায় জনমনে সে প্রশ্ন ওঠাই স্বাভাবিক।৫ জানুয়ারি উপলক্ষে দলটি সমাবেশ করার অনুমতি চেয়েছিল প্রশাসনের কাছে। শেষ মুহূর্তে প্রশাসন অনুমতি দিয়েছে। প্রশাসনের শর্ত মেনে দলের প্রধান দফতরের সামনে সমাবেশ করতে যাচ্ছে। সমাবেশে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সরকারবিরোধী জোটের প্রধান বেগম খালেদা জিয়া যোগ দেয়ার ঘোষণা দেওয়ায় সমাবেশকে ঘিরে দল ও প্রশাসন বাড়তি প্রস্তুতি নেবে সেটাই স্বাভাবিক।

এদিকে সরকারি দল আওয়ামী লীগও দিনটিতে সমাবেশের কর্মসূচি দিয়েছে। তবে তারা কোনো কেন্দ্রীয় সমাবেশ করবে না। ক্ষমতাসীন এ দলটি রাজধানীর ১৮টি স্থানে সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে। দলটির প্রধান ও দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর কোনো সমাবেশ যোগ দিচ্ছেন না বলে দলের বা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাড়তি প্রস্তুতির দরকার পড়ছে না।

এখন প্রশ্ন হলো- আজকের এ সমাবেশ ঘিরে কোনো সাংঘর্ষিক অবস্থার আশঙ্কা থাকছে কি-না? দুই দলের কর্মসূচিতে আপাতত কোনো সাংঘর্ষিক পরিবেশ লক্ষ্য করা যাচ্ছে না সত্য। কিন্তু সরকারি দল আওয়ামী লীগ যেভাবে রাজধানীজুড়ে সমাবেশের কর্মসূচি দিয়েছে তাতে সংঘর্ষ বা উত্তেজনার আশঙ্কা একেবারে উড়িয়েও দেওয়া যাচ্ছে না। কারণ বিএনপির পুরানা পল্টনের সমাবেশে দলটির নেতাকর্মী-সমর্থকদের যোগ দিতে হলে বিভিন্ন স্থানের আওয়ামী লীগের সমাবেশের ওপর দিয়ে আসতে হবে। এসব স্থানে দুই দলের নেতাকর্মীরা মুখোমুখি হলে অবস্থা সাংঘর্ষিক বা উত্তপ্ত হয়ে ওঠা অসম্ভব নয়। তাছাড়া বিরোধী সমাবেশটকে সরকারি দল কিভাবে দেখছে সেটিও বিবেচনার বিষয়। তারা যদি সমাবেশটিকে তাদের গণতান্ত্রিক সহনশীলতা হিসেবে দেখাতে চায় তাহলে দিনটি হয়তো গণতান্ত্রিক যাত্রার জন্য একটি শুভ দিন হিসেবে গণ্য হবে। তা না হলে জাতিকে আরও কিছুদিন রাজনৈতিক অনিশ্চয়তার মধ্য দিয়েই যেতে হবে।

আরোও পড়ুন...

HostGator Web Hosting