| |

Ad

সর্বশেষঃ

দুর্গাপুরে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে মানববন্ধন

আপডেটঃ ৬:১৩ অপরাহ্ণ | মার্চ ২৩, ২০১৭

সুমন রায় দুর্গাপুর, ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : নেত্রকোনার দুর্গাপুরে বৃহস্পতিবার সকালে বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা দুঃস্থ স্বাস্থ্য কেন্দ্রের সমৃদ্ধি প্রকল্পের আয়োজনে উপজেলার বিভিন্ন স্কুল কলেজের শিক্ষক শিক্ষার্থী, সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের অংশগ্রহনে বাল্য  বিবাহ প্রতিরোধে এক বিশাল মানবন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়েছে।

উপজেলা পরিষদ চত্বরে সকাল ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার লম্বা ঘন্টাব্যাপী মানব বন্ধনে ”আঠারো পেরোলে বিয়ে বিশ পেরোলে তবেই সন্তান সুস্থ শিশু আর মায়ের প্রাণ” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে আলোচনা করেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মামুনুর রশীদ, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মোছাঃ পারভীন আক্তার, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলাউদ্দিন আল আজাদ, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ্ হক, সদর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শাহিনুর আলম সাজু, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ কামাল পারভেজ, একাডেমিক সুপারভাইজার মোঃ নাসির উদ্দিন, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মোঃ রফিকুল ইসলাম, প্রেসক্লাব সাধারন সম্পাদক তোবারক হোসেন খোকন, সাংবাদিক নির্মলেন্দু সরকার বাবুল, ধ্রুব সরকার, দুঃস্থ স্বাস্থ্য কেন্দ্রের যুগ্ম পরিচালক মোঃ সামছুল আলম, প্রকল্প ব্যাবস্থাপক আঃ রব পাটোয়ারী, আঞ্চলিক ব্যাবস্থাপক মোঃ আবুল কালাম আজাদ, শামছুল আলম খাঁন প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, বাংলাদেশে মোট জনসংখ্যার প্রায় ৩৩ শতাংশের বয়স ১০-২৪। এই বিশাল জনগোষ্ঠী শিক্ষার অভাব, জেন্ডার বৈষম্য, অল্প বয়সে বিয়ে, যৌতুক ও চিকিৎসার অভাব ইত্যাদি নানাবিধ সমস্যা ও সংকটে পড়ে একটি সম্ভাবনাময় জীবন অনিশ্চিত ও বাধাগ্রস্থ হয়ে পড়ছে। বাংলাদেশে আঠারো বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই ৬৪% কিশোরীর বিয়ে হয়ে যায়। ৫৯% কিশোরী ১৯ বছরের মধ্যেই সন্তান জন্ম দেয়। এই অল্প বয়সে গর্ভধারনই মাতৃ ও শিশু মৃত্যুর ঝুঁকির প্রধান কারন। বাল্য বিবাহ দক্ষিন এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান প্রথম এবং পৃথিবীতে দ্বিতীয় অতএব বাল্য বিবাহ আমাদের এমডিজি উন্নয়নে বাধা সৃষ্টি করতে পারে। সে আলোকে দুর্গাপুর উপজেলা সহ বাংলাদেশকে বাল্য বিবাহ মুক্তকরা সহ কোথাও বাল্যবিবাহ হলে সাথে সাথেই প্রশাসনকে অবহিত করার জন্য সকলকে আহবান জানানো হয়।

আরোও পড়ুন...