| |

Ad

সর্বশেষঃ

নারী উদ্যোক্তারা বিশ্বে তাক লাগিয়ে দিয়েছে

আপডেটঃ ৩:১৮ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ২৫, ২০১৫

বিশেষ সংবাদদাতা : বাংলাদেশের নারী উদ্যোক্তার তাদের সৃজনশীল কাজের মাধ্যমে সারা বিশ্বে তাক লাগিয়ে দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান। আজ বুধবার বাংলা একাডেমীর আবদুল করিম সাহিত্য বিশারদ হলে আয়োজিত এক আলোচনা সভা ও মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বাংলাদেশে এসএমই খাতের উন্নয়ন: সমস্যা ও সম্ভাবনা শীর্ষক মতবিনিময় সভায় ড. আতিউর রহমান বলেন, বিশ্বে নারীর ক্ষমতায়নে প্রথম ১০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ রয়েছে। দেশের উন্নয়ন কৌশল এখন সারা বিশ্বে প্রশংসা কুড়িয়েছে। ‘বাংলাদেশের উন্নয়নের গল্প, উদ্যোক্তাদের উন্নয়নের গল্পে’ পরিণত হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, সত্তরের দশকে আমরা কল্পনাও করিনি, গামেন্টস খাত দেশের প্রধান রপ্তানি খাতে পরিণত হবে। গার্মেন্টস এখন অপ্রতিরোধ্য খাত। সেটা সম্ভব হয়েছে, ব্যাংকিং খাতের প্রণোদনা, এলসি ও ঋণ ব্যবস্থা সহজ করার কারণে।

দেশের সকল ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর বলেন, “শুধু এসএমই খাতে ঋণ দিলেই চলবে না। বরং দেশের নারী উদ্যোক্তাদের অর্থ, প্রশিক্ষণ, বাজার সম্পর্কে সচেতন করার জন্যও কাজ করে যেতে হবে। একটি পর্যায়ে দেশের ব্যাংকিং খাত এসএমই’তে বেশি বেশি জোর দেবেন।”

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুনি গভর্নর সিতাংশু কুমার (এস কে) সুর চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয় নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক কাজ করছে। কৃষি বিপ্লবের জন্য কৃষি ঋণ বিতরণ করা হচ্ছে। এসএমই ঋণ প্রদান ও সফল নারী উদ্যোক্তা গড়ার জন্য সকল ব্যাংকের শাখায় নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এসময় দেশের সকল ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে নিম্ন সুদে নারী উদ্যোক্তাদের ঋণ প্রদানের আহ্বান জানান তিনি। এস কে সুর চৌধুরী আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, “এই উদ্যোগ নেওয়া হলে দেশে লক্ষ লক্ষ নারী উদ্যোক্তা সৃষ্টি হবে। জনগণ ব্যাংকের কাছে নয় বরং ব্যাংককে জনগণের দোরগোড়ায় যেতে হবে। তবেই দেশের ব্যাংকিং খাত সুসংহত ও শক্তিশালী হবে।”

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক নির্মল চন্দ্র ভক্ত। বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ লিজিং এন্ড ফাইন্যান্সের নির্বাহী পরিচালক আসাদ খান, বাংলাদেশ ওনার্স অব ব্যাংকিং অ্যাসোসিয়েশেনর সভাপতি আবদুল মান্নান, সফল উদ্যোক্তা হাসনা হেনা বেগম, দীপ্ত কুঠিরের স্বত্বাধিকারী দিলয়ারা বেগমসহ অন্যরা।

আরোও পড়ুন...