| |

Ad

সর্বশেষঃ

আগুন পুড়ে ময়মনসিংহ মেডিকেলের আইসিইউ বন্ধ

আপডেটঃ ৭:৪৮ অপরাহ্ণ | জুন ২৮, ২০১৭

স্টাফ রিপোর্টার, ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নতুন ভবনের আইসিইউ ইউনিটে মঙ্গলবার সকালে আগুন লেগে লাইফ সাপোর্ট মেশিনসহ বেশ কিছু মূল্যবান যন্ত্রপাতি পুড়ে গেছে। ঘটনার পর থেকে দেশের অন্যতম বৃহৎ এই হাসপাতালের আইসিইউ কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

এঘটনায় হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. আব্দুল গনিকে প্রধান করে সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। হাসপাতালের আইসিইউ বন্ধ থাকায় এই অঞ্চলের মরণাপন্ন রোগিদের জন্য এখন একমাত্র ভরসাস্থল বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলো।

এদিকে কবে নাগাদ হাসপাতালের আইসিইউ কার্যক্রম চালু হবে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেননি ওই ইউনিটের প্রধান প্রফেসর ডা. ফজলুল হক খান পাঠান। তিনি জানান, এখানে ১০ থেকে ৫০ লাখ টাকার যন্ত্রপাতি রয়েছে। লাইফ সাপোর্ট মেশিনগুলোসহ অন্যান্য মূল্যবান যন্ত্রাংশে পানি জমেছে। এখন যন্ত্রাংশ খুলে শুকানো হচ্ছে। চার্জ দিলে বুঝা যাবে যন্ত্রগুলো সচল আছে কিনা। বর্তমানে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও বিদ্যুৎ সংযোগের কাজ চলছে। তবে দু-একদিনের মধ্যে চালু হতে পারে বলে আশা করছেন তিনি।

ময়মনসিংহ ফায়ার সার্ভিসের সহকারি পরিচালক শহীদুর রহমান জানান, আইসিইউ’র স্টোর রুমের যন্ত্রপাতি থেকে আগুনের সূত্রপাত। পরে কালোধোঁয়া ছড়িয়ে পড়ে রোগিদের কক্ষেও।

বৈদ্যুতিক শটসার্কিট অথবা অন্য কোনো কারণে আগুন লাগতে পারে।

তিনি জানান, হাসপাতালের ওই ইউনিটে আগুন লাগার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৪টি ইউনিট কাজ শুরু করে। কালো ধোঁয়ার কারনে ওই ইউনিটে নার্স-ডাক্তার কেউই ছিলো না। আমাদের কর্মীরা জানালার কাঁচ ভেঙে কালো ধোঁয়া অপসারণ করে লাইফ সাপোর্টে থাকা ৬ রোগিকে বের করে স্থানান্তর করি।

মচিমহা’র আইসিইউ ইউনিটের প্রধান প্রফেসর ডা. ফজলুল হক খান পাঠান জানান, সকাল হাসপাতালের নতুন ভবনের ৫ম তলায় অবস্থিত ইনসেনটিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) আকস্মিক ধোঁয়া দেখতে পেয়ে ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেওয়া হয়। এসময় দ্রুত লাইফ সাপোর্টে থাকা ৬ রোগিকে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়। পরে ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। আগুনে কি পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে, তা প্রাথমিকভাবে জানা যায়নি। তবে লাইফ সাপোর্ট মেশিন ও এসিসহ বেশ কিছু মূল্যবান যন্ত্রাংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানা গেছে।

এদিকে ১০তলা এই নতুন ভবনটি চালু হওয়ার পর বিগত দুই বছরে তিনবার আগুন লাগায় জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। কেউ কেউ বলছেন অত্যাধুনিক এই ভবনটিতে নিম্নমানের বৈদ্যুতিক যন্ত্রাংশ, অপ্রতুল সার্কিট ব্রেকার বা ক্রটিপূর্ণ অক্সিজেন লাইনের কারণে বারবার আগুন লাগার ঘটনা ঘটছে। আবার কেউ বলছেন শহরের বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোর আইসিইউ ব্যবসা সচল রাখতেই ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউ ইউনিটটি ধংসের পাঁয়তারা করছে। কারণ হাসপাতালের আইসিইউতে একজন রোগির জন্য প্রতিদিন খরচ মাত্র ১০০ টাকা। আর বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে প্রতিদিন খরচ কয়েক হাজার টাকা। এনিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও গত দুই দিন ধরে ঝড় বইছে। এব্যাপারে ইউনিট প্রধান প্রফেসর ডা. ফজলুল হক খান পাঠান জানান, আগুন লাগার বিষয়ে ওই ইউনিটের ভিতর থেকে কারো কারসাজির সুযোগ নেই। তবে নতুন ভবনের পর্যাপ্ত সার্কিট ব্রেকার নেই।

তদন্ত কমিটির সদস্য সচিব লক্ষ্মীনারায়ণ মজুমদার জানান, সাত সদস্যের কমিটির সদস্যদের (হাসপাতালের সহকারি পরিচালক ডা. আবুল কাসেম, ফায়ার সার্ভিসের প্রতিনিধি, গণপূর্ত বিভাগের প্রতিনিধি, আইসিইউ’র স্টাফ ইনচার্জ ও সিনিয়র স্টোর অফিসার) চিঠি প্রেরণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৯ জুন) থেকে তদন্ত শুরু হবে। খুব শিগগিরই আইসিইউ ইউনিটটি চালু করা হবে।

আরোও পড়ুন...