| |

Ad

সর্বশেষঃ

জামালপুরের রাস্তায় বন্যার ক্ষতচিহ্ন

আপডেটঃ ১:৪৪ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২৬, ২০১৭

জামালপুর প্রতিনিধি : জামালপুরে বন্যার পানির তোড়ে আড়াই হাজার কিলোমিটারের মতো কাঁচা-পাকা সড়ক বিধ্বস্ত হয়েছে। এছাড়া অর্ধশত সেতু -কালভার্টের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সড়কগুলো থেকে বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর এসব ক্ষতের চিহ্ন দেখা গেছে। এসব সড়ক যান চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়ায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে মানুষকে।

সংশ্লিষ্ট দপ্তরের প্রকৌশলীরা বলছেন ক্ষতিগ্রস্ত সড়কগুলো জরুরি ভিত্তিতে মেরামতের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, দ্বিতীয় দফা ভয়াবহ বন্যায় জেলার সাত উপজেলার ৫৮ ইউনিয়ন বন্যা কবলিত হয়ে পড়ে। বন্যায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলাজিইডির) তিন হাজার ২৬১ কিলোমিটার কাঁচা সড়কের দুই হাজার একশ কিলোমিটার এবং ৯৭৩ কিলোমিটার পাকা সড়কের ৫৯৫ কিলোমিটার পানিতে তলিয়ে যায়। পানির তোড়ে এসব সড়কের সিংহভাগ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অর্ধশত সেতু ও কালভার্ট।

এলাকাবাসী ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা জানান, অতীতে বড় বন্যা হলেও এবারের রাস্তাঘাটের মতো তেমন ক্ষতি হয়নি। এবারের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়কগুলো দেখে মনে হয় যেন একটি বিধস্ত জনপথ।

বন্যায় পানির তোড়ে ইসলামপুর উপজেলার ইসলামপুর-মলমগঞ্জ, ইসলামপুর-গুঠাইল, ইসলামপুর-উলিয়া, নোয়ারপাড়া-মাহমুদপুর, জামালপুর-মাদারগঞ্জ, জামালপুরের তারাকান্দি-ভুয়াপুর সড়কসহ জেলার ৫৮ ইউনিয়নের প্রায় সিংহভাগ সড়ক ভেঙে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এর ফলে এসব সড়ক যান চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়ায় সাধারণ মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) সিনিয়র সহকারী প্রকৌশলী মো. সায়েদুজ্জামান সাদেক জানান, অনেক সড়কে এখনও পানি রয়েছে। যেসব সড়কের পানি নেমে গেছে সেগুলো জরুরি ভিত্তিতে মেরামত করে যানবাহন চলাচলের উপযোগী করা হচ্ছে। পানি নেমে যাওয়ার পর অন্যান্য ক্ষতিগ্রস্ত সড়কগুলো জরুরি ভিত্তিতে মেরামতের উদ্যোগ নেয়া হবে। যাতে ঈদের সামনে সাধারণ মানুষ যাতায়াতে ভোগান্তির শিকার না হন।

আরোও পড়ুন...