| |

সর্বশেষঃ

অঙ্কুশ, আই লাভ হিম: নুসরাত

আপডেটঃ ১১:০৯ অপরাহ্ণ | জানুয়ারি ২৭, ২০১৬

বিনোদন ডেস্ক : অঙ্কুশের বিপরীতে অভিনয় দিয়ে রূপালি পর্দায় অভিষেক নুসরাত ফারিয়ার। প্রথম সিনেমা আশিকিতে অভিনয় করেছিলেন দুজনে। দুই বাংলার যৌথ প্রযোজনায় সিনেমাটি তৈরি।
আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি নুসরাতের দ্বিতীয় সিনেমা হিরো ৪২০ মুক্তি পাবে।
সময়ের আলোচিত এ নায়িকার একটি সাক্ষাতকার নিয়েছে ভারতের দৈনিক আনন্দবাজার। সাক্ষাতকারের চুম্বক অংশ-
স্কলারশিপ পাওয়া ভালো ছাত্রী থেকে বড় পর্দার লাভার গার্ল। চেঞ্জটা কেমন এনজয় করছেন?

দারুণ। আমি বরাবর ভাল ছাত্রী ছিলাম। ক্লাস এইট থেকেই স্কলারশিপ পেতাম। আর অভিনয় শুরুর পর থেকে লাভার গার্ল ইমেজটা তৈরি হয়েছে। বিশ্বাস করুন আমি এটাই মেনটেন করতে চাই।

কলকাতায় নাকি অনেকে বিশ্বাসই করছেন না আপনি বাংলাদেশের?

(চোখ বড় করে ) ঠিক বলেছেন। আমকে এখানে সকলে ঘরের মেয়ে বলেই মনে করেন। অনেকে বিশ্বাসই করে না আমি বাংলাদেশের। এই তো সেদিন শো-তে একজন আমাকে বললেন, ‘তুমি তো আমাগো মাইয়া’।

অভিনেত্রী হওয়ার স্বপ্ন ছিল?

না। নাচতে ভালবাসতাম। সালসা, কনটেম্পরারি শিখেছি। মিলিটারে পরিবারে বড় হয়েছি তো। সেখানে হাউজ পার্টি লেগেই থাকত। পারফর্ম করতাম। তবে অভিনেত্রী হব ভাবিনি।

কীভাবে মিডিয়ায় এলেন?

স্কুল থেকেই ডিবেট করতাম। সেভাবেই মিডিয়ায় আসি। সে সময় ৮০০ টাকা পেতাম প্রতি শোতে। জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতাতেও চ্যাম্পিয়ন হয়েছি। ক্লাসে স্পেশাল আদর পেতাম।

আপনার প্রথম ব্রেক?

টুয়েলভথ গ্রেড কমপ্লিট করার পর ছোটদের অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করতাম। তার পর বাংলাদেশের ‘রেডিও ফুর্তি’তে নাইট শোয়ের অফার পাই। যেটা পরে ভাইরাল হয়ে যায়। আসলে টিনএজাররা প্রথম থেকেই আমাকে খুব পছন্দ করে।

অভিনয়ের ব্যাপারে আপনার পরিবার আপনার পাশে দাঁড়িয়েছিল?

না। একা একা কাঁধে ভারি ব্যাগ নিয়ে অটোতে করে যেতাম। কিন্তু পরে তারাই দেখেছেন যা করছি সেটা ভালই। বিশেষ করে আম্মু খুব সাপোর্ট করেছে। যেখানে ট্রাভেল করতাম আম্মু সঙ্গে যেত।

হিরো ৪২০-এ আপনার চরিত্রটি কেমন?

আমার চরিত্রের নাম রাই। একেবারে পাশের বাড়ির মেয়ে। একটু বোকা। সেজন্যই হিরো ৪২০-এর প্রেমে পড়ে যায়। (প্রাণখোলা হাসি)

পছন্দের অভিনেতা?

হৃতিক রোশন। আমার চাইল্ডহুড ক্রাশ। ওর জন্য আমি সব করতে পারি।

আর টলিউডে?

অঙ্কুশ। আই লভ হিম। ও আমেজিং। আমার প্রথম ছবি আশিকি ওর সঙ্গে। আমাকে খুব হেল্প করেছে। ও না থাকলে আমি ভাল পারফরম্যান্স দিতেই পারতাম না।

ঢালিউডে আপনার কোনও বন্ধু আছে?

অফকোর্স। শুভ। ও তো কিছুদিনের মধ্যেই বাংলাদেশের শাহরুখ খান হয়ে যাবে।

অনেকেই জানতে চান নুসরতের জীবনের বিশেষ মানুষ কে?

(মুখের দু’পাশে হাত দিয়ে চুপিচুপি) বলা যাবে না। তবে ভালবাসাই আমার শক্তি। কিন্তু আরও একজন আমার সোর্স অফ এনার্জি।

কে তিনি?

রনি। আমার বেস্ট ফ্রেন্ড। আমার সব কষ্ট ও জানে। আমি কাঁদতে কাঁদতে ওকে ফোন করলে হাসিমুখে ফোন রাখি।

তাহলে বিয়েও তো…?

(মুচকি হেসে) ওয়েল ২৫ বছর বয়সে বিয়ে করব। তবে কাকে এখন বলব না।

আরোও পড়ুন...

HostGator Web Hosting