| |

সর্বশেষঃ

এমএসএনে বার্সার সহজ জয়

আপডেটঃ ১১:৫৯ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ২৮, ২০১৫

খেলাধূলা ডেস্ক, ময়মনসিংহ প্রতিদিন :  লা লিগার চলতি আসরের ১৩তম রাউন্ডে জয় পেয়েছে স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনা। মেসি-নেইমার-সুয়ারেজরা ঘরের মাঠ ক্যাম্প ন্যুতে আতিথ্য নেওয়া রিয়াল সোসিয়েদাদকে ৪-০ গোলের ব্যবধানে হারিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে রইল।

১৩ ম্যাচ থেকে কাতালানদের সংগ্রহ বেড়ে গিয়ে দাঁড়ালো ৩৩ পয়েন্ট। দলকে জেতাতে গোল করেন ‘এমএসএন’ খ্যাত মেসি, নেইমার আর সুয়ারেজ।

১৩ মিনিটের মাথায় প্রথম গোলের দেখা পেতে গিয়েও হতাশ হতে হয় বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বার্সাকে। লুইস সুয়ারেজের তুলে মারা বলে হেড করেন আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা। সোসিয়েদাদের গোলবারে লেগে বল ফিরে আসে। তবে, ম্যাচের ২২ মিনিটের মাথায় লিড নেয় বার্সা। সোসিয়েদাদের ডি-বক্সের বাইরে থেকে মেসি বল বাড়িয়ে দেন ব্রাজিল তারকা দানি আলভেজকে। সেখান থেকে বল পান আগুয়ান ব্রাজিল সেনসেশন নেইমার। দারুণ গতিতে প্রতিপক্ষের জালে বল জড়িয়ে দেন তিনি।

মাঝমাঠের বল দখলের লড়াইয়ে এগিয়ে ছিলো বার্সার তারকারা। তবে, ছোট ছোট পাসে সোসিয়েদাদ কাতালানদের ডি-বক্সে আক্রমণ চালানোর চেষ্টা করলেও ভালো ফিনিশার আর প্রতিপক্ষের সতর্ক ডিফেন্স চিড়ে গোল আদায় করে নিতে ব্যর্থ হয়।

খেলার ৪১ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুন করে কাতালানরা। দলের দ্বিতীয় গোলটি আসে উড়ন্ত সুয়ারেজের পা থেকে। আলভেজকে নিজেদের অর্ধ থেকে লম্বা পাস দেন ইনিয়েস্তা। ব্রাজিল তারকা গোলবারের বাঁ-প্রান্ত থেকে জোরালো শট নেন ডি-বক্সে দাঁড়িয়ে থাকা মেসি-নেইমারকে লক্ষ্য করে। দুই সতীর্থের মাথার উপর দিয়ে বল ডানদিকে বেড়িয়ে যেতে থাকে। অনেকটা ফাঁকায় দাঁড়ানো সুয়ারেজ বল থামানোর কোনো প্রয়োজন মনে করেননি। উড়ন্ত বলেই ডাইভ দেওয়ার ভঙ্গিতে শট নেন উরুগুয়ের তারকা। আর তাতেই প্রতিপক্ষের দুই ডিফেন্ডারের ফাঁক গলে গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে বল জালে জড়ায়।

প্রথমার্ধে আর কোনো গোল না হলে ২-০ তে লিড ধরে রেখে বিশ্রামে যায় স্বাগতিকরা। প্রথমার্ধে বার্সার হয়ে মাঠে নামেন ক্লদিয়ো ব্রাভো, দানি আলভেজ, জেরার্ড পিকে, হাভিয়ের মাশচেরানো, জেরেমি ম্যাথিউ, বাসকুয়েটস, আন্দ্রে ইনিয়েস্তা, ইভান রেকিটিচ, লিওনেল মেসি, নেইমার আর লুইস সুয়ারেজ।

বিরতির পর ম্যাচের ৫৩ মিনিটে ব্যবধান আরও বাড়িয়ে নেয় বার্সা। দলের তৃতীয় আর নিজের দ্বিতীয় গোলটি তুলে নেন চলতি মৌসুমে প্রায় প্রতিটি ম্যাচে নিজেকে ছাড়িয়ে যাওয়া নেইমার। ম্যাথিউয়ের বাড়ানো বলে সোসিয়েদাদের জালে বল জড়িয়ে দেন ব্রাজিল অধিনায়ক।

নেইমার-সুয়ারেজ গোল করলেও গোলবঞ্চিত থাকা মেসি স্কোর করার সুযোগ পান ম্যাচের ৬০ মিনিটে। ইনিয়েস্তার কোনাকুনি শট নিজের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে জোরালো শট নেন মেসি। তবে, আর্জেন্টাইন অধিনায়কের শটটি অল্পের জন্য লক্ষভ্রষ্ট হয়।

৬৯ মিনিটে সোসিয়েদাদের ডি-বক্সের বাইরে থেকে পাওয়া ফ্রি-কিক নেন মেসি। সেটিও অল্পের জন্য জালে জড়ায়নি। ৭৪ মিনিটে বার্সার ডিফেন্স ভেদ করে বল নিয়ে প্রবেশ করেন অতিথি স্ট্রাইকার। তার নেওয়া শটটি গোলবারের বাইরে দিয়ে জালে জড়ায়। ৮৬ মিনিটের মাথায় মেসির আরেকটি দুর্দান্ত শট গোলবারে গিয়ে লাগে। এক মিনিট পর আবারো শট নেন তিনি। এবারে প্রতিপক্ষের ডিফেন্ডারের হাতে লেগে বল ফিরে এলেও রেফারির চোখ এড়িয়ে যাওয়ায় পেনাল্টি থেকে বঞ্চিত হয় বার্সা। ম্যাচের শেষ মিনিটে গোল করতে মরিয়া মেসি ফের শট নেন। ভাগ্যদেবী এবারো তার দিকে তাকায়নি। গোললাইন অতিক্রম করার আগেই প্রতিপক্ষের ডিফেন্ডাররা বল ফিরিয়ে দেন।

ম্যাচ শেষের কয়েক সেকেন্ড আগে গোলের দেখা পান মেসি। নেইমারের এগিয়ে দেওয়া বলে আলতো টোকায় সোসিয়েদাদের জালের দেখা মেলে মেসির। ফলে, ৪-০তে এগিয়ে থাকে বার্সা।

রেফারির শেষ বাঁশি বাজার আগে আর কোনো গোল না হলে ৪-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে স্বাগতিক বার্সা।

HostGator Web Hosting