| |

Ad

সর্বশেষঃ

পড়াশোনা করেই ভালো রেজাল্ট করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

আপডেটঃ ২:১৬ অপরাহ্ণ | জুলাই ১৯, ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের শিক্ষার্থীদের সবাইকে মেধাবী হিসেবে অভিহিত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, একটু পড়াশোনা করলেই এই মেধাবীরা ভালো রেজাল্ট করতে পারে। পড়াশোনা করেই ভালো রেজাল্ট করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (১৯ জুলাই) বেলা ১১টার দিকে গণভবনে এ বছরের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে তিনি এ কথা বলেন।

সকাল ১০টার পর প্রধানমন্ত্রীর হাতে আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের ফলাফলের অনুলিপি তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। এরপর সংশ্লিষ্ট বোর্ডের চেয়ারম্যানরা তাদের স্ব স্ব বোর্ডের ফলাফল প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অংশ নেন শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী, শিক্ষা সচিব মো. সোহরাব হোসাইনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও কর্মকর্তাদের বক্তব্যের আগে প্রধানমন্ত্রী ডিজিটাল পদ্ধতিতে ফলাফল প্রকাশ করেন। এরপর শিক্ষামন্ত্রী ফলাফলের সারসংক্ষেপ তুলে ধরেন।প্রধানমন্ত্রীর হাতে ফলাফলের অনুলিপি তুলে দেওয়া হচ্ছে। ছবি: পিআইডিপ্রধানমন্ত্রী তার বক্তৃতায় পাস করা শিক্ষার্থীদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, সরকার শিক্ষাখাতের উন্নয়নে সব রকম পদক্ষেপ নিয়েছে। কারণ আমরা জানি দেশকে দারিদ্র্যমুক্ত ও উন্নত করতে হলে শিক্ষিত জাতি গড়ে তোলার বিকল্প নেই। যারা পাস করেছে তাদের অভিনন্দন, যারা পাস করেনি তাদের আবার পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ আছে। সেজন্য ভালোভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে। অভিভাবকরা যেন তাদের বকাঝকা না করেন, তাদের সমস্যা চিহ্নিত করে তা সমাধানের চেষ্টা করতে হবে।

গত বেশ কয়েক বছর ধরে পাবলিক পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ থাকলেও এবার এ পরীক্ষা অভিযোগ ছাড়াই শেষ হয়।

সে প্রসঙ্গটি টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা বদনাম হতো, প্রশ্নপ্রত্র ফাঁস। প্রশ্নপত্র ফাঁস শুধু আমাদের দেশে নয়, অনেক উন্নত দেশেও এ সমস্যা দেখা যায়। ডিজিটালের যেমন সুফল আছে, তেমনি কুফলও আছে। এটাতে খুব তাড়াতাড়ি যেকোনো কিছুই প্রচার হয়ে যায়। এবার পরীক্ষার ক্ষেত্রে যে পদ্ধতিটা নেওয়া হয়েছে, সেটা খুবই চমৎকার ও কার্যকর। পরীক্ষার্থীরা ৩০ মিনিট আগে হলে ঢুকবে, ২৫ মিনিট আগে জানানো হবে কোন সেটে প্রশ্ন হবে, তার ফলে নকল বন্ধ হয়েছে।

‘আমাদের ছেলে-মেয়েরা নকল করবে কেন? একটু পড়াশোনা করলেই তো ভালো রেজাল্ট করতে পারে। পড়াশোনা করেই ভালো রেজাল্ট করতে হবে। ছেলে-মেয়েদের উদ্দেশে একটা কথা বলবো, শিক্ষাটা হচ্ছে সবচেয়ে বড় সম্পদ। এই সম্পদ কেউ কখনো কেড়ে নিতে পারে না। ভালোভাবে পড়াশোনা করলে সুন্দরভাবে নিজের জীবন গড়া যায়। কারও মুখাপেক্ষী হয়ে থাকতে হয় না।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার হিসেবে জনগণের সেবা করাটাই আমাদের কর্তব্য। সেভাবেই আমরা দেশ গড়তে চাই। সেদিকে লক্ষ্য রেখেই শিক্ষাকে উন্নত মানের করে শিক্ষার্থীদের দেশ গড়ার কারিগর হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।

পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা ছোট্ট অনুরোধ থাকবে, সময়টা- একটা দীর্ঘ সময় ধরে পরীক্ষা হয়, এতো দীর্ঘ সময় বোধ হয় আপনারা রেজাল্ট দিতেও নিলেন না, পরীক্ষা নিতে যত সময় নিয়েছেন। কিভাবে পরীক্ষার সময়টা কমিয়ে আনা যায়, লম্বা সময় ধরে পরীক্ষা না নিয়ে সময়টাকে কমিয়ে আনার ব্যবস্থা করা…। আমরা যখন পরীক্ষা দিয়েছি, একদিনে দুই বিষয়েও পরীক্ষা দিতাম। সাত দিনে আমাদের পরীক্ষা শেষ।

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তৃতায় শিক্ষার্থীদের যত্ন করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, কোনো ছেলে-মেয়ে যেন মাদক-সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদে জড়িয়ে না পড়ে, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে আমাদের অভিভাবকসহ সবাইকে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, এ বছর উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমান পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৬৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ। এরমধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছেন ২৯ হাজার ২৬২ জন শিক্ষার্থী।

আরোও পড়ুন...