| |

Ad

সর্বশেষঃ

রাতে আসছে গোলাম সারওয়ারের মরদেহ, বৃহস্পতিবার দাফন

আপডেটঃ ৩:৫১ অপরাহ্ণ | আগস্ট ১৪, ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশবরেণ্য সাংবাদিক ও সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ারের মরদেহ সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সে আজ মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টায় সিঙ্গাপুর থেকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছবে। এরপর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে তার উত্তরার বাসভবনে। সেখান থেকে গোলাম সারওয়ারের মরদেহ রাখা হবে বারডেম হাসপাতালের হিমঘরে।

দৈনিক সমকালের প্রধান প্রতিবেদক লোটন একরাম এসব তথ্য জানিয়েছেন।

আগামীকাল বুধবার গোলাম সারওয়ারের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে তার গ্রামের বাড়ি বরিশালের বানারীপাড়ায়। সেখানে শ্রদ্ধা ও জানাজার পর তার মরদেহ ঢাকায় নিয়ে আসা হবে।

আগামী বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় গোলাম সারওয়ারের মরদেহ নিয়ে আসা হবে তার প্রিয় কর্মস্থল সমকাল কার্যালয়ে। এখানে সহকর্মীদের শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে পার্শ্ববর্তী বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় মাঠে তার জানাজা হবে। এরপর সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ব্যবস্থাপনায় সকাল ১১টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত সমকাল সম্পাদকের মরদেহ সর্বস্তরের জণগণের শ্রদ্ধার জন্য রাখা হবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে।

শ্রদ্ধা জানানোর পর সেখান থেকে তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে জাতীয় প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে। সংবাদকর্মীরা সেখানে গোলাম সারওয়ারের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন। বাদ জোহর তার জানাজা হবে। এরপর বাদ আসর মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হবেন গোলাম সারওয়ার।

গতকাল সোমবার বাংলাদেশ সময় রাত ৯টা ২৫মিনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন গোলাম সারওয়ার।

গোলাম সারওয়ার ১৯৪৩ সালের ১ এপ্রিল বরিশালের বানারীপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় সম্মানসহ স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন।

তিনি ১৯৬৩ সালে দৈনিক পয়গম পত্রিকায় সাংবাদিকতা শুরু করেন। পরে দৈনিক সংবাদ, দৈনিক ইত্তেফাক, দৈনিক যুগান্তর ও দৈনিক সমকালের মতো শীর্ষস্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় কাজ করেন।

তিনি ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন।

২০১৪ সালে বাংলাদেশ সরকার সাংবাদিকতায় অবদানের জন্য তাকে দেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদকে ভূষিত করে। এছাড়া, তিনি ২০১৬ সালে কালচারাল জার্নালিস্টস ফোরাম অব বাংলাদেশের (সিজেএফবি) আজীবন সম্মাননা এবং ২০১৭ সালে আতাউস সামাদ স্মারক ট্রাস্ট আজীবন সম্মাননা লাভ করেন।

সাংবাদিকতার পাশাপাশি তিনি লেখালেখিতে সুনাম অর্জন করেন। তার প্রকাশিত গন্থের মধ্যে রঙিন বেলুন, সম্পাদকের জবানবন্দি, অমিয় গরল, আমার যত কথা, স্বপ্ন বেঁচে থাক উল্লেখযোগ্য।

গোলাম সারওয়ার চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের আপিল বিভাগের সদস্য এবং সম্পাদকদের সংগঠন সম্পাদক পরিষদের সভাপতি দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া তিনি একাধিকবার জাতীয় প্রেসক্লাবের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৫ সালের আগস্ট মাসে তিনি বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের (পিআইবি) চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন।

আরোও পড়ুন...