| |

সর্বশেষঃ

অক্টোবরের মাঝামাঝি নির্বাচনকালীন সরকার : ওবায়দুল কাদের

আপডেটঃ ৩:১০ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আসলে বিএনপির মধ্যেই কোনো ঐক্য নেই। তারা নিজেরা নিজেদেরকে অন্যের এজেন্ডা মনে করে। তারা নিজেরাই ঐক্যবদ্ধ নয়, তাহলে তারা কাদের নিয়ে ঐক্য করবে?

তিনি বলেন, তারা কি সাম্প্রদায়িক শক্তি নিয়ে ঐক্য করতে চায়। তারা যদি সাম্প্রদায়িক শক্তি নিয়ে ঐক্য করতে চায় তাহলে সেখানে আওয়ামী লীগ থাকবে না। আর আওয়ামী লীগ ছাড়া কীসের জাতীয় ঐক্য? এটা হাস্যকর নয়? সবচেয়ে বড় দল আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য হয়? তারা যেটা করছে সেটা জাতীয়তাবাদী সাম্প্রদায়িক ঐক্য।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে নিজ দফতরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনের এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসা প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে মন্ত্রী বলেন, এখানে প্রশ্ন হচ্ছে, বেগম জিয়ার চিকিৎসা হচ্ছে বিশেষায়িত। আর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল তো বিশেষায়িত হাসপাতাল। এখানে দরকার তার চিকিৎসা। কোন হাসপাতালে হলো সেটা তো বিষয় নয়। উন্নত চিকিৎসার জন্য যে হাসপাতালে চিকিৎসা সম্ভব সেখানে যেতে আপত্তি কেন তার? আসলে বিএনপি খালেদা জিয়ার চিকিৎসার চাইতে তার অসুস্থতা নিয়ে রাজনীতি করছে। এটাকে ইস্যু বানিয়ে তারা আন্দালন করতে চাচ্ছে। এর আগেও তারা আন্দোলনের চেষ্টা করেছে। বাট তারা পারেনি। এখন খালেদার স্বাস্থ্য নিয়ে আন্দোলনের চেষ্টা করছে।

কেউ কেউ বলছেন তাদের মনোনয়ন কনফার্ম হয়েছে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ ধরনের কোনো অভিযোগ পেলে আমরা অবশ্যই ব্যবস্থা নিব। তবে যারা জনগণের মাঝে গ্রহণযোগ্যতার বিবেচনায় এগিয়ে আছেন তাদেরকে বলা হয়েছে, কিছু কিছু টিপস দেয়া হয়েছে- আপনি এই এই বিষয়গুলোতে নজর দিন। এই ঘাটতিগুলে পূরণ করুন। আরো গণমুখী ক্যাম্পেইন করুন। ভাল কাজের প্রতি নজর দিন। তাকে এমন ভাবনা দেয়া হচ্ছে যে, আরো কিছু ভাল কাজ করলে মনোনয়ন দেয়া হবে।

তিনি বলেন, এ ধরনের কথা হয়তে কিছু মিডিয়ায় আসছে। আবার এ ধরনের কথা কিছু কিছু ক্ষেত্রে আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা কাউকে কাউকে দিয়েছেন। তবে কাউকে বলা হয়নি যে, তার মনোনয়ন ফাইনাল করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, যারা জবাবদিহিতায় এগিয়ে থাকবেন তারা হয়তো মনোনয়ন পাবেন। তবে গতবার যাদের আমরা মনোনয়ন দিয়েছি, তাদের বিরুদ্ধে যদি কোনো অভিযোগ থাকে তাদের মধ্যে নমিনেশন একেবারে কম হবে। তবে নবীনদের মনোনয়ন দেয়া হবে এবং জনগণের কাছে যাদের বেশি গ্রহণযোগ্যতা আছে তাদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। তবে মনোনয়ন পাওয়ার ক্ষেত্রে ওই ব্যক্তির প্রতি জনগণের গ্রহণযোগ্যতা বড় শক্তি হিসেবে কাজ করবে।

গেল নির্বাচনে শিল্পপতিদের মনোনয়নে গুরুত্ব দেয়ায় দলে বিভক্তি দেখা যায়, এবার বিষয়টি কীভাবে দেখা হবে এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, এমন কোনো চিন্তা-ভাবনা আওয়ামী লীগের নেই। এক জেলার মানুষ আরেক জেলায় গিয়ে শুধু শিল্পপতি হওয়ার কারণে মনোননয় পাবে এমন হবে না। তবে আওয়ামী লীগ করলে সে যে শিল্পপতি হতে পারবে না এমনতো ঠিক নয়। আওয়ামী লীগ করলে তো শিল্পপতিও হতে পারে, তাতে কোনো সমস্যা নেই।

অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করা হবে জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, ওই সরকারে বাইরের কেউ, এমনকি টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীও থাকবেন না।

আরোও পড়ুন...

HostGator Web Hosting