| |

Ad

সর্বশেষঃ

  • বিপিএল ২০১৭

/ কৃষি ও পরিবেশ

মহাসড়কে ধান শুকানোয় বাড়ছে দুর্ঘটনা

ডিসেম্বর ১৪, ২০১৭

ঈশ্বরগঞ্জ প্রতিনিধি : ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কে ঝুঁকি নিয়ে চলছে ধান শুকানোর কাজ। রোদে দেয়া ধানের উপর দিয়ে গাড়ী চলাচল ঠেকাতে দু’পাশে কলা গাছের খন্ড অথবা কাঠের গুড়ি ফেলে রাখা হচ্ছে । রাস্তার দু’পাশে এভাবে ধান শুকানোয় বাড়ছে দুর্ঘটনা। দুর্ঘনার বেশি শিকার হচ্ছে মোটরসাইকেল ও ত্রিহুইলারগুলো। দূরপাল্লার গাড়ী গুলো চালাতে হচ্ছে ধীর গতিতে যার ফলে যাত্রীরা চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। এ মাসেই মহাসড়কে প্রাণ গেছে ৫ জনের। আহত হয়েছে আরো অর্ধশত লোক। সরেজমিন দেখা যায়, ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের কলতাপাড়া থেকে শুরু করে মুশুল্লি পর্যন্ত রাস্তার দু’পাশে ধান শুকাচ্ছে মহাসড়কের পাশের বাসিন্দারা। ধান রোদে দেয়ার পর দু’পাশে কলা গাছ অথবা কাঠের গুড়ি ফেলে রাখার কারণে...

ঈশ্বরগঞ্জে শিম চাষে ২০ কোটি টাকা আয়ের স্বপ্ন দেখছেন চাষীরা

ডিসেম্বর ০৮, ২০১৭

ঈশ্বরগঞ্জ প্রতিনিধি : শিমের সবুজ ডগায় সাদা-বেগুনি ফুলে ছেয়ে গেছে মাঠ। কচি শিমের গন্ধ বাতাসে ভাসছে চারদিকে। বিস্তৃত দিগন্তে শোভা পাচ্ছে অসংখ্য শিমের বাগান। এ দৃশ্য এখন ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার রাজিবপুর ইউনিয়নের প্রতিটি গ্রামে। মাঠে গিয়ে দেখা যায়, শিম চাষীরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। এ বছর উপজেলার শুধু রাজিবপুর ইউনিয়নেই বিভিন্ন গ্রামে ৫শ হেক্টর জমিতে শিম চাষ হয়েছে। খামার পদ্ধতিতে চাষকৃত ৫শ’ হেক্টর জমিতে এবার খরচ বাদে ২০ কোটি টাকা আয়ের স্বপ্ন দেখছেন চাষীরা। এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, বিস্তীর্ণ জমিতে শিমের মাচায় পরিচর্যা কাজে ব্যস্ত চাষীরা। কেউ আবার বাজারে নেয়ার জন্যে শিম তুলছেন। অল্প সময়ে অধিক লাভ হওয়াতে বর্তমানে অনেকেই শিম চাষে ঝুঁকছেন।...

সবজি চাষে লাভ গুণছেন টাঙ্গাইলের চাষিরা

ডিসেম্বর ০৪, ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক, টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলের জেলা শহরসহ বিভিন্ন স্থানে এখন শীতকালীন সবজির চাষ করা হয়েছে। আর এই শীতকালীন শাকসবজি টাঙ্গাইলের বাজারে উঠতে শুরু করেছে।   শীতকালীন শাকসবজি চাষ করে লাভবান হচ্ছেন কৃষকেরা। ক্ষেতের পাশাপাশি অনেকেই বাড়ির আঙ্গিনায় শীতকালীন সবজি চাষ করছেন। শীতকালীন সবজি চাষে লাভবান হওয়ায় কৃষকদের পাশাপাশি বিভিন্ন শ্রেণির লোকজন সবজি চাষের দিকে ঝুঁকছেন। টাঙ্গাইলের কৃষি অফিস বলছে, শীতকালীন সবজিতে রোগ-বালায় কম এবং কৃষকরা সহজেই লাভবান হওয়ায় তারা বেশি বেশি সবজির চাষ করছেন। সরেজমিনে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার বৈল্লা, এনায়েতপুর, গালা ও মাগুরাটা, সদুল্লাপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা যায়, কৃষকরা শীতকালীন সবজির ক্ষেত পরিচর্যা...

জামালপুরে চলছে ধান কাটার উৎসব

নভেম্বর ২৬, ২০১৭

জামালপুর প্রতিনিধি : জামালপুরের মাঠে মাঠে পুরোদমে চলছে রোপা আমন কাটা ও মাড়াই। উৎসবের আমেজে কাটা মাড়াই শেষে সোনালী ধান ঘরে তুলছে কৃষান-কৃষাণীরা। মজুদদার ও ফড়িয়ারা নতুন ধান কিনতে কৃষকের বাড়ি বাড়ি ঘুরছে। বন্যাপরবর্তী বৈরী আবহাওয়ার মাঝেও ভালো ফলন পেয়ে খুশি এলাকার কৃষকেরা। সরেজমিনে জামালপুর সদর উপজেলার শরিফপুর, পিঙ্গল হাটি, গোদাশিমলা, কম্পপুর ও মেলান্দহ উপজেলার মালঞ্চ, বালু আটা, মহিরামকুল, ভাঙ্গুনী ডাঙ্গা ও রাঁন্ধুনী গাছা ঘুরে দেখা গেছে, ছোট বড় প্রত্যেক গৃহস্থ-চাষি পরিবারেই এখন নতুন ফসল ঘরে তোলার কর্মব্যস্ততা। ধান কেটে আটি বেঁধে মাথায় বয়ে কিংবা গরু মহিষের গাড়িতে করে নিয়ে যাচ্ছেন বাড়িতে। গ্রামগঞ্জের রাস্তা-ঘাট, বাড়ির উঠান, খোলা মাঠ-ময়দানে...

হাওরে বীজতলায় এখনও পানি, বোরো চাষ নিয়ে শঙ্কিত চাষিরা

নভেম্বর ২২, ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক, নেত্রকোনা : নেত্রকোনার খালিয়াজুরী উপজেলার হাওরগুলোতে এখনও পানি থাকায় কৃষকরা বোরো বীজতলা তৈরি করতে পারছেন না। ফলে বোরো চাষ নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন কৃষকরা। তারা জানান, সঠিক সময়ে বোরো বীজতলা প্রস্তুত করতে না পারলে বেরো চাষ দেরি হবে। ফলে গত বছরের মতো অকাল বন্যায় ফসলহানির আশঙ্কা রয়েছে। খালিয়াজুরীর কৃষক মনির হোসেন বলেন, ‘এবার দেরিতে চারা রোপণ করতে হবে। তাই ফসল ভালো হওয়ার আশা করে লাভ নেই। আরও ১০-১২ দিন পরে বীজ (জালা) ফেললে তখন শীত চলে আসবে। ফলে ভালো চারা পাওয়া যাবে না। ভালো চারা না হলে ভালো ফসলও হবে না। আর ফসল পাকতে দেরি হওয়ায় আগাম বন্যায় ফসলহানির আশঙ্কা রয়েছে।’ কাদিরপুরের কৃষক শ্রী চরণ সরকার বলেন, ‘ধনু নদীর উৎস এবং সুরমার মোহনা...

দুর্গাপুরে আগাম শ্রম বিক্রয়ের ফাঁদে দিনমজুর জনগোষ্ঠী

নভেম্বর ১৩, ২০১৭

সুমন রায়, দুর্গাপুর ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : নেত্রকোনার দুর্গাপুরে পেশা পরিবর্তনের বিকল্প সুযোগ না থাকায় জীবন-জীবিকার প্রয়োজনে আগাম শ্রম বিক্রি করে চলতে হয় দিন মজুর সহ নিম্ন আয়ের মানুষদের। সোমবার সরেজমিনে বিভিন্ন গ্রামে কথা বলে জানাগেছে, বিকল্প পেশায় দক্ষতা এবং বছরের অর্ধেকেরও বেশী সময় মাঠে কৃষিকাজ না থাকায় গ্রামের ধন্যাঢ্য কৃষকদের কাছে আগাম শ্রম বিক্রি করে চলতে হয় তাঁদের। পরবর্তিতে স্বামী-স্ত্রী-সন্তাান-সন্ততিসহ পরিবারের সবাই মাঠে দিনমজুরীর কাজ করে তা পুশিয়ে নিতে হয়। কেউ তা না করে তবে সারাবছর ঋণের বেড়াজালে আটকে থাকতে হয় তাদের। দুর্গাপুর ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামের পুর্ন মারাক, রহিলা , মিথিলা হাজং জানান, তাঁরা প্রত্যেকে কার্তিক মাসে...