সংবাদ শিরোনাম

 

 

পানি কমতে শুরু করে বন্যার উন্নতি হলেও ময়মনসিংহের ধোবাউড়া উপজেলার তিন ইউনিয়নের ২০ গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ এখনও পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে। এখন পর্যন্ত এসব পানিবন্দি মানুষের জন্য সীমিত আকারে চাল এবং শুকনো খাবারের ব্যবস্থা করেছে জেলা প্রশাসন।

 

শুক্রবার (১৭ জুন) রাতে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল এবং প্রবল বর্ষণে ধোবাউড়ার পোড়াকান্দুলিয়া, ধোবাউড়া সদর, ঘোষগাঁও, দক্ষিণ মাইজপাড়া, গোয়াতলা ও গামারীতলা ইউনিয়নের অর্ধশত গ্রাম পানিতে ডুবে যায়।

 

মঙ্গলবার (২১ জুন) থেকে পানি কমতে শুরু করেছে। তবে এখনও ধোবাউড়া সদর, গোয়াতলা এবং গামারীতলা ইউনিয়নের ২০টি গ্রামের এখনও প্রায় ১০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে আছে। এই তথ্য নিশ্চিত করে ধোবাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফৌজিয়া নাজনীন।

 

তিনি বলেন, সোমবার (২০ জুন) জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ এনামুল হক পানিবন্দি এলাকা পরিদর্শন করে এক হাজার অসহায় পরিবারকে শুকনো খাবারের প্যাকেট এবং ৬০০ পরিবারকে ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করেন।

 

তিনি আরও জানান, মঙ্গলবার ঘোষগাঁও ইউনিয়নের আড়াইশ’ পরিবারের মধ্যে শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। বন্যা কবলিত এলাকায় অসহায় মানুষের জন্য ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

 


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম