সংবাদ শিরোনাম

 

 

ময়মনসিংহের বাজারে মাছের সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে দাম বেড়েছে। অন্যদিকে কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে গরু-ছাগল বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছেন খামারিরা। এতে বাজারে মাংসেরও সংকট দেখা দিয়েছে।

রোববার (১৯ জুন) বিকেলে ময়মনসিংহ মহানগরীর শম্ভুগঞ্জ বাজারে ঘুরে দেখা যায়, বাজারে মাছের সরবরাহ কম। বিক্রেতারা বলছেন, খাদ্যের দাম বাড়ায় মাছচাষি কমেছে। এতে মাছের উৎপাদনও কমে গেছে। যে কারণে মাছের চাহিদা পূরণ হচ্ছে না।

শম্ভুগঞ্জ বাজারের মাছবিক্রেতা ফখর উদ্দিন বলেন, প্রতিদিন যে পরিমাণ মাছ বাজারে আসে, আজ এর অর্ধেকও আসেনি। তাই, আড়ত থেকে কেজিতে ২০ থেকে ৪০ টাকা বেশি দামে মাছ কিনতে হয়েছে।

তিনি জানান, গলদা চিংড়ি ৭০০, শিং মাছ ৩৫০, টাকি ৭০০, টেংরা ৫০০, ছোট বাইন মাছ ৮০০, মৃগেল ২৮০, ছোট রুই ২৬০, ছোট কাতলা ৩০০, কার্প ২৮০, তেলাপিয়া ১৮০, গুলশা ৭০০, পাবদা ৩৫০, কই ১৮০, সিলভার কার্প ২২০, কালবাউশ ২৬০, মাগুর ৩৫০, ছোট চাপিলা ৪৮০, বাতাসি ১০০০ ও পাঙাশ মাছ ১৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

মাংস মহালের মাংসবিক্রেতা রশিদ মিয়া বলেন, সামনে কোরবানির ঈদ। তাই, গরু-ছাগল বাজারে আসে না। বিভিন্ন জায়গা থেকে ঘুরে দু-একটা করে গরু-খাসি কিনতে হয়। তবে, দেশে বন্যার প্রভাব পড়ায় মাংসের চাহিদা কম। তিনি জানান, খাসির মাংস ৮৫০ টাকা ও গরুর মাংস ৬৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

একই বাজারের জুয়েল মিয়া বলেন, মুরগির দামে তেমন ওঠানামা নেই। তিনি জানান, লেয়ার মুরগি ৩৫০, সোনালি ৩০০, ব্রয়লার ১৪৫, কক ২৮০, দেশি মুরগি ৪৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। ফার্মের মুরগির ডিম ৪০, হাঁসের ডিম ৫০ ও দেশি মুরগির ডিম ৫৫ হালি বিক্রি হচ্ছে।

শম্ভুগঞ্জ মধ্যবাজারে অথই স্টোরের মালিক শিবু সাহা বলেন, খোলা সয়াবিন তেলের দাম কেজিতে পাঁচ টাকা কমলেও বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ১০ টাকা বেড়েছে।

ওই বাজারে মোটা মসুর ডাল ৫ টাকা কমে ১০৫ টাকা, অ্যাংকার ৬৫ টাকা, মাসকলাই ৯৫ টাকা, ভাঙা মাসকলাই ১৩০ টাকা, খেসারি ডাল ৭০ টাকা, বুটের ডাল ৯০ টাকা, মুগডাল ১৩০ টাকা, ছোলা ৭৫ টাকা, চিনি ৮০ টাকা কেজি, খোলা আটা ৪০ টাকা, প্যাকেটের আটা ৫০ টাকা, খোলা সয়াবিন তেল ২০৫ টাকা ও বোতলজাত সয়াবিন ২০৫ লিটার দরে বিক্রি হচ্ছে।

মা-বাবা ট্রেডার্সের বিক্রেতা সবুজ মিয়া জানান, সবধরনের আলুর দাম কেজিতে পাঁচ টাকা করে বেড়েছে। এছাড়া দেশি পেঁয়াজ ৩৫, ইন্ডিয়ান রসুন ২০০, দেশি রসুন ৮০, আদা ৮০, দেশি আলু ২৫, ডায়মন্ড আলু ২২ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

টমেটো, পেঁপে, গাজর ও শসার দাম কিছুটা বেড়েছে। কচুর মুখি ৪০, পটোল ৩০, কাকরোল ৪০, চিচিঙ্গা ৩০, করলা ৪০, বেগুন ৪০, পেঁপে ৩০, কাঁচামরিচ ৮০, বরবটি ৬০, ঢেঁড়স ৩০, বেগুন ৪০, শসা ৫০, কুমড়া ৫০, ঝিঙে ৪০, টমেটো ৫০ টাকা থেকে বেড়ে ১২০ ও গাজর ১২০ টাকা কেজি, লেবু ১০ টাকা হালি, মিষ্টি কুমড়া পিস ৩০ টাকা ও কাঁচকলা ১০ টাকা হালি বিক্রি হচ্ছে।


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম