| |

সর্বশেষঃ

কমলাপুরে যাত্রীসেবা দিচ্ছে রোভার স্কাউট

আপডেটঃ ৩:১৮ অপরাহ্ণ | জুন ০১, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঈদ উপলক্ষে কমলাপুর রেলস্টেশনে যাত্রীসেবায় নিয়োজিত রয়েছে তিনটি ওপেন স্কাউট গ্রুপ। গ্রুপের সদস্যরা ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের বিভিন্ন সেবা দিয়ে সহায়তা করছেন।

কমলাপুর রেলস্টেশন ঘুরে ও স্কাউট গ্রুপের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তিনটি গ্রুপের ৬০ জন রোভার স্কাউট সদস্য প্রতি বছরের মতো এবারও ঈদে ঘরে ফেরা যাত্রীদের সেবা দিচ্ছেন। রেলওয়ের সঙ্গে অন্তর্ভূক্ত এই গ্রুপ তিনটি হলো, ইকোনোমিক্যাল ওপেন স্কাউট গ্রুপ, শাহজাহানপুর রেলওয়ে ওপেন স্কাউট গ্রুপ ও জিনিয়াস ওপেন স্কাউট গ্রুপ।

একটি গ্রুপে ২০ জন করে রোভার স্কাউট সদস্য রয়েছেন। তারা সবাই বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। ৩১ মে থেকে ঈদের আগের দিন পর্যন্ত এই স্কাউট গ্রুপ সকাল ৭টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত যাত্রীদের সেবা দেবে।

স্কাউট গ্রুপের কয়েকজন সদস্য কমলাপুর রেলস্টেশনের মূল গেটে আনসার সদস্যদের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন। তারা বহিরাগতদের ভেতরে প্রবেশ করতে দিচ্ছেন না। টিকিট ছাড়া প্লাটফর্মে প্রবেশ নিষিদ্ধ থাকলেও বহিরাগতরা সবসময়ই প্লাটফর্মে ঘোরাফেরা করে থাকেন। এবার বিষয়টি বেশ গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে কর্তৃপক্ষ। বহিরাগতদের কাউকে ভেতরে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। এ কাজে আনসারদের চেয়ে স্কাউট গ্রুপের সদস্যদের বেশি তৎপরতা দেখা গেলো।

যাত্রীর টিকিট দেখে ট্রেন খুঁজে পেতে সহায়তা করছেনএছাড়া গ্রুপের ৬ জন সদস্য প্লাটফর্মের মূলগেটের ভেতরে টেবিল নিয়ে বসে আছেন। তারা বিভিন্ন ট্রেনের সময়সূচি যাত্রীদের জানিয়ে দিচ্ছেন। কেউ যাত্রীদের ট্রেনে উঠতেও সহায়তা করছেন।

শাহজাহানপুর ওপেন স্কাউট গ্রুপের টিম লিডার হৃদয় হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, বহু বছর ধরে দুই ঈদ ও ইজতেমার সময় রোভার স্কাউট গ্রুপের সদস্যরা কমলাপুর রেলস্টেশনে যাত্রীদের বিভিন্ন রকমের সেবা দিয়ে থাকেন।

কি ধরনের সেবা দেন জানতে চাইলে হৃদয় বলেন, আমরা কয়েকটি গ্রুপে ভাগ হয়ে স্টেশনের বিভিন্ন পয়েন্টে দায়িত্ব পালন করি। এর মধ্যে যাত্রীদের ট্রেনের সময়সূচি জানিয়ে দেওয়া, বিনা টিকিটে প্লাটফর্মে প্রবেশকারীদের ধরে টিসি’র (টিকিট চেকার) কাছে হস্তান্তর, কখনও বহিরাগতরা বের হতে না চাইলে বা খারাপ আচরণ করলে রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর কাছেও সোপর্দ করি।

এছাড়া বৃদ্ধ, শারীরিক প্রতিবন্ধী যাত্রীদের মালামাল এগিয়ে দেওয়া ও তাদের ট্রেনে উঠতে সহায়তা করে থাকি। ট্রেন থেকে নামার পর তাদেরকে গাড়িতে ওঠার জন্যও সহায়তা করা হয়।

হাবিবুল্লাহ বাহার বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ বর্ষের ছাত্র হৃদয় যাত্রীদের উদ্দেশে বলেন, সবাই যেন টিকিট কেটে রেল ভ্রমণ করেন। তাদের সবার ঈদযাত্রা শুভ ও নিরাপদ হোক এটাই প্রত্যাশা করি।

HostGator Web Hosting