| |

সর্বশেষঃ

ঈদযাত্রা: গাবতলীতে ঘরমুখো মানুষের স্রোত

আপডেটঃ ৪:১৯ অপরাহ্ণ | জুন ০৩, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঈদ উপলক্ষে বাড়ি ছুটছে মানুষ। আর ঘরেফেরা মানুষের স্রোত মিলেছে রাজধানীর প্রবেশমুখ গাবতলীতে।

গাবতলী আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল থেকেই উত্তর, দক্ষিণ ও পশ্চিমবঙ্গের সব বাস ছেড়ে যাচ্ছে। অনেকেই আধাবেলা অফিস করে পরিবার নিয়ে আসবেন গাবতলীতে।

সোমবার সকাল থেকেই সরেজমিনে দেখা গেছে, মানুষের জনস্রোতে পরিণত হয়েছে গাবতলী বাস টার্মিনাল। সোমবার ভোর থেকেই লোকজনের আসতে থাকে এ টার্মিনালে।

বিকেল নাগাদ তা জনসমুদ্রে রূপ নেবে বলে ধারণা করছেন বাস কাউন্টারের কর্মীরা। তবে কাউন্টারে বসার পর্যাপ্ত জায়গা না থাকায় অধিকাংশ যাত্রীর স্থান হয়েছে সড়ক ও ফুটপাতে।

সেখানে দেখা গেছে, যে যা পারছেন তাতেই উঠে পড়ছেন। কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যদের সামনেই ট্রাকে, পিকআপে, বাসের ছাদেও যাত্রীদের উঠতে দেখা যায়।

গাবতলী বাস টার্মিনাল থেকে মূলত উত্তরাঞ্চল রুটে চলাচলকারী মানুষের সংখ্যাই বেশি। তবে আজ বিকেল নাগাদ সাভার, নবীনগর, টাঙ্গাইল, মানিকগঞ্জ, ধামরাই গাজীপুরের মতো নিকট দূরত্বের যাত্রী বেশি হবে বলে জানা গেছে।

টার্মিনালে টিকিটের যানবাহনে ভিড় কম থাকলেও লোকাল ও গেটলক বাসগুলোতে সবচেয়ে বেশি ভিড়। গাড়ি ধরতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছে মানুষ। মানুষের ঢলের সুযোগে পরিবহন মালিক-শ্রমিকরাও নির্ধারিত ভাড়ার চার্টের বাইরে নিচ্ছেন অতিরিক্ত ভাড়া।

মানিকগঞ্জ দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ার ঘাটে যাবেন আসলাম হোসেন। তিনি বলেন, অন্য সময় ভাড়া ১০০ টাকা, আজ নেয়া হচ্ছে ২৫০ থেকে ৪০০ টাকা। এই ভাড়া এক এক গাড়িতে এক এক রকম। বাসও মিলছে না। বাধ্য হয়ে উঠতে হচ্ছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মনির বলেন, পরীক্ষার কারণে টিকিট কিনতে পারিনি। আজ গাবতলীতে এসে দেখি এখানে প্রচুর মানুষ দাঁড়িয়ে। ভাবছি টাঙ্গাইল কীভাবে যাবো।

কথা হয় নাবিল পরিবহনের কাউন্টার মাস্টার মো সেন্টুর সঙ্গে। তিনি বলেন, ঈদের যাত্রী আজকেই বেশি যাবে। কারণ আজ সকল অফিস, আদালত গার্মেন্টস ছুটি হয়ে যাবে। দুপুরের পর যাত্রী চাপ আরো বাড়বে।

HostGator Web Hosting