| |

সর্বশেষঃ

  • মুজিব বর্ষ

‘আম্পানের’ কারণে এখনো বিদ্যুৎহীন এক কোটি গ্রাহক

আপডেটঃ 10:24 pm | May 21, 2020

ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পানের’ আঘাতে বিপর্যয়ের কবলে দেশের দক্ষিণ ও উত্তরাঞ্চলের বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা। প্রায় সোয়া দুই কোটি গ্রাহক দীর্ঘ সময় বিদ্যুৎ বিচ্ছন্ন ছিল। এছাড়া রাজধানীসহ দেশের অন্য এলাকতেও ঝড়ের প্রভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নিত হয়।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত অধিকাংশ এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হলেও উপকূলীয় এবং উত্তরের অনেক জেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হয়নি। সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত প্রায় এক কোটি গ্রাহক এখনো বিদ্যুৎহীন। 

বৃহস্পতিবার রাত ১২টা পর্যন্ত লাইন মেরামতের কাজ চলবে। তারপরও ৬০ লাখ গ্রাহক বিদ্যুৎহীন থাকবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। 

গ্রিড সাব স্টেশনে আগুন লাগায় কুষ্টিয়া জেলায় বিদ্যুৎ বিভ্রাট দীর্ঘ হতে পারে। এছাড়া রংপুর বিভাগের কিছু এলাকায় খারাপ আবহাওয়া ও সঞ্চালন লাইনের উচ্চ ভোল্টেজের কারণে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হয়নি। বিতরণ সংস্থাগুলো জানিয়েছে চাহিদা কম থাকায় সচল এলাকাগুলোতে বিদ্যুতের ভোল্টেজ বেড়ে যায়। ফলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা এড়াতে অনেক এলাকায় সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়। দুর্ঘটনা এড়াতেও কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ ছিল।

প্রাথমিক হিসাব অনুযায়ী ঝড়ে বিতরণ কোম্পানিগুলোর ৩০ থেকে ৩৫ কোটি টাকার সমপরিমাণ ক্ষতি হয়েছে। এর পরিমাণ আরও বাড়তে পারে। আম্পানে সারা দেশে প্রায় আড়াই হাজার বৈদ্যুতিক খুঁটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।  সাড়ে ৫ হাজার পোল হেলে পড়েছে। গাছ ভেঙে পড়ে সাত থেকে আট হাজার কিমি লাইন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। প্রায় ৯শ ট্রান্সফরমার নষ্ট হয়েছে। মিটার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২০ হাজার থেকে ২৫ হাজার।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, ঝড়ের কারণে ভোলা, বরগুনা, বরিশাল, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা অঞ্চলে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। অনেক এলাকায় গাছ পড়ে বিদ্যুতের লাইন বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। পোল ভেঙে পড়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত বেশির ভাগ এলাকা রাতের মধ্যে বিদ্যুৎ সরকরাহ স্বাভাবিক হবে। কিছু এলাকায় বিতরণ লাইনে বেশি ক্ষতি হওয়া মেরামতে সময় লাগবে। তবে আশা করা যায় শুক্রবারের মধ্যে প্রায় সব এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হবে। 

স্বাভাবিক সময়ে এই মৌসুমে বিদ্যুতের চাহিদা ১০ হাজার মেগাওয়াট হলেও আম্পানের কারণে বুধবার রাতে তা আড়াই হাজার মেগাওয়াটে নেমে যায়।  বিতরণ ব্যবস্থার মেরামতের পরও বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চাহিদা পাঁচ হাজার মেগাওয়াট পেরোয়নি। 

আম্পানে সবচেয়ে ক্ষতির মুখে পড়েছে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি)। সারা দেশে গ্রাহক দুই কোটি ৮৫ লাখ। তার মধ্যে প্রায় দুই কোটি গ্রাহক ঝড়ের কারণে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত বন্ধ ছিল জানান আরইবির সদস্য (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অঞ্জন কান্তি দাশ। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তিনি সমকালকে বলেন, সন্ধ্যা পর্যন্ত ৮৫ লাখ গ্রাহক বিদ্যুৎ সুবিধার বাইরে রয়েছে। তারা রাত ১২টা পর্যন্ত কাজ করবেন। এরপর ৩০ লাখ থেকে ৩৫ লাখ গ্রাহকের সংযোগ বিচ্ছিন্ন থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। 

তিনি জানান, প্রায়, ২

HostGator Web Hosting