| |

সর্বশেষঃ

ময়মনসিংহে ঘন ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটে অনলাইন ক্লাশ নিয়ে বিপাকে শিক্ষার্থীরা

আপডেটঃ 10:32 pm | July 18, 2020

আতাউর রহমান জুয়েল, ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : ঘন ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে অনলাইশ ক্লাশ করা নিয়ে বিপাকে পরেছেন ময়মনসিংহের শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, দিনেরাতে ১০ থেকে ১২ বার বিদ্যুতের লোড শেডিংয়ের কারণে ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ হওয়ায় নির্বিঘ্নে অনলাইন ক্লাশ করতে পারছেনা তারা। এনিয়ে চিন্তিত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা। করোনা মহামারির কারণে গেল প্রায় ৪ মাস ধরে স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ হয়ে যাওয়ায় শিক্ষক ও শ্রেণী কক্ষের সাথে সর্ম্পূর্ণভাবে দূরে রয়েছে শিক্ষার্থীরা। শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নির্দেশণায় লেখাপড়ার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এরই মধ্যে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগের মাধ্যমে অনলাইন ক্লাশ শুরু করা হয়েছে। তবে এক্ষেত্রে বাঁধা হয়ে দাড়িয়েছে ঘনঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাট। ময়মনসিংহ মহানগরীর চরপাড়া আমেনা নার্সিং হোম গলির বাসিন্দা প্রকৌশলী জহুরুল হকের পুত্র রেজায়ুনুল হক রিজন নটর ডেম কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র। কলেজ বন্ধ থাকায় বাসায় ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ নিয়ে অনলাইনে ক্লাশ শুরু করেছে। তার কলেজের ব্যবস্থাপনায় শিক্ষকদের ও বাইরের প্রাইভেটও পড়ছে সেে এই অনল্ইানে। তবে ঘনঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে কিছুটা বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে অনলাইনে লেখাপড়া। শিক্ষার্থী রেজায়ুনুল হক রিজন জানায়, অনলাইনে ক্লাশ করার জন্য তার বাবা ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগের ব্যবস্থা করায় ওয়াইফাইয়ের মাধ্যমে সে ক্লাশ শুরু করেছে। তবে দিনে রাতে ১০ থেকে ১২ বার বিদ্যুৎ চলে যাওয়ায় নির্বিঘ্নে ক্লাশগুলো করতে পারছে না। সে আরও জানায়, বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার পর ইন্টারেটনেটের রাউটারের লাইন বন্ধ হওয়ায় অনলাইন ক্লাশ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে । বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে অনলাইন ক্লাশ নির্বিঘ্নে করতে না পারায় চিন্তিত শিক্ষক ও অভিভাবকেরা। রেজায়ুনুল হক রিজনের পিতা প্রকৌশলী জহুরুল হক জানান, করোনা মহামারী শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় ব্যাপক ক্ষতি করেছে। এখন বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে তারা অনলাইন ক্লাশ থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে। এরফলে ছেলেমেয়েদের শিক্ষা জীবন নিয়ে সব অভিভাবক চিন্তিত জানান তিনি। দেশে বিদ্যুতের কোন ঘাটতি নেই এটা সরকার বারবার বলছে। এরপরও ময়মনসিংহে কেন বিদ্যুতের এমন অবস্থায় হতাশ শিক্ষাবিদরা। মহানগরীর প্রিমিয়ার আইডিয়াল হাই স্কুলের প্রাধন শিক্ষক ও জেরা শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক মো. চাঁন মিঞা জানান, বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে করোনাকালীন সময়ে প্রতিষ্ঠানের অনলাইন ক্লাশ থেকে বঞ্চিত হলে শিক্ষার্থীরা আরও ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। নির্বিঘ্নে অনলাইন ক্লাশ করার লক্ষ্যে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতের ব্যবস্থা করা খুবই জরুরী। এবিষয়ে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এই শিক্ষক নেতা। ময়মনসিংহ অঞ্চলে বিদ্যুতের কোন ঘাটতিও নেই এবং লোডশেডিং নেই এমনটাই দাবি করে বিদ্যুৎ অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী মো. রফিকুল ইসলাম জানান, এমনটা হওয়ার কথা না, এরপরও কোন সুনির্দিষ্ট এলাকার বিষয়ে অভিযোগ পেলে দ্রুতই ব্যবস্থা নেয়া হবে। শিক্ষার্থীদের নির্বিঘ্নে অনলাইন ক্লাশ করতে নিরবিচ্ছিন্নভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হবে জানান তিনি। ময়মনসিংহ বিদ্যুৎ অঞ্চলে ১০৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের চাহিদার বিপরীতে বিদ্যু উন্নয়ন র্বোর্ড ৪৫০ এবং পল্লী উন্নয়ন র্বোর্ড আরও ৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ করছে।

HostGator Web Hosting