| |

সর্বশেষঃ

ত্রিশালে ছাগলের পা ভাঙার ঘটনায় সংঘর্ষে যুবক খুন,আহত ৫ জন, আটক ৬

আপডেটঃ 10:01 pm | August 09, 2020

ত্রিশাল সংবাদদাতা : এক বাড়ির ছাগল আরেক বাড়ির আঙিনায় যাওয়ায় লাঠির আঘাতে ভেঙে ফেলা হয় ছাগলের পা। এনিয়ে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে দুই পরিবারের মধ্যে বাঁধে সংঘর্ষ। সংঘর্ষে ধারালো দায়ের কোপে নিহত হন মনিরুজ্জামান (৪০) নামে এক যুবক। এসময় গুরুতর আহত হন নিহতের বাবাসহ ওই পরিবারের তিন সদস্য। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল রোববার দুপুরে ময়মনসিংহের ত্রিশালের পৌরশহরের নওধার গ্রামের লেকেরপাড় নামক এলাকায়। ঘটনার সঙ্গে জড়িত ৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ।
পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, রোববার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে পৌরশহরের নওধার গ্রামের লেকেরপাড় নামক এলাকার রইছ উদ্দিন মাষ্টারের একটি ছাগল ছানা পাশের বাড়ির আনোয়ার হোসেন আনুদের আঙিনায় গেলে লাঠির আঘাতে পা ভেঙে ফেলে আনুর স্ত্রী। ছাগলের পা ভাঙার ঘটনায় দুই পরিবারের মধ্যে বাকবিতান্ডার এক পর্যায়ে বাঁধে সংঘর্ষ। সংঘর্ষকালে আনোয়ার হোসেনের ছেলে এনামুল, আরিফুল, শরিফুল, আশরাফুল ও কাউছারসহ অন্যরা রামদাসহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথারি কোপায়। সংঘর্ষে গুরুতর আহত হন রইছ উদ্দিন মাষ্টার, মাষ্টারের ছেলে মনিরুজ্জামান, মাসুদুজ্জামান বাচ্চু ও মেয়ে নার্গিস আক্তার। পরে প্রতিবেশি ও স্বজনরা আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে আহতদের অবস্থা আশংঙ্কাজনক হওয়ায় চিকিৎসক তাদের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করে। দুপুর দেড়টার দিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরপরই কর্তব্যরত চিকিৎসক মনিরুজ্জামানকে মৃত ঘোষনা করেন। অপর আহতদের মধ্যে রইছ উদ্দিনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন তার স্বজনরা। ওই ঘটনায় আনোয়ার হোসেন, তার ছেলে এনামুল, আরিফুল, শরিফুল, আশরাফুল ও কাউছারকে আটক করেছে ত্রিশাল থানা পুলিশ। তাদের মধ্যে আশরাফুল ও কাউছার পুলিশি প্রহরায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীণ রয়েছে। ওই খুনের ঘটনায় রোববার সন্ধ্যায় নিহতের ভাই মাসুম বাদী হয়ে ত্রিশাল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এদিকে মনিরের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।
বিকেলে মনিরের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, শোকে স্তব্ধ হয়ে পড়েছে পরিবারের লোকজন ও স্বজনরা। তাদের আহাজারিতে চারপাশের পরিবেশটা যেন ভারি হয়ে উঠেছে।
ওসি মাহমুদুল হাসান জানান, তুচ্ছ ঘটনায় মনিরুজ্জামান খুনের ঘটনায় জড়িত ৬ জনকে আটক করা হয়েছে। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

HostGator Web Hosting