সংবাদ শিরোনাম

 

অর্থ-বাণিজ্য ডেস্ক : বাংলাদেশে যৌথভাবে নিজস্ব ব্র্যান্ডের গাড়ি তৈরিতে প্রগতি ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের সঙ্গে ইতোমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে সমঝোতা স্বাক্ষর। বাকি শুধু চূড়ান্ত স্বাক্ষরের আনুষ্ঠানিকতা। তারই প্রেক্ষিতে এক অনলাইন সভায় নীতিগত সিদ্ধান্ত নিতে নানা দিক নির্দেশনা দেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদারসহ মন্ত্রণালয় ও প্রগতি ইন্ডান্ট্রিজের কর্মকর্তারা। সভায় রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান প্রগতিকে আধুনিকায়ন করার পাশাপাশি মানসম্মত উৎপাদন বাড়াতে মত দেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার। তার সব পরামর্শের সমর্থন দেন মন্ত্রীসহ প্রকল্পসংশ্লিষ্ট নীতি-নির্ধারকরা।

সূত্র জানায়, শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন যানবাহন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান প্রগতি ইন্ডাস্ট্রিজের সঙ্গে যৌথভাবে গাড়ি উৎপাদনে সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে আগেই। অপেক্ষা শুধু বাকি চূড়ান্ত স্বাক্ষরের। এ নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তাদের মতামত নিতে ভার্চুয়াল আলোচনা সভার আয়োজন করে মন্ত্রণালয়। সচিব কে এম আলী আজমের পরিচালনায় এতে সভাপতিত্ব শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন। সভার শুরুতে প্রকল্পের নানাদিক উত্থাপন করেন শিল্প সচিব।

সভায় একটি শিল্প কারখানাকে কিভাবে লাভজনক করা যায় সে ব্যাপারে নানা দিক-নির্দেশনা দেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব কামাল আহমেদ মজুমদার। বিশ্বায়নের যুগে প্রতিটি ক্ষেত্রেই প্রতিযোগিতা বেড়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ দৌড়ে টিকে থাকতে হলে প্রগতিকে সবার আগে আধুনিক করতে হবে।

বিশ্বায়নের যুগে নতুন নতুন শিল্প তৈরি হবে ব্যক্তি ও সরকারের উদ্যোগে। আমাকে টিকে থাকতে হলে সততার মাধ্যমে আমাকে বিশ্বমানের কার উৎপাদন করতে হবে। এটার গুণগত মান যাতে ভালো হয় সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে। দাম যাতে কম হয় সেদিকেও লক্ষ রাখতে হবে। প্রতিযোগিতার বাজারে টিকে থাকতে হলে মানসম্মত কার উৎপাদন করতে হবে।

শিল্প প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিশ্বখ্যাত জাপানি ব্রান্ড মিতসুবিশি বাংলাদেশে শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন প্রগতি ইন্ডান্ট্রিজ লিমিটেডের মাধ্যমে যৌথভাবে গাড়ি উৎপাদন করবে। এটা আমাদের জন্য সুখবর। কিন্তু চূড়ান্ত চুক্তির আগেই আমাদের এমনভাবে প্রস্তাব করা দরকার যাবে প্রগতি ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। এ জন্য আমাদের যৌথ স্ট্যাডি করে আলাপ আলোচনা করে পরবর্তী করণীয়গুলো নির্ধারণ করতে হবে।

তিনি বলেন, আমদানিকৃত পার্টস ও দেশীয় উৎপাদিত পার্টসের ট্যাক্স একই নির্ধারণ করতে হবে। যাতে করে দেশীয় প্রতিষ্ঠানগুলো টিকে থাকতে পারে। কারণ দেশীয় প্রতিষ্ঠান বিদেশি বাজারের সাথে প্রতিযোগিতা করে টিকে থাকতে পারে না। আর এটার জন্য অবশ্যই দেশীয় প্রতিষ্ঠানের ট্যাক্স কমাতে হবে। আমদানিকৃত গাড়ির ট্যাক্সও বাড়াতে হবে। যাতে মানুষ দেশীয় ও সরকারি শিল্প প্রতিষ্ঠানের গাড়ি কেনে।

সরকারি প্রতিষ্ঠানে প্রগতির গাড়ি বাধ্যতামূলক করার মত দিয়ে কামাল মজুমদার বলেন, সরকারি প্রতিষ্ঠানকে দেশে উৎপাদিত গাড়ি কিনতে হবে। যেটা মিতসুবিশি আর প্রগতি করবে। যদি বিদেশ থেকে গাড়ি ইমপোর্ট করে তাহলে দেশীয় বাজার টিকবে না। এজন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

দেশে জায়গার সংকট কাটাতে হওয়ায় পরিকল্পিত ভাবে শিল্প কারখানা প্রতিষ্ঠা করতে হবে উল্লেখ করে শিল্প প্রতিমন্ত্রী বলেন, উন্নত বিশ্বের আদলে বহুতল কারখানা নির্মাণ করা যেতে পারে। পাশাপাশি জায়গার ব্যাপারে বন্ধ হওয়া সুগার মিলের কাছ থেকে জায়গা নিতে পারি, এজন্য অবশ্যই সুগার করপোরেশনকে অর্থ দিতে হবে। সুগার করপোরেশনের সাথে যোগাযোগ করে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত যেতে পারে। যদি সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে এই প্রকল্পে শিল্প মন্ত্রণালয় স্বাক্ষর করতে পারে।

সভায় সভাপতিত্ব করে শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন। তার প্রস্তাবে সায় জানিয়ে তিনি বলেন, দেশকে শিল্পবান্ধব গড়ে তুলতে প্রগতি ইন্ডান্ট্রিজকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে। প্রগতিকে আধুনিকায়ন করার উপর জোর দিতে হবে। সরকারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রগতিকে সহায়তা করব। এ সময়প্রগতিকে গুরুত্বসহকারে কাজ করতে হবে। কিন্তু মিতসুবিসিকেও শুধু দেশীয় বাজারের দিকে তাকিয়ে থাকলেই হবে না। বিদেশেও রপ্তানির উপর জোর দিতে হবে


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম