| |

সর্বশেষঃ

প্রেমের জেরে খুন হল আকাশ

ময়মনসিংহ পুলিশের সফল অভিযানে হত্যার ৩দিনের মধ্যে ৬ ঘাতক গ্রেফতার : আদালতে স্বীকারোক্তি

আপডেটঃ 11:41 pm | May 23, 2021

স্টাফ রিপোর্টার, ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : ময়মনসিংহ সদরের ভুগলী নয়াপাড়ায় নিহত সৈকত হাসান আকাশ হত্যাকান্ডের তিনদিনের মধ্যে হত্যার রহস উদঘাটন করেছে পুলিশ। হত্যাকান্ডে জড়িত ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের মধ্যে তিনজন হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্কিকার করে স্বেচ্ছায় আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে। গোপনে প্রেম ও বিয়ে করার খবরে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রেমিকা জেসমিনের বাবা চাচাসহ ভাইয়েরা প্রেমিকাকে দিয়ে প্রেমিক আকাশকে ডেকে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে রাতের অন্ধকারে উপর্যপুরী কুপিয়ে জবাই পূর্বক হত্যা করে।
পুলিশ ও এলাকাবাসি সুত্রে জানা গেছে, অষ্টধার বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীতে পড়ুয়া ছাত্রী জেসিমিনের সাথে সৈকত হাসান আকাশ হত্যাকান্ডের তিনদিনের মধ্যে হত্যার রহস উদঘাটন করেছে পুলিশ। হত্যাকান্ডে আকাশের প্রেমের সর্ম্পক গড়ে উঠে। এক পর্যায়ে সকলের অজ্ঞাতসারে তারা বিয়ে করে বলে এলাকায় গুঞ্জন সৃষ্টি হয়। এতে প্রেমিকা জেসমিনের পিতা, মাতা, ভাইবোনসহ পুরো পরিবার ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। জেসমিনের বাবা চাচাসহ ভাইয়েরা গোপন পরিকল্পনা করে প্রেমিক সৈকত হাসান আকাশকে হত্যার পরিকল্পনা করে। পুর্ব পরিকল্পনায় চক্রটি গত ১৯ মে রাতে কৌশলে প্রেমিকা জেসমিনকে দিয়ে সৈকত হাসান আকাশকে ডেকে নিয়ে আসে। রাত প্রায় ১০ টার দিকে পরিকল্পিতভাবে চক্রটি সৈকত হাসান আকাশকে উপর্যপুরী কুপিয়ে জবাই পূর্বক হত্যা করে। হত্যাশেষে চক্রটি নিহতের লাশ প্রথমে তাদের বাড়ীর রান্না ঘরের পাশে ময়লার গর্তে ফেলে রাখে। পরের দিন রাতে ময়লার গর্ত থেকে লাশ তুলে বাড়ীর কিছুটা দুরে ফেলে রাখে। এদিকে সৈকত হাসান আকাশের পিতা তার ছেলেকে খোঁজাখুজি করে কোথাও না পেয়ে কোতোয়ালী মডেল থানায় নিখোঁজ ডায়রী করে। নিখোঁজ ডায়েরীর সূত্র ধরে কোতোয়ালী মডেল থানা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত ২১ মে সন্ধ্যায় প্রেমিক সৈকত হাসান আকাশের মৃত দেহ প্রেমিকার বাড়ীর পাশে মাটির নীচ থেকে উদ্ধার করে।
এদিকে প্রেমিকা জিসমিন সহ তার বাবা, ভাই, চাচা সকলেই বাড়ী থেকে পালিয়ে যায়। কোতোয়ালী থানার (পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত) ফারুক হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশ সারাশি অভিযান পরিচালনা করে হত্যাকান্ডে জড়িত ৬ জনকে মুক্তাগাছা থেকে ২২ মে গ্রেফতার করে। পুলিশ পরিদর্শক ফারুক হোসেন জানান, গ্রেফতারকৃতদের দেখানো মতে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুরি ও কোদাল উদ্ধার করা হয়। তিনি আরো জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা হত্যার দায় স্বীকার করে। এ ঘটনায় নিহতের পিতা আকরাম হোসেন বাদি হয়ে কোতোয়ালী মডেল থানার মামলা নং-৯৪(৫) ২০২১ দায়ের করে। গ্রেফতারকৃতদেরকে রবিবার আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। এর মধ্যে প্রেমিকা জেসমিনের পিতা জিয়াউল হক মেম্বার (৫২) জুলহাস উদ্দিন (৩৫) ও নাজমুল হক (২১) বিজ্ঞ অতিঃ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ আঃ হাই এর হত্যাকান্ডের বর্ণনা দিয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে। এছাড়া গ্রেফতারকৃত অন্যান্যরা হলো, রোজিনা আক্তার (২৩), নার্গিস আক্তার (৩২) ও প্রেমিকা জেসমিন (১৬)। তাদের প্রত্যেকের বাড়ি জেলা সদরের ভূগলী নয়াপাড়ায়। পুলিশ আরো জানায়, ঘটনায় জড়িত অভিযুক্তদের দ্রুততম সময়ে শাস্তি নিশ্চিত করার লক্ষ্যে মামলাটির অভিযোগপত্র অচীরেই দাখিল করা হবে।

HostGator Web Hosting