সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন পরীক্ষার্থী এবং অভিভাবকরা। নৈর্বাচনিক বিষয়গুলোর পরীক্ষা নেয়ায় মূল্যায়ন সঠিক হবে বলে মন্তব্য তাদের। তবে সময়সূচি নিয়ে আর গড়িমসি করা উচিৎ হবেনা বলে মনে করেন তারা।

করোনার পরিস্থিতির উন্নতি হবে আশা করে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে আগামী নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে এসএসসি এবং ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি পরীক্ষা নেয়ার পরিকল্পনা করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে, সময় এবং নম্বর কমিয়ে নৈর্ব্যচনিক তিন বিষয়ের পরীক্ষা হবে। আর আবশ্যিক বিষয়ের মূল্যায়ন হবে সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ের মাধ্যমে অর্থাৎ পূর্ববর্তী পাবলিক পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্তে খুশি অনিশ্চয়তায় থাকা পরীক্ষার্থীরা। অভিভাবকরাও এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন।

শিক্ষকরা বলছেন, পরীক্ষার্থীদের সঠিক মূল্যায়নের সবচেয়ে বড় দায়িত্ব এখন তাদের। এক্ষেত্রে কোন ত্রুটি হলে তার নেতিবাচক প্রভাব পড়বে পরীক্ষার্থীদের উপর।

তেজগাঁও সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেবেকা সুলতানা বলেন, ‘পরীক্ষার্থীদের নির্দেশনা দিবেন কিভাবে তাদেরকে মূল্যায়ন করা হবে। কোন ছাত্র-ছাত্রী যেন কপি না করে। আর মূল্যায়নে সময় খুব সতর্কভাবে ও আন্তরিকতার সাথে দেখা হবে।’

এরইমধ্যে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থীরা ফরম পূরণ করে ফেলেছেন। আর ঈদুল আজহার পর অনলাইনে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফরম পূরণ শুরু হবে।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম