সংবাদ শিরোনাম

 

উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া হারুন কর্তৃক সংবাদ সম্মেলন ডেকে সম্প্রতি দৈনিক নিউ নেশন, দৈনিক সমকাল, আজকের পত্রিকাসহ বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি নিয়ে মিথ্যা খবর প্রকাশ করানো হয়। যা বাস্তবতাকে গোপন করে সাংবাদিকদের সামনে উপস্থাপন করা হয়েছে। যা বাস্তবতার সাথে কোনো মিল নেই। আমি সংবাদ সম্মেলনের খবরের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। খবরে আমাকে পদত্যাগী নেতা হিসেবে উপস্থাপন করা হয়েছে। যা একেবারেই মিথ্যা, বানোয়াট উদ্দেশ্য প্রণোদিত। তিনি বিগত ২০১৪ সালে মুক্তাগাছা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে দলে তাহার নেতিবাচক ও অনৈতিক কর্মকান্ড আড়াল করার জন্য এহেন মিথ্যাচার করে দলে বিভাজন সৃষ্টির অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। আমি কখনই কোনো সংবাদ মাধ্যমে লিখিত বা মৌখিক পদত্যাগের বিবৃতি প্রদান করিনি।
এছাড়া আমার মা সমতুল্য দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সম্পর্কে কখনো কোনদিন কটুক্তি করিনি। আমার বিরুদ্ধে এহেন মিথ্যা অভিযোগ আনায় তীব্র নিন্দা জানাই। ২০০৪ সালের পর থেকে ২০২০ ইং সালের ১৬ জানুয়ারি অর্থাৎ বিলুপ্ত কমিটির শেষ সভায় উপস্থিত থাকাসহ উপজেলা বিএনপির সহ সভাপতি হিসেবে সকল কর্মকান্ডে অংশ গ্রহণ করেছি। এ বছর ১৩ জুন আমাকে আহ্বায়ক করে ও কামরুজ্জামান লেবুকে সিনিয়র যুগ্ম আহ্বয়াক করে ৩১ সদস্যের একটি আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা দেওয়া হয়। এরপর থেকেই জাকারিয়া হারুন ও তার সঙ্গীয় কয়েকজন নেতা, উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটিকে বিতর্কিত ও ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক জননেতা জাকির হোসেন বাবলু সাহেব সম্পর্কে বিতর্ক সৃষ্টি করা সহ বিএনপিকে ক্ষতিগ্রস্থ করার উদ্দেশ্যেই নানা কৌশলে মাঠে নেমেছেন। যা সংগঠনের শৃঙ্খলা ভঙ্গের শামিল। আমি এসব ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

মোঃ হাবিবুর রহমান খান রতন
আহ্বায়ক
মুক্তাগাছা উপজেলা বিএনপি
ময়মনসিংহ।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম