সংবাদ শিরোনাম

 

ঢাকা মহানগরের বিভিন্ন পূজামণ্ডপ থেকে রাজধানীর সদরঘাটে কড়া নিরাপত্তায় প্রতিমা বিসর্জন দিতে আসেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। করোনার মতো বিশ্বজুড়ে অমঙ্গল থাকায় বিজয়া দশমী শোভাযাত্রার পরিবর্তে এবার প্রতিমা বিসর্জন দেওয়া হয়।

শুক্রবার (১৫ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে ৪টায় সারাদেশের মতো ঢাকেশ্বরী মন্দির কেন্দ্রীয় পূজামণ্ডপ থেকে প্রতীকী প্রতিমা বিসর্জন দিতে সদরঘাট যান পূজা উদযাপনের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা। রাজধানীর অন্যান্য পূজামণ্ডপ থেকে প্রতিমা নিয়ে আসায় ঘাট এলাকায় সারি সারি ট্রাক দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।

বিভিন্ন স্থান থেকে দুপুর ৩টার পর ট্রাক ও ভ্যানে করে সদরঘাটে প্রতিমা নিয়ে আসেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। এসময় যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কড়া নিরাপত্তা দেখা যায়। বিকেল থেকে সদরঘাট এলাকায় জোরদার করা হয় নিরাপত্তা।

এছাড়া প্রতিমা বিসর্জনের সময় কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে তাৎক্ষণিক উদ্ধার তৎপরতার জন্য ফায়ার সার্ভিসের একটি ডুবুরি দলও উপস্থিত থাকে।

এরপর প্রতিমা নিয়ে আসা সারি সারি ট্রাক থেকে পর্যায়ক্রমে সেগুলো নৌকায় করে নদীতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে দেওয়া হয় বিসর্জন।

জানতে চাইলে মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কিশোর রঞ্জন মণ্ডল জাগো নিউজকে বলেন, দুর্গোৎসব শেষ হলো। তবে আমরা কিছুটা উদ্বিগ্ন গত কয়েকদিনের ঘটনায়। বহু পূজামণ্ডপ ভাঙা হয়েছে। আমরা চাই, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট হয় এমন কোনো কাজ যেন না ঘটে।

এর আগে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শ্রী মিলন কান্তি দত্ত জাগো নিউজকে বলেন, বিসর্জনের জন্য মণ্ডপ থেকে দুপুর ৩টার পর প্রতিমা বের করার একটি নির্দেশনা সারাদেশে দিয়েছিলাম। জুমার দিন হওয়ায় মুসলমানদের যেন কোনো অসুবিধা না হয় তাই এই নির্দেশনা।


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম