সংবাদ শিরোনাম

 

শিশির ভেজা সকালে ঘন কুয়াশার চাদরে মোড়ানো কৃষকের বিস্তৃত মাঠ জুড়ে চোখে পরে সরিষার হলুদ ফুলের সমারোহ। যেন চারিদিকে সরিষা ফুলের হলুদ রঙে সেজে উঠেছে ফসলের মাঠ। এ যেন নয়ন জুড়ানো দৃশ্য। হলুদে মেতে উঠেছে ফসলের খেত।

 

ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে বদলে গেছে প্রকৃতির রূপ বৈচিত্র্য। যেন মাঠ জুড়ে হলুদ রঙে সাজিয়ে তুলেছে প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যের দৃশ্য রূপ। বালিকারা মেতে উঠে আনন্দে হলুদ ফুলের রূপে। নিত্য নতুন ছন্দে, মনের আনন্দে দিন কাটে বালিকাদের। প্রতিদিন রাত শেষে ভোর হয় নতুন এক বার্তা নিয়ে। সকালে শিশির ভেজা কুয়াশার চাদরে গ্রামের মেঠো পথের দু’ধারে সরিষা ফুলের দৃশ্য সকলের মন কাড়ে।

 

জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার বিস্তৃত ফসলি জমিতে ভরে উঠেছে সরিষা ফুলের দৃশ্যপট। দৃশ্য দেখতে প্রতিদিন ফসলের মাঠে হাজারো মানুষ তাকিয়ে থাকে। গ্রামের বালিকা হলুদ ফুলের সাথে নিজের পোশাক মিলিয়ে পরতে আনন্দ অনুভব করে। সরিষার মাঠ জুড়ে এক দিকে মৌমাছির গুনগুন শব্দে মধু সংগ্রহে করছে। অন্য দিকে প্রজাপতির দল এক ফুল থেকে আরেক ফুলে যাচ্ছে। এ অপরূপ প্রাকৃতিক দৃশ্য সত্যিই যেন এক মনোমুগ্ধকর মুহূর্ত।

 

বৃহস্পতিবার সকালে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে এ বছর আবহাওয়া অনুকূল থাকায় সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দেওয়ায় কৃষকের মুখে হাসির ঝিলিক দেখা গিয়েছে।

 

আমন ধান ঘরে তোলার সঙ্গে সঙ্গে এ অঞ্চলের প্রান্তিক চাষিরা একই জমিতে সরিষা চাষ করেছে। সরিষার ফলন ঘরে তোলার সঙ্গেই আবারও একই জমিতেই কৃষকরা বোরো চাষ করবেন। সরিষা বিক্রি করে কৃষকেরা বোরো আবাদের জন্য স্বল্প খরচ ও কম পরিশ্রমেই সরিষার জমিতে ইরি-বোরো আবাদ হওয়ায় কৃষকরা লাভবান হওয়ায় সরিষা চাষ দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এ অঞ্চলে। সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দেওয়ায় ভালো দামের আশায়ও করছেন কৃষকরা।

 

উপজেলার কৃষক শামসুল আলম, হারু শেখ ও নুরুজ্জামান জানান, উপজেলা কৃষি বিভাগের পরামর্শে সাড়ে ৬ বিঘা জমিতে বিভিন্ন জাতের সরিষার আবাদ করেছি। গাছে গাছে প্রচুর পরিমাণে ফুল ধরায় আশানুরূপ ফলন হবে বলে মনে করছেন তিনি। এ বছর ভাল ফলন দেখায় প্রতি বিঘা ৫ থেকে ৬ মন করে সরিষা ঘরে তুলবেন বলে আশা করছেন এই কৃষকরা।

 

বাহাদুরাবাদ ইউনিয়নের কৃষক আশরাফ আলী বলেন, সরিষার জমিতেই বোরো আবাদ ভাল হয় এবং খরচও কিছুটা কম। এছাড়াও বোরো আবাদের যে টাকা খরচ হয় তা সরিষা বিক্রির টাকা দিয়ে মেটানো সম্ভব হয় বলে আমন ধান ঘুরে তোলার সঙ্গে সঙ্গে ঐ জমিতে তারা সরিষার চাষাবাদ করেন।

 

 

সরিষা ফুলের সাথে ছবি তুলতে আসে দর্শনার্থী লামিয়া চৌধুরী বলেন, প্রতিবছর এই সময়টা সরিষা ফুলে সারা মাঠ ভরে ওঠে। প্রতিটি মাঠ সবুজের এর পরিবর্তে হলুদে ভরে ওঠে। এ দৃশ্য দেখে আমার মত সকলেই মুগ্ধ হয়ে যায়। তাইতো ফুলের সাথে মিলিয়ে পোশাক পরে ছবি তুলতে এসেছি।


দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা কৃষি পরেশ চন্দ্র দাস বলেন, আবহাওয়া অনুকূল থাকায় এ বছর উপজেলার পৌরসভাসহ ৮ টি ইউনিয়নে বিভিন্ন চরাঞ্চলে মোট ১ হাজার ৩শ ৫০ হেক্টর জমিতে চাষিরা সরিষার চাষবাদ করেছে। কৃষি বিভাগ সব সময় কৃষকের মাঠে মাঠে গিয়ে সর্বাত্মক সহযোগীতা ও পরামর্শ প্রদান করছে। গত বছরের চেয়ে এ বছর সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। আশা করছি কৃষকরা সরিষা চাষে লাভবান হবেন।


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম