সংবাদ শিরোনাম

 

পূর্বাচলে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে চলছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার ২৬তম আসর। করোনা ভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের সংক্রমণ রোধে ঘোষিত বিধিনিষেধের মধ্যেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাণিজ্য মেলার কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

 

কিন্তু কোনো স্বাস্থ্যবিধিই মানছেন না দর্শনার্থীরা। ক্রেতা-বিক্রেতা থেকে শুরু করে দর্শনার্থী কেউই মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব।

 

শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) সকালের দিকে মেলায় লোকজন কম থাকলেও দুপুরের পর থেকেই বাড়তে থাকে দর্শনার্থী। প্রতিটি স্টলের সামনে উপচে পড়া ভিড়। লোকে লোকে ভরে যায় বাণিজ্য মেলা প্রাঙ্গণ। খাবারের দোকান থেকে শুরু করে প্রত্যেকটি স্টলের সামনে ভিড় ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের। কোথাও পা রাখার জায়গা নেই। স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মানার কোনো বালাই নেই মেলার কোথাও।

 

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়-
১. মুখে মাক্স লাগিয়ে বাণিজ্য মেলা প্রাঙ্গণে প্রবেশ করলেও ভেতরে তা ব্যবহার করছেন না দর্শনার্থীরা।

২. মেলা প্রাঙ্গণে প্রবেশের মুখে দেওয়া হচ্ছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার।

৩. স্টলগুলোতে ক্রেতা-বিক্রেতা করোরই মুখে মাক্স নেই।

৪. স্বাস্থ্যবিধির কোনো তোয়াক্কা না করেই মেলা প্রাঙ্গণে ঘুরে বেড়াচ্ছেন দর্শনার্থীরা।

৫. মেলা প্রাঙ্গণে দলে দলে মাক্স ছাড়া সেলফি তুলছেন দর্শনার্থীরা।

৬. অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে রাস্তার পাশে বা খোলা আকাশের নিচে সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিচ্ছেন মা।

৭. মেলা কর্তৃপক্ষ বারবার মাইকিং করে স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে সচেতন করলেও ভিতরে তা মানছে না দর্শনার্থীরা।

৮. স্টলের সামনে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে পণ্য কিনতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন দর্শনার্থীরা।

৯. শিশুদের বিনোদনের জন্য দেওয়া রাইড হঠাৎ ভেঙে যাওয়ায় ভয়ে কাতর শিশুরা।

১০. মেলার পাশের সড়কে ধুলাবালি ও তীব্র যানজট।


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম