সংবাদ শিরোনাম

 

এম এ আজিজ, ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : পুলিশ বিভাগের ময়মনসিংহ রেঞ্জে আগের বছরের (এপ্রিল-ডিসেম্বর ১৫) তুলনায় (এপ্রিল-ডিসেম্বর ১৬) বছরে তুলনামূলক অপরাধ প্রবনতা কমে এসেছে। তবে মাদক উদ্ধার, মাদক ব্যবসায়ী ও মাদকসেবী গ্রেফতারসহ মাদক আইনে মামলার সংখ্যা আগের বছরের চেয়ে গত বছর ৮ শতাধিক বেড়েছে। একই সাথে বেড়েছে অস্ত্র উদ্ধারসহ পুলিশ আক্রান্তের সংখ্যা। ফলে মাদকের ভয়াবহ অবস্থা থেকে ময়মনসিংহ বিভাগ অনেকটা নিয়ন্ত্রণে আসছে বলে পুলিশ বিভাগ দাবী করছেন।
রবিবার ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন তার কার্যালয়ে মাসিক সভায় এ তথ্য উপস্থাপন করেন। রেঞ্জ কার্যালয়ের তথ্য মতে, আগের বছর ১৫ সালে ময়মনসিংহে ডাকাতির সংখ্যা ছিল ৭ আর ১৬ সালে হয়েছে মাত্র ৪টি। একই সময়ে ১৫ সালে দস্যুতা ছিল ২১টি আর ১৬ সালে দস্যূতার ঘটনা অর্ধেকে নেমে এসে মাত্র ১০টি দস্যুতার ঘটনা ঘটে। এছাড়া ১৫ সালে ২২৬টি খুন হলেও ১৬ সালে ২০৩টি খুনের ঘটনা ঘটে। তবে দাঙ্গা ও খুনসহ দাঙ্গার ঘটনা না থাকলেও ১টি দাঙ্গার ঘটনা ঘটে ১৬ সালে। ১৫ সালে ১১৭২টি নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটলেও গত বছর কমে  ৮৫৯টি ঘটনা ঘটে। যা প্রায় এক তৃতীয়াংশ কমে এসেছে। শিশু নির্যাতন আসানুরূপভাবে কমতে শুরু করেছে। ১৫ সালে ৬১টি শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটলেও ১৬ সালে মাত্র ১২টি শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। তবে অপহরণ ১৫ সালের চেয়ে ১টি বেড়ে দাড়িয়েছে ১৫টি। পাশাপাশি কমতে শুর করেছে সিধেল চুরির ঘটনা। যা ১৫ সালে ছিল ৮২ আর গত বছর হয়েছে মাত্র ৪৯টি। একই সাথে চুরির ঘটনাও কমতে শুরু করেছে। ১৫ সালে চুরির ঘটনা ছিল ২৪৮টি আর ১৬ সালে ২১৮টি। বিস্ফোরক দ্রব্য সংক্রান্তে গত বছর ছিল আগের বছরের পরিসংখ্যানের তুলনামূলক সমান। অর্থাৎ গত বছর বিস্ফোরকের দুটি ঘটনা ঘটেছে। মাদক ও অস্ত্র উদ্ধারে রেঞ্জে ব্যাপক সফলতা হয়েছে। ১৬ সালে রেঞ্জে ২৮৭৬ টি মাদক উদ্ধারের মামলা হয়েছে। যা আগের বছর ছিল ২০৬৫টি। আর অস্ত্র উদ্ধার আগের বছর ছিল ২৭টি এবং গত বছর ৩৩টি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। চোরাচালান উদ্ধার আগের বছরের তুলনায় গত বছর কমে ছিল ১০৮টি আর আগের বছর ১৫ সালে ছিল ১২১টি। মাদক, অস্ত্র ও চোরাচালানের ঝুকিপূর্ণ অভিযান পরিচালনা করে উদ্ধারসহ অপরাধীদের গ্রেফতার করতে গিয়ে গত বছর পুলিশ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাড়িয়েছে ৩১জনে। যা আগের বছর ১৫ সালে ছিল মাত্র ১০জন। এ ছাড়া অন্যান্য অপরাধ ১৫ সালে ছিল ৫ হাজার ২৬টি আর ১৬সালে হয়েছে ৪৩৭৪টি। যা আগের বছরের চেয়ে ৮শতাধিক কম হয়েছে। সব মিলিয়ে ১৫ সালে ৯ হাজার ৩০২টি মামলা হলেও ১৬ সালে তা কমে মামলা হয়েছে ৮ হাজার ৮৭৬টি। ডিআইজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, ১৬ সালের মার্চ মাসে ময়মনসিংহ রেঞ্জে ডিআইজি নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। ১৫ সালের তুলনামূলক পরিসংখ্যানে অপরাধের পাশাপাশি মামলার সংখ্যাও কমে এসেছে দাবী করে ডিআইজি বলেন, অপরাধ কমেছে তবে মাদক উদ্ধারসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ও অস্ত্র উদ্ধার অনেকাংশে বেড়েছে। বর্তমান সরকার যে উদ্দেশ্যে বিভাগ ও পুলিশের রেঞ্জ গঠন করেছে জনগন তার সুফল পেতে শুরু করেছে। পুলিশের রেঞ্জ গঠনের পর থেকে চার জেলায় অপরাধ প্রবনতা অনেকাংশে কমেছে।
এ সম্পর্কে তিনি বলেন, মাদকের কারণেই সমাজে বেশীরভাগ অপরাধমূলক ঘটনা ঘটছে। মাদকের ভয়াবহ থাবা থেকে যুব সমাজকে রক্ষা করা সম্ভব হলে খুন, হত্যাসহ অপরাধ অনেকাংশে কমে আসবে। তিনি আরো বলেন, অপরাধ নির্মূল করতে সুষ্ঠ মনিটরিং, দায়িত্বশীল কাজের তাগিদ থাকায় মাদক ও অস্ত্র উদ্ধার আগের চেয়ে বেড়েছে। এছাড়া রেঞ্জে গ্রাম পুলিশ থেকে শুরু করে প্রতিটি স্তরে পুলিশ সদস্যদেরকে তাদের ভাল কাজের জন্য উৎসাহিত করতে পুরষ্কার প্রদান ও সনদ বিতরণ করায় তা অনেকাংশে সফল হচ্ছে বলে তিনি মনে করেন। ডিআইজি আরো বলেন, পুলিশ ক্লিয়ারেন্সের জন্য জনগনকে আর হয়রানির শিকার হতে হবে না, এখন থেকে ময়মনসিংহ রেঞ্জের জামালপুর, শেরপুর, নেত্রকোন ও ময়মনসিংহ জেলার মানুষ ঘরে বসে অন-লাইনের মাধ্যমে পুলিশ ক্লিয়ারেন্সের জন্য আবেদন করার পর যাচাই-বাচাই শেষে এক সপ্তাহের মধ্যে তা পেয়ে যাবেন। এ জন্য এ ব্যক্তির অন্য কোন থানায় ঘুরতে হবে না। এছাড়াও পুলিশের বিডি হেল্প লাইন ও ফেইস বুকে যে কেউ জঙ্গী ও অপরাধীদের তথ্যসহ দিয়ে সহযোগিতা করতে পারেন। তবে তথ্য দাতাদের পরিচয় গোপন রাখা হবে। এ জন্য তিনি সকলের সহযোগীতা কামনা করেছেন।
সভায় রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি ড.আক্কাছ উদ্দিন ভূঞা, ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার সৈয়দ নূরুল ইসলাম, শেরপুরের পুলিশ সুপার রফিকুল হাসান গনি, নেত্রকানার পুলিশ সুপার জয়দেব চৌধুরী, রেঞ্জ অফিসের পুলিশ সুপার সৈয়দ হারুন অর রশিদ ও জামালপুরের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার রওনক জাহান বক্তব্য রাখেন। সভায় রেঞ্জ অফিসের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান, মোহাম্মদ শফিউল ইসলাম, একেএম মনিরুল ইসলাম, সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহজাহান ও পিবিআইয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু বকর সিদ্দিক উপস্থিত ছিলেন।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম