সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : নারায়ণগঞ্জে সাত খুন মামলার রায়ে অপরাধীর বিষয়ে মানুষের মন থেকে ভীতি দূর হবে বলে মনে করছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেছেন, মানুষ এখন বুঝবে অপরাধ করে পার পাওয়ার সুযোগ নেই।

নারায়ণগঞ্জের সাত খুন মামলার রায় ঘোষণার পর সোমবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদেরকে এ কথা বলেন আইনমন্ত্রী।

এই মামলার আসমিদের মধ্যে সিংহভাগই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী র‌্যাবের সাবেক সদস্য। তদন্ত ও আদালতে প্রমাণ হয়েছে, বাহিনীটির পোশাক পড়া কর্মীরা প্রধান আসামি নুর হোসেনের কাছ থেকে টাকা নিয়ে সাত জনকে তুলে নিয়ে হত্যার পর মরদেহ গুম করে। এই মামলার ৩৫ আসামির মধ্যে মৃত্যুদণ্ড হয়েছে ২৬ জনের। এদের মধ্যে ১৭ জন র‌্যাব সদস্য। র‌্যাব-১১ এর সাবেক অধিনায়ক তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, বরখাস্ত কমান্ডার এম এম রানা ও আরিফ হোসেনও পেয়েছেন সর্বোচ্চ দণ্ড।

এই রায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপথগামী সদস্যদের জন্য একটি বার্তা বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। একই কথা মনে করেন আইনমন্ত্রীও। তিনি বলেন, ‘সঠিক রায় হয়েছে। এই রায়ে জনগণ সন্তুষ্ট হবে। অপরাধী যেই হোক তার শাস্তির বিষয়ে মানুষের মন থেকে ভীতি দূর হবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘যেই অপরাধ করুক, তাকে বিচারের আওতায় এনে শাস্তি দেওয়া রাষ্ট্রের কর্তব্য। রাষ্ট্র এই কাজটিই করেছে।’

এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘এই অপরাধে যে নৃশংসতার পরিচয় দেওয়া হয়েছে তার প্রমাণ আদালত পেয়েছে। তাতে যে ফাঁসির রায় দিয়েছে এটা অ্যাডভোকেট হিসেবে আমি কর্তব্য বলে মনে করি।’

মন্ত্রী বলেন, ‘দেশের আইনের শাসন বিদ্যমান রয়েছে। এই রায়ে এটি ফের প্রমাণিত হয়েছে। সরকার সারাদেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় যে সচেষ্ট তা প্রমাণিত হয়েছে এই রায়ে।’

রায় কার্যকরের বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে আনিসুল হক বলেন, ‘রায় কার্যকরের বিষয়টি পরবর্তী কার্যক্রমের ওপর নির্ভর করছে। এটি প্রথমে হাইকোর্টে যাবে, তারপর আপিল বিভাগে যাবে। সময় কতদিন লাগবে তা আদালতের ওপর নির্ভর করছে।’


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম