সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক, নারায়নগঞ্জ : রাজনৈতিক দলগুলোকে নিজেদের মধ্যে সংলাপের তাগিদ দিলেও এর প্রয়োজনীয়তা নাকচ করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। বলেছেন, নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে রাষ্ট্রপতির সংলাপের পর আর কোনো সুযোগ নেই।

বৃহস্পতিবার সকালে নারায়ণগঞ্জে একটি উন্নয়নকাজের উদ্বোধনকালে সংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের লক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মাসব্যাপী ৩১টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ করেছেন। বুধবার সংলাপের শেষ দিন রাষ্ট্রপতি জানিয়েছেন, রাজনৈতিক দলগুলোর প্রস্তাব বিবেচনায় নিয়ে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে।

এর আগে মঙ্গলবার কয়েকটি দলের সঙ্গে সংলাপকালে রাষ্ট্রপতি রাজনৈতিক দলগুলোর নিজেদের মধ্যে সংলাপের ওপর তাগিদ দেন। রাষ্ট্রপতির দেয়া সেই তাগিদের পর বিএনপিসহ প্রধান দলগুলোর সঙ্গে সংলাপের বিষয়টি সামনে আসে। এ ব্যাপারে সাংবাদিকরা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের কাছে জানতে চাইলে তিনি এর প্রয়োজনীয়তা নাকচ করে দেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘রাষ্ট্রপতির সংলাপের পর বিএনপির সঙ্গে আলাদা কোনো সংলাপের প্রয়োজন আছে বলে আমার মনে হয় না।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জানান, রাষ্ট্রপতি সার্চ কমিটির মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন গঠন করবেন। নির্বাচন কমিশন গঠনের এখতিয়ার রাষ্ট্রপতির। তিনি চাইলে প্রধানমন্ত্রীর সাথে পরার্মশ করতে পারেন। সংবিধান তাকে এই সুযোগ দিয়েছে।

কাঁচপুর, মেঘনা ও গোমতী দ্বিতীয় চারলেন সেতু প্রকল্পের প্রথম পাইলিং কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন ওবায়দুল কাদের।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী জানান, জাপান-বাংলাদেশের যৌথ আর্থিক সহায়তায় তিনটি সেতু নির্মাণে ব্যয় হবে সাড়ে আট হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে জাইকা সাড়ে ছয় হাজার কোটি টাকা দেবে। আর বাংলাদেশ ব্যয় করবে দুই হাজার কোটি টাকা।

মন্ত্রী জানান, হলি আর্টিজনের ঘটনার কারণে এ কাজের কিছুটা বিলম্ব হলেও নির্ধারিত সময় ২০১৮ সালের  ডিসেম্বরে পদ্মা সেতুর সাথে একই সময়ে এ তিনটি সেতু চালু করা হবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, নারায়ণগঞ্জের সাত খুন মামলার রায় দেশের অপরাধীদের জন্য কঠোর সতর্ক বার্তা। এই রায়ে এটাই প্রমাণিত হয়েছে যে, অপরাধী যত শক্তিশালী হোক না কেন, এই সরকারের আমলে তাদের বিচার হয়।

ওবায়দুল কাদের জানান, সাত খুন মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনের বিরুদ্ধে দল ব্যবস্থা নিয়েছে। ইতোমধ্যে তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন কাঁচপুর সেতুর প্রকল্প পরিচালক সাঈদ হক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফারুক হোসেনসহ সেতু বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম