সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক, ভৈরব : শ্রমিক নিহতের ঘটনায় ক্ষতিপূরণের দাবিতে ভৈরব দ্বিতীয় রেলসেতুর নির্মাণকাজ তিন দিন বন্ধ থাকার পর আজ সোমবার আবার কাজ শুরু হয়েছে।  ক্ষতিপূরণের আশ্বাস পেয়ে কাজে যোগ দেন শ্রমিকরা।

গত বৃহস্পতিবার কাজ করার সময় একজন নির্মাণশ্রমিক ভৈরব পাড়ের ৫ নম্বর স্পেনে    দুর্ঘটনায়  মারা যান।  তার ক্ষতিপূরণের দাবিতে শ্রমিকরা তিন দিন কাজ বন্ধ রাখেন।

নিহত শ্রমিকের রিমেলের  ( ৩৫) বাড়ী জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার দৌলতপুর গ্রামে। তার বাবার নাম  মো. অহেদ মিয়া। রিমেলের স্ত্রী ও দুই ছেলে রয়েছে বলে জানা যায়।

গত বৃহস্পতিবার  ভৈরব দ্বিতীয় রেলসেতুর নির্মাণকাজ করার সময় সেতু থেকে ৫০ ফুট নিচে পাথরের ওপর পড়ে মাথা ফেটে যায় রিমেলের। গুরুতর আহত অবস্থায় ভৈরবের আবেদীন হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

জীবনের নিরাপত্তার জন্য কোমরে ও বুকে বেল্ট বেঁধে কাজ করার নিয়ম সেতুতে।  এ ছাড়া কাজের সময় সেতুর নিচে শক্ত জাল বেঁধে রাখার নিয়ম থাকলেও ভারতীয়  ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ইরকোন-এফরন কোং এর কোনো ব্যবস্থা করে না বলে অভিযোগ শ্রমিকদের। এ কারণে দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় ওই শ্রমিকের।

রিমেলের মৃত্যুতে তার পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি জানান শ্রমিকরা। কিন্তু ক্ষতিপূরণের আশ্বাস না পাওয়ায় গত শুক্রবার থেকে কাজ বন্ধ রাখেন সেতুতে কর্মরত সব শ্রমিক। গতকাল রবিবার কর্তৃপক্ষ আশ্বাস দেয় ক্ষতিপূরণের। এরপর আজ সোমবার আবার কাজে যোগ দেন শ্রমিকরা।

কাল মঙ্গলবার রিমেলের পরিবারের সঙ্গে আলোচনা করে ক্ষতিপূরণের বিষয়টি সুরাহা করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও রিমেলের অভিভাবকরা নিশ্চিত করেন।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম