সংবাদ শিরোনাম

 

মোস্তাফিজুর রহমান উজ্জল মহেশপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি :  ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর ও পার্শ¦বর্তী কোটচাঁদপুর উপজেলার মধ্যদিয়ে প্রবাহিত হয়েছে কপোতাক্ষ  নদী। দুই উপজেলার ভালাইপুর, সুন্দরপুর, ফতেপুর, পুরন্দরপুর, সড়াতলা, গোয়ালহুদা, পাশপাতিলা, নারানবাড়ীয়া, সলেমানপুর গ্রামের অধিকাংশ কৃষকরা কপোতাক্ষ নদীর তীরে শীতকালীন সব্জি চাষ করে নিজেদের ভাগ্য বদলিয়ে নিয়েছেন। জেলার দুই উপজেলায় সব্জি চাষের জন্য বিখ্যাত এখন কপোতাক্ষ নদীর তীর। এখানকার কৃষকদের উৎপাদিত সব্জি মহেশপুর ও কোটচাঁদপুর উপজেলার সব হাট বাজারের চাহিদা পুরন করে নিকটতম বিভিন্ন উপজেলায় বিক্রি করছে। এখানকার জমিগুলো অপেক্ষাকৃত উঁচু হওয়ায় এখানে লালশাক, ফুলকপি, বাঁধাকপি, বেগুন, আলু, টমেটো, শিম, লাউ চাষ করে স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছেন কৃষকরা। এসব এলাকার কৃষকরা ধান বা অন্যান্য ফসলের চেয়ে সব্জি চাষ করাটাই বেশি লাভজনক মনে করছেন। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল হওয়ায় সব্জি বিক্রি করতে তেমন কোন সমস্যা হয় না এখানকার কৃষকদের । কৃষকরা প্রতিদিন সকালে সব্জি তুলে দ্ইু উপজেলার পাইকারী খালিশপুর, মহেশপুর পৌরসভা, বেলেমাঠ, কোটচাঁদপুর মেইন বাসস্ট্যান্ড ও কোটচাঁদপুর পৌর বাজারে নিয়ে আসেন। এখানে বাহিরের বিভিন্ন উপজেলার কাঁচামাল ব্যবসায়ীরা নচিমন, করিমন, আলমসাধু, অটোভ্যান, পিকআপ, ট্রাক নিয়ে সব্জি কিনতে আসেন। দিন যত যাচ্ছে ততই কপোতাক্ষের তীরে সব্জি চাষ অধিক লাভজনক ও জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে কৃষকদের মাঝে। বিগত বছরের তুলনায় এবছর সবচাইতে বেশি পরিমান জমিতে সব্জি চাষ করছেন কৃষকরা।


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম