সংবাদ শিরোনাম

 

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলের সখীপুরে সিভিল সার্জন পরিচয়দানকারী হারুন অর রশিদ নামের এক প্রতারককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার রাতে উপজেলার নলুয়া রোকেয়া দন্ত ক্লিনিকে সিভিল সার্জন পরিচয় দিয়ে টাকা চাইলে পরে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ তাকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়।

এর আগেও ওই প্রতারক উপজেলার তক্তারচালা শরীফ ডেন্টাল ক্লিনিক থেকে সিভিল সার্জন পরিচয়ে ১০ হাজার টাকাসহ অন্যান্য ক্লিনিক থেকে টাকা নেয়ার কথাও স্বীকার করেছে।

এ ঘটনায় রাতেই ওই ক্লিনিক মালিক খন্দকার রকিবুল ইসলাম বাদী হয়ে সীখপুর থানায় প্রতারণা মামলা করেছেন।  হারুন অর রশিদ মির্জাপুর উপজেলার লতিফপুর গ্রামের স্কুল শিক্ষক সিরাজুল ইসলামের ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, সোমবার সন্ধ্যায় ওই ভুয়া সিভিল সার্জন হারুন অর রশিদ উপজেলার নলুয়া বাজারে রোকেয়া দন্ত ক্লিনিকে গিয়ে সিভিল সার্জন পরিচয় দেন এবং ওই ক্লিনিকের লাইসেন্সসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চান। অন্যথায় তাকে ১০ হাজার টাকা দিতে হবে বলে দাবি করেন। বিষয়টি ওই ক্লিনিকের মালিক খন্দকার রকিবুল ইসলামের সন্দেহ হলে তাকে আটক করে থানায় খবর দেন। পরে সখীপুর থানা পুলিশ জিঙ্গাসাবাদ শেষে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

হারুন অর রশিদের স্ত্রী মৌসুমী সিদ্দিকা জানান, তার স্বামী মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই বাজারে সিরাজ ডেন্টাল ক্লিনিকের মালিক। তিনি লন্ডন মেডিকেল থেকে চার বছরের কোর্স করে ডেন্টাল ডাক্তার হয়েছেন। বেশ কয়েকদিন ধরেই তিনি মানসিক রোগে ভুগছেন।

সখীপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাকছুদুল আলম বলেন, বিভিন্ন ডেন্টাল ক্লিনিক থেকে সিভিল সার্জন পরিচয়ে টাকা নেয়ার অভিযোগে প্রতারক হারুর অর রশিদকে গ্রেফতার করে মঙ্গলবার সকালে আদালতে পাঠানো হয়েছে।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম